মেসি-গার্দিওলা-রোনালদোর সহায়তা|206722|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ মার্চ, ২০২০ ০০:০০
মেসি-গার্দিওলা-রোনালদোর সহায়তা
ক্রীড়া ডেস্ক

মেসি-গার্দিওলা-রোনালদোর সহায়তা

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে একে একে এগিয়ে আসছেন বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের তারকারা। বাকি ছিল শুধু বর্তমান বিশ্বের সেরা দুই নাম ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসির এগিয়ে আসা। রোনালদো অবশ্য আগেই নিজের হোটেলকে চিকিৎসা কাজে ব্যবহারের জন্য দিয়েছেন। কিন্তু মেসির পক্ষ থেকে ঘোষণা আসছিল না কোনো। অবশেষে এলো, বার্সেলোনা ও নিজ দেশের একটি হাসপাতালে সাহায্যের জন্য এক মিলিয়ন ইউরো (১০ লাখ) অনুদান দিয়েছেন আর্জেন্টাইন তারকা। সমপরিমাণ অর্থ দিয়ে বার্সেলোনার একটি মেডিকেল কলেজকে সাহায্য করেছেন সাবেক স্প্যানিশ তারকা ও বর্তমান ম্যানচেস্টার সিটি কোচ পেপ গার্দিওলা। দুজনের অর্থ হাসপাতালগুলো এবং চিকিৎসকদের জন্য চিকিৎসা সরঞ্জাম কিনতে ব্যয় হবে। এছাড়া রোনালদো ও তার এজেন্ট হোর্হে মেন্দেস স্বদেশের লিসবন ও পোর্তো দুই শহরের দুটি হাসপাতালকে চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়ে সাহায্য করেছেন।

আর্জেন্টিনা লিজেন্ড মেসির অনুদান দুই ভাগে ভাগ করা হবে বলে জানা গেছে। বার্সেলোনার একটি হাসপাতাল পাবে অর্ধেক আর আর্জেন্টিনার একটি মেডিকেল সেন্টার পাবে অর্ধেক অর্থ। স্প্যানিশ দৈনিক মার্কা এ খবর নিশ্চিত করেছে। অনুদান পেয়ে বার্সেলোনার ওই ক্লিনিক তাদের টুইটার অ্যাকাউন্টে ছয়বারের বর্ষসেরা তারকার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে, ‘করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য মেসি আমাদের ক্লিনিকে অর্থ সাহায্য দিয়েছেন। ধন্যবাদ মেসি, তোমার সমর্থন ও সাহায্য আমাদের জন্য বিরাট ব্যাপার।’

বার্সেলোনার অ্যাঞ্জেল সোলার দানিয়েল ফাউন্ডেশন কর্র্তৃক শহরের মেডিকেল কলেজের জন্য অনুদান সংগ্রহের ক্যাম্পেইন হচ্ছে। তাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে এক মিলিয়ন ইউরো দান করেছেন গার্দিওলা। সাবেক বার্সেলোনা কোচ জাতীয়তায় কাতালান। তাই কাতালান অঞ্চলের মেডিকেল কলেজের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে থাকতে পারেননি। বার্সেলোনার মেডিকেল কলেজটি স্প্যানিশ দৈনিক মুন্দো দেপোর্তিভোকে জানায়, ‘অ্যাঞ্জেল সোলার দানিয়েল ফাউন্ডেশনের আবেদনে সাড়া দিয়ে পেপ গার্দিওলা আমাদের হাসপাতালের জন্য ১ মিলিয়ন ইউরো দান করেছেন। এই ক্যাম্পেইনটা হাসপাতালের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছে। এটা করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য আমাদের চিকিৎসা সরঞ্জাম কিনতে অনেক সাহায্য করবে।’ গার্দিওলার অনুদানের আগে এই ফাউন্ডেশন ৩৩ হাজার ইউরো সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়েছিল।

করোনাভাইরাস ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ার আগেই পর্তুগালে গিয়ে আটকে পড়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এতে লাভ হয়েছে তার। নিজ দেশেই প্রথমে কোয়ারেন্টাইন সেরে পরিবারের সঙ্গে এখন সময় কাটাতে পারছেন তিনি। এই ফাঁকে দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে লড়াইয়ে এগিয়ে এসেছেন রোনালদো। তার বন্ধু ও এজেন্ট হোর্হে মেন্ডেসের সঙ্গে মিলিত হয়ে চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়েছেন দেশের দুই হাসপাতালকে। লিসবনের শান্তা মারিয়া হাসপাতালের দুটি করোনাভাইরাস ওয়ার্ডের জন্য সব সরঞ্জাম দিয়েছেন তারা। আর দেশের দ্বিতীয় বড় শহর পোর্তোর সান্তো অ্যান্তোনিও হাসপাতালের একটি ওয়ার্ডের সব সরঞ্জাম কিনে দিচ্ছেন তারা। সরঞ্জামের মধ্যে মোট ২৫টি বেড, ভেন্টিলেটরস, হার্ট মনিটরস, ইনফিউশন পাম্প, সিরিঞ্জ থাকবে। দুই হাসপাতালই রোনালদো ও মেন্ডেসকে এই উদ্যোগের জন্য ধন্যবাদ দিয়েছে।