তাপসীর ‘থাপ্পড়’|201450|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০
তাপসীর ‘থাপ্পড়’
ইফতেখার শুভ

তাপসীর ‘থাপ্পড়’

তাপসী পান্নু তার প্রতিভার দ্যুতি ছড়িয়েই চলেছেন। ক্যারিয়ারে দারুণ সময় কাটাচ্ছেন তিনি। একের পর এক বেরোচ্ছে সিনেমার খবর। ২০১৯ সালে তাপসী অভিনীত চার সিনেমাই (মিশন মঙ্গল, বাদলা, গেম ওভার ও ষাঁন্ড কি আঁখ) ব্যবসাসফল হয়েছে। পাশাপাশি সমালোচকের প্রশংসাও জুটেছে। বলিউডে সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এবার পারিবারিক সহিংসতা ও সম্পর্কের ভাঙাগড়ার নাটকীয়তা নিয়ে তৈরি ‘থাপ্পড়’-এ হাজির হবেন তাপসী।

আগামীকাল মুক্তি পাচ্ছে এই অভিনেত্রীর সিনেমা ‘থাপ্পড়’। বলিউডে ‘পিংক’ সিনেমা দিয়ে পায়ের মাটি শক্ত করেন তাপসী। মূলক, বদলা, নাম শাবানার মতো সামাজিক সচেতনতামূলক সিনেমায় তাকে দর্শক দারুণ পছন্দ করেছে। এবার আসছে একই ধাঁচের সিনেমা অনুভব সিনহার পরিচালনায় ‘থাপ্পড়’। এর প্রথম পোস্টারে দেখা গেছে, তাপসীর মুখে চোট ও যন্ত্রণার ছাপ। মনে হয় যেন তাকে কেউ থাপ্পড় মেরেছে। অনুভব সিনহা সব সময়ই ভালো মানের সিনেমা উপহার দেন। ভক্তরা এই সিনেমা নিয়েও তেমনটি আশা করছেন। অনুভবের পরিচালনায় দ্বিতীয়বার দেখা যাবে তাপসীকে। এতে আরও অভিনয় করেছেন রতœা পাঠক, মানব কাউল ও দিয়া মির্জা। এই সিনেমায় তুলে ধরা হয়েছে গার্হস্থ্য হিংসার নানা দিক। সিনেমাটি দর্শক কতখানি গ্রহণ করবে, সেটা তো মুক্তির পরই বোঝা যাবে। তবে এরই মধ্যে সিনেমাটির জন্য সুখবরও এসেছে। এ সিনেমার বিষয়বস্তু এবং এর মাধ্যমে সমাজের কাছে যে বার্তা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে, তাকে সাধুবাদ জানাতেই মধ্যপ্রদেশের রাজ্য সরকার তাদের অন্তর্ভুক্ত প্রতিটি প্রেক্ষাগ্রহকে নির্দেশ দিয়েছে, টিকিটের ওপর কোনো আয়কর না ধরতে। এখন সিনেমার টিকিটের ওপর ১৮ শতাংশ আয়কর দিতে হয়। তার মধ্যে ৯ শতাংশ থাকে রাজ্যের ভাগ।

‘থাপ্পড়’-এ তাপসীকে দেখা যাবে উচ্চমধ্যবিত্ত পরিবারের উচ্চশিক্ষিত নারীর ভূমিকায়। আপাতদৃষ্টিতে এক সুখী বিবাহিত নারীর জীবন কীভাবে একটি থাপ্পড়ে বদলে যাবে, তা দেখা যাবে সিনেমায়। তাপসীকে বাধ্য করা হয় স্বামী গায়ে হাত তোলার পরও তার সঙ্গে সংসার টিকিয়ে রাখতে।

এত দিন ভালো অভিনেত্রী হিসেবে পরিচিতি পেলেও এবারই প্রথম ফিল্মফেয়ারের সেরা সমালোচকপ্রিয় অভিনেত্রীর পুরস্কার জুটেছে তাপসীর ভাগ্যে। তিনি ভূমি পেডনেকারের সঙ্গে যৌথভাবে এই পুরস্কার পেয়েছেন ‘ষাঁন্ড কি আঁখ’ সিনেমার জন্য। এতে ভারতের দুই জীবন্ত কিংবদন্তি শ্যুটারের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তারা। এ বছর ফিল্মফেয়ার পুরস্কার নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে। এ নিয়ে তাপসী অবশ্য বলেছেন, ‘এবারই প্রথম ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পেলাম। অনেকে এই পুরস্কার নিয়ে অনেক কথা বলছেন। কিন্তু আমি বলতে চাই, বলিউডে আজকের অবস্থানে আসার জন্য আমার কোনো গডফাদার ছিল না। পরিশ্রম আর মেধা দিয়ে এখানে এসেছি। এই পুরস্কারও আমার পরিশ্রমের ফসল। এটা অর্জনের জন্য ভালো অভিনয়ের বাইরে আর কোনো কিছু করতে হয়নি আমাকে।’

তাপসী পান্নু যেন উড়ছেন। ভারতের নারী ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মিতালি রাজকে নিয়ে তৈরি ‘শাবাশ মিঠু’ সিনেমায় অভিনয় করছেন তিনি। এ ছাড়া হাতে রয়েছে নারী দৌড়বিদ রেশমি সিংয়ের বায়োপিক ‘রেশমি রকেট’। পরপর এত বায়োপিকে কাজ করা নিয়ে তাপসী বলেন, ‘আমি চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করি। তথাকথিত বলিউড সিনেমায় শোপিসের মতো হয়ে থাকা নায়িকা হতে চাই না। আমাদের সৌভাগ্য যে, বলিউডের সুবর্ণ যুগে আমরা কাজ করছি, যেখানে নারীদের নিয়ে অনেক ধরনের চিত্রনাট্য লেখা হচ্ছে। আমি হয়তো পরিচালকদের বোঝাতে পেরেছি যে, জটিল চরিত্রও আমাকে দিয়ে ফোটানো সম্ভব। তাই আমাকে তারা একের পর এক জটিল সব চরিত্র দিচ্ছেন। বায়োপিকে অভিনয় সত্যিই জটিল কাজ। বিশেষ করে পরপর আমি কয়েকজন নারী খেলোয়াড়ের বায়োপিক করছি। এজন্য আমাকে দ্বিগুণ পরিশ্রম করতে হচ্ছে।’