নিজ দলেই স্যান্ডার্স বিরোধিতা|201400|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
নিজ দলেই স্যান্ডার্স বিরোধিতা
সাউথ ক্যারোলাইনায় নির্বাচনী বিতর্ক
প্রতিদিন ডেস্ক

নিজ দলেই স্যান্ডার্স বিরোধিতা

যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদা অঙ্গরাজ্যে নির্বাচনী বিতর্কে বিপুল জয় পান ডেমোক্র্যাটের মনোনয়নপ্রত্যাশী বার্নি স্যান্ডার্স। কিন্তু সাউথ ক্যারোলাইনায় গত মঙ্গলবার তাকে তুলোধুনা করেছেন নিজ দলের অন্যান্য মনোনয়নপ্রত্যাশী। একজোট হয়ে তারা অভিযোগ করেন, আগামী নির্বাচনে স্যান্ডার্স প্রার্থী হলে তা ডেমোক্রেটিক পার্টির জন্য বিপর্যয় ডেকে আনবে। হোয়াইট হাউজ তো দূরের কথা ডেমোক্র্যাটরা কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের নিয়ন্ত্রণও হারাতে পারে।

রয়টার্স বলছে, নিউ ইয়র্কের সাবেক মেয়র ধনকুবের মাইকেল ব্লুমবার্গ, ইন্ডিয়ানারা সাউথ বেন্ডের পিট বুটিগিগ, ম্যাসাচুসেটস সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন ও মিনোসেটার সিনেটর অ্যামি ক্লবুচারÑ প্রত্যেক মনোনয়প্রত্যাশী এদিন ধারাবাহিকভাবে অন্য মনোনয়প্রত্যাশীদের কথার মাঝখানে বিঘœ ঘটান; চিৎকার করে প্রতিবাদ জানান এবং কেউই তাদের জন্য নির্ধারিত সময়সীমা মানেননি।

বেশিরভাগ মনোনয়নপ্রত্যাশী বলেন, ভারমন্টের সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্সকে প্রার্থী করা হলে, নভেম্বরের নির্বাচনে তিনি রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে ধরাশায়ী হবেন। ব্লুমবার্গ বলেন, ‘বার্নি ট্রাম্পের কাছে হারবেন। প্রতিনিধি পরিষদ, সিনেট এমনকি অনেক রাজ্যও রিপাবলিকানের হাতে চলে যাবে।’ আক্রমণের মুখেও স্যান্ডার্স অবিচল ছিলেন। তিনি তার প্রতিশ্রুতিগুলো পুনর্ব্যক্ত করেন। স্বাস্থ্যসেবাকে মানবাধিকার হিসেবে অ্যাখ্যা দেওয়ার পাশাপাশি অর্থনৈতিক ও সামাজিক ন্যায়বিচার ইস্যুগুলোকে উত্থাপন করেন।

ফেব্রুয়ারির তিনটি অঙ্গরাজ্যে ককাস ও প্রাইমারির পর ৭৮ বছর বয়সী স্যান্ডার্সই এখন দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে এগিয়ে আছেন। আগামী শনিবার সাউথ ক্যারোলাইনা প্রাইমারি ও মার্চের প্রথম মঙ্গলবার ১৪টি অঙ্গরাজ্যে একযোগে লড়াইয়ের আগে তার জয়রথ ঠেকাতে এ নির্বাচনী বিতর্কই ছিল অন্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের জন্য শেষ সুযোগ।

এদিন বিতর্কে ব্লুমবার্গকে নেভাডার তুলনায় অনেক গোছানো ও আক্রমণাত্মক মনে হয়েছে। স্যান্ডার্সকে আক্রমণে এদিন তিনি ভারমন্টের সিনেটরের প্রচারে ‘রুশ সহযোগিতা চেষ্টার’ বিষয়ও তুলে ধরেন, ‘ভøাদিমির পুতিন মনে করেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পেরই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়া উচিত। এ কারণেই রাশিয়া স্যান্ডার্সকে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী করতে চায়, যেন তিনি ট্রাম্পের কাছে হেরে যান।’ ব্লুমবার্গের এ ভাষ্যের বিরোধিতা করে স্যান্ডার্স বলেন, ‘মিস্টার পুতিন। যদি আমি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হই, বিশ্বাস করুন, আপনি আর কোনো নির্বাচনেই হস্তক্ষেপ করতে পারবেন না।’