তির্যক নাট্যগোষ্ঠীর ৪৬ বছর পূর্তি|230150|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৭ জুলাই, ২০২০ ০২:৩৮
তির্যক নাট্যগোষ্ঠীর ৪৬ বছর পূর্তি
অনলাইন ডেস্ক

তির্যক নাট্যগোষ্ঠীর ৪৬ বছর পূর্তি

‘শিল্পের জন্যেই শিল্প’ এ তত্ত্বে তিযর্ক বিশ্বাসী নয়। তিযর্ক বিশ্বাস করে ‘জনগণের জন্যেই শিল্প’। তাই তিযর্ক কমিটেড হয়েই শিল্প সাধনা করে। চুয়াত্তরের জন্ম লগ্নে তিযর্কের শপথ ছিল নাটক চাই, নিয়মিত পাদ প্রদীপের সামনে এসে দাঁড়াতে চাই, অবক্ষয় হতাশা থেকে মুক্তি চাই, নাট্যকার এবং নাট্যকর্মী সৃষ্টি করতে চাই, প্রগতিশীল নাটক মঞ্চস্থ করতে চাই, নাটকের দর্শক সৃষ্টি করতে চাই। 

এখনও তিযর্ক এই প্রতিজ্ঞা পালনে যত্নবান। নানা বিধি নিষেধ সংকট ও অভাব এবং প্রচণ্ড নৈরাশ্য বারবার চলার পথে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু তারা থামেনি। করোনাকালে জনজীবনে স্থবিরতার মধ্য তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপস্থিত।

এমন পরিস্থিতিতে ১৬ মে রাত নয়টায় লকডাউনের মধ্যে দেশ বিদেশে ছড়িয়ে থাকা সদস্যদের অনলাইনের মাধ্যমে যুক্ত করে উদযাপন করে। দেড় ঘণ্টাব্যাপী অনুষ্ঠানটি তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর ফেইসবুক গ্রুপে লাইভ সম্প্রচারিত হয়। কারিগরী সহায়তা প্রদান করে Mango People। 

সাঈদ হিরোর পরিকল্পনায় শাহরিয়ার হান্নানের সঞ্চালনায় প্রথমে তিযর্ক  নাট্যগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য রবিউল আলম যুক্ত হয়ে সংক্ষিপ্তভাবে তিযর্কের শুরুর সময়কার কথা, তার প্রত্যাশা তুলে ধরেন ও দর্শককে শুভেচ্ছা জানান। উগান্ডা হতে আসাদুজ্জামান ‘সত্তান্ধ’ নাটকের দুটি গান গেয়ে শোনান।

এরপর একে একে শুভেচ্ছা জানান সাধারণ সম্পাদক গোলাম মর্তুজা রাজ্জাক, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুল্লাহ, তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর প্রথম নাটক ‘জননীর মৃত্যু চাই'র প্রধান অভিনেতা ইশতিয়াক বাবু, সিনিয়র সদস্য ও চট্টগ্রাম গ্রুপ থিয়েটার ফোরাম‘র সভাপতি খালেদ হেলাল, আমেরিকা হতে সাইফুল আলম মুকুল। এ্যাজ ইউ লাইক ইট ও স্বপ্নবৎ নাটকের গান গেয়ে শোনান নাওমান-ই-আলম খান (গুড্ডু)। 

করোনাকালে অস্বচ্ছল মানুষদের সহযোগিতা করতে গিয়ে তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর নারী অভিনেত্রী নাসরিন আক্তার হীরা যে সামাজিক হেনস্তার স্বিকার হয়েছেন তা তুলে ধরেন। তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর সবর্শেষ প্রযোজনা ‘রোমিও জুলিয়েট’ থেকে পাঠ করে শোনান সবর্শেষ প্রজন্মের প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান।

অনুষ্ঠানের শেষের দিকে বায়েজিদ হোসাইন ও অনুষ্ঠানের পরিকল্পক সাঈদ হিরো শুভেচ্ছা জানান ও আয়োজনের নেপথ্য কথা তুলে ধরেন।

সাঈদ হিরো বলেন, করোনার কারণে জনজীবনের সাথে থিয়েটার চর্চায় যে বিরতি ও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে তার বিকল্প উপায় খুঁজতে গিয়ে ও সকলকে যুক্ত রাখার প্রয়াসে অনলাইনে তিযর্ক নাট্যগোষ্ঠীর ৪৬ বছর পূর্তি উদযাপনের প্রচেষ্টা নেয়া হয়। এই পরিস্থিতি ও প্রযুক্তির সাথে যেহেতু আগে কেউ পরিচিত ছিলো না তাই এখানে এখন সবাই নবীন। সকলের মিলিত প্রচেষ্টায় এই করোনাকালে থিয়েটার তার আপন শক্তিতে পথ খুঁজে নেবে। 

সবশেষে সঞ্চালক শাহরিয়ার হান্নান সকলকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, তিযর্কের প্রত্যাশার পূর্ণতা এখনো অনেক দূরে। পথ চলায় তাই আজো বিরাম নেই। সহৃদয় দর্শকের শুভাশিষ নিয়ে তিযর্ক আজো নাটকের মুকুরে স্বরূপ দর্শনে নিষ্ঠাবান।