নড়াইলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে হত্যা|201080|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
নড়াইলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে হত্যা
নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে হত্যা

নড়াইলের লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান বদর খন্দকারকে (৪০) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ওই ইউনিয়নের টি চরকালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে লোহাগড়া-নড়াইল সড়কে তার ওপর হামলা হয়। পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক নির্বাহী সদস্য বদর খন্দকারের মৃত্যু হয়।

গ্রামে আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে এই আওয়ামী লীগ নেতার ওপর হামলা হতে পারে বলে ধারণা পরিবারের সদস্যদের। বদর খন্দকার লোহাগড়া ইউনিয়নের চরবগজুড়ি গ্রামের ময়ের আলীর ছেলে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বদর খন্দকার মোটরসাইকেলে করে তার ইটভাটা থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে টি চরকালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ওত পেতে থাকা চারজন তার মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে থাকে। এ সময় বদর খন্দকারের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা দুটি মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং সেখান থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সুমনা খানম বলেন, ‘ধারালো অস্ত্রের কোপে বদর খন্দকারের বাঁ হাতের তিনটি আঙুল বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ ছাড়া তার ডান হাতের কব্জি ও দুই পায়েই হাঁটুর নিচ থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন ছিল। তাকে অচেতন অবস্থায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হয়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় দ্রুত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।’

লোহাগড়া থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন বলেন, ‘ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো দা, মোবাইল ফোন, একটি খালি কালো ব্যাগ ও দুটি স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি অজ্ঞান থাকায় তার সঙ্গে কথা বলতে পারিনি। গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বে এ হামলা হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।’