মিথিলার মুখোমুখি সৃজিত|200486|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
মিথিলার মুখোমুখি সৃজিত

মিথিলার মুখোমুখি সৃজিত

শোবিজ অঙ্গনে ঘটে যাওয়া গত বছরের আলোচিত ঘটনার একটি মডেল-অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ও ভারতের নির্মাতা সৃজিত মুখার্জির বিয়ে। এরপর থেকে ভক্তদের আগ্রহের কোনো কমতি নেই। মিথিলা আর সৃজিতের বিষয়ে নতুন তথ্য জানতে মুখিয়ে রয়েছেন তারা। কিন্তু ভক্তরা হয়ত ভাবতেই পারেননি, সৃজিত আর মিথিলার রসায়নের নাড়ি-নক্ষত্র বেরিয়ে আনতে খোদ মিথিলাই এগিয়ে আসবেন! অবাক হলেও সত্যি যে, টিভি চ্যানেলে সৃজিতকে প্রশ্নবানে জর্জরিত করবেন তার স্ত্রী মিথিলা। অনেকেই জানেন, দীর্ঘদিন ধরে বাংলাভিশনের জনপ্রিয় সেলিব্রেটি টক শো ‘আমার আমি’ উপস্থাপনা করছেন মিথিলা। অনেক সেলিব্রেটির সাক্ষাৎকার নিয়েছেন তিনি। এবার সেই অনুষ্ঠানে মিথিলার মুখোমুখি সৃজিত মুখার্জি। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে সৃজিতও বহু সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। কিন্তু এবারই প্রথম তিনি স্ত্রীর মুখোমুখি হয়ে টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। ‘আমার আমি’র এই বিশেষ পর্বটি বাংলাভিশনে প্রচার হবে আজ রাত ৯টা ৫ মিনিটে।

এদিকে সৃজিত ও মিথিলা বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান করছেন কলকাতায়। ২৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় সেখানকার একটি রেস্তোরাঁয় অনুষ্ঠিত হবে এই সংবর্ধনা। মিথিলা জানিয়েছেনÑ এ অনুষ্ঠানে অতিথিদের খাওয়ানো হবে বিক্রমপুরের কাসুন্দি, ঠাকুরবাড়ির কষা মাংসের মতো সব রেসিপি। বাঙালি বিয়েতে সবাই যেমন শাড়ি পরে, আমিও পরব। সৃজিত পরবে ধুতি-পাঞ্জাবি। কলকাতার চলচ্চিত্রে সৃজিতের বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজনরা উপস্থিত থাকবেন। ঢাকা থেকে পরিবারের লোকজন ছাড়া কাছের কয়েকজন বন্ধু ও সহকর্মী এখানে অংশ নেবেন।’

মিথিলা আরও বলেন, ‘আমি অফিসের কাজ নিয়ে আর সৃজিত সিনেমা নিয়ে খুব ব্যস্ত। ইচ্ছে থাকলেও বড় কোনো আয়োজন করা সম্ভব হচ্ছে না। বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের পরদিন সৃজিত চলে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকায়, সিনেমার শ্যুটিংয়ে। আমি পরের সপ্তাহে অফিসের কনফারেন্সে ডেনমার্কে যাব। সেখান থেকে আবার অফিসের কাজে দক্ষিণ আফ্রিকা। পুরো মার্চ মাসে আমাদের পরস্পরের সঙ্গে দেখা হবে না। বিয়ের সময় সৃজিত সবাইকে বলতে পারেনি, তাই এই আয়োজন।’

মিথিলা তার আমন্ত্রণপত্রের শুরুতে লিখেছেন, ‘প্রেম  কেবলই একটি রাসায়নিক বিক্রিয়া কি না জানি না। তবে এটুকু জানি, মুখোমুখি বসে কথোপকথনের পর উপযুক্ত এক্স ফ্যাক্টরের সন্ধান পেলে এখনো প্রেম হয়ে ওঠে সেই ল্যান্ডফোনের দিনগুলোর মতোই মধুর। তাই সস্তা ক্ষোভ আর অ্যাঙ্গার স্টোরির টাইমলাইন পেরিয়ে আবার লাল  বেলুনের স্বপ্ন। আপনাদের চেনা মিথিলা আর সৃজিত তাই এখন ‘হি অ্যান্ড শি’ থেকে ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস’। আমন্ত্রণপত্রে আরও লেখা, ‘আলাদা দেশ, আলাদা ধর্ম নিয়ে ওঠা নানা কথা আমাদের আলাদা তো করতে পারেইনি, বরং এনেছে এক বৃত্তাল্পনার ঠিক মাঝখানে। নবাব হোক বা গুন্ডা, বেড়ে ওঠার গল্প ‘আমার আমি’ থেকে ‘আমার গল্পে তুমি’তে বদলালে উৎসব পালন করতে হয় সবাইকে।’

আমন্ত্রণপত্রের শুরুতে সৃজিত তিনি লিখেছেন, ‘আমাকে আমার মতো থাকতে দাও’ বলার দিন এবার শেষ। ‘নৌকার পালে চোখ রেখে’ দিন কাটানোর আশায় বিয়েটা করেই নিলাম। তাই আপাতত মিথিলা আর সৃজিত ‘এক রাস্তায় ট্রামলাইন, এক কবিতায় কাপলেট।’