দেশে প্রতি ১০ শিশুর নয়জনই সহিংস শাসনের শিকার|200975|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৮:২৭
দেশে প্রতি ১০ শিশুর নয়জনই সহিংস শাসনের শিকার
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে প্রতি ১০ শিশুর নয়জনই সহিংস শাসনের শিকার

দেশে শিশুর সঙ্গে সহিংস আচরণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে গেছে। এক থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুদের ৮৮ দশমিক ৮ শতাংশই সহিংস আচরণের শিকার হচ্ছে। এই আচরণ তারা নিজেদের প্রতিপালনকারী বা বাবা-মার কাছ থেকেই পাচ্ছে।

সোমবার রাজধানীর আগারগাঁও পরিসংখ্যান ভবনে ‘মাল্টিপল ইন্ডিকেটর ক্লাস্টার সার্ভে-২০১৯’ এর প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

দেশের ৬৪টি জেলার ৬১ হাজার ২৪১টি পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ও ইউনিসেফ যৌথভাবে জরিপটি পরিচালনা করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে শিশুদের প্রতি সহিংস শাসন বেড়েছে আশঙ্কাজনকভাবে। পনেরো বছরের নিচে প্রতি ১০ জনে নয়জন শিশুই তাদের অভিভাবক বা সেবা প্রদানকারীদের মাধ্যমে কোনো না কোনোভাবে সহিংস শাসনের শিকার।

এতে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশে শিশু অপুষ্টির হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে। ৩৬ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের মধ্যে শৈশবকালীন শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ তুলনামূলক কম। এ সংখ্যা গড়ে ১৮ দশমিক ৯ শতাংশ। ২০১২-১৩ সালে যা ছিল ১৩ দশমিক ৪ শতাংশ। এ সময়ে স্কুলে উপস্থিতির হার কিছুটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৫ দশমিক ৯ শতাংশ। যদিও এখনো ১৩ শতাংশ কিশোর-কিশোরী নিম্ন মাধ্যমিক শিক্ষার বাইরে রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাঁচ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে ছয় দশমিক আট শতাংশ শিশু শ্রমের সঙ্গে জড়িত। শিক্ষা শেষ না করে ঝড়ে পড়ার হারে প্রতি পাঁচজনের একজনই ছেলে। একই সঙ্গে গ্রামে বাল্য বিয়ে এখনো ব্যাপকভাবে গ্রহণযোগ্য।

প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে, ৯৮ দশমিক পাঁচ শতাংশ শিশু একবার হলেও মায়ের দুধ পান করেছে। জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে বুকের দুধ খাওয়ানো হয় এমন শিশুর সংখ্যা ৪৬ দশমিক ছয় শতাংশ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী বলেন, এবারের সার্ভে থেকে পাওয়া নতুন উপাত্তসমূহ মধ্যম আয়ের একটি দেশ হিসেবে বাংলাদেশের শিশুদের উন্নতির জন্য সহায়ক হবে। শিশুদের উন্নত বিকাশে সার্ভে নানা অবদান রাখবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিবিএসর অতিরিক্ত সচিব শহিদুল ইসলাম ও ইউনিসেফের অফিসার ইনচার্জ অ্যালেন বালাডিন ডমসন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম।