টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত|200748|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১২:৪৯
টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
কক্সবাজার প্রতিনিধি

টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আব্দুস সালাম (৩০) নামে মানব পাচার মামলার আসামি নিহত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে উপজেলা বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালীয়াপাড়া জুম্মাপাড়ায় পাহাড়ের পাদদেশে এ ঘটনা ঘটে।

তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।

টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালীয়া পাড়ার জুম্মাপাড়ার বাসিন্দা মৃত হাকিম আলীর ছেলে।

পুলিশের ভাষ্য, গত ১২ ফেব্রুয়ারি সেন্টমার্টিন দ্বীপের কাছাকাছি একটি ট্রলার ডুবির ঘটনায় ২১ জনের মৃতদেহ ও জীবিত ৭৩ জনকে উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনায় ১৯জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল। ওই মামলায় আটজনকে আটক করা হয়। মামলার প্রধান আসামি আব্দুস সালাম।

ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, উপজেলা বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ জানতে পারে- আসামি আব্দুস সালামসহ কয়েকজন মানব পাচারকারী বাহারছড়ার নোয়াখালীয়াপাড়া, জুম্মাপাড়ায় পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থান করছে।

পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছালে উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্রধারী আসামিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে।

এ সময় সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাবিবউল্লাহ, কনস্টেবল সানি বডুয়া ও মোহাম্মদ দেলোয়ার আহত হয়।
তাৎক্ষণিক পুলিশও পাল্টা গুলি করে। একপর্যায়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আবদুস সালামকে পাওয়া যায় এবং অন্য আসামিরা গুলি করতে করতে পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়।

পরে ঘটনাস্থল থেকে ১টি এলজি, ৬ রাউন্ড কার্তুজ, ৯ রাউন্ড খালি খোসা উদ্ধার করা হয়।

তাৎক্ষণিকভাবে আহত পুলিশ ও গুলিবিদ্ধ আসামিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আসামি সালামকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠান।
ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, ভোর রাতে সালামকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মৃতদেহ সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান ওসি।