রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই|237843|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১১ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০
রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই
নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা

রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ফেয়ার হাসপাতালে রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাইয়ের অভিযোগে দুই চিকিৎসকের নামে মামলা হয়েছে। অস্ত্রোপচারের প্রায় তিন মাস পর গত রবিবার রোগীর ভাই বাদী হয়ে আদালতে মামলাটি করেন। পরে আদালত মামলা আমলে নিয়ে পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয়।

আসামিরা হলেন ফেয়ার হাসপাতালের ডা. মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন ও ডা. মো. রাশেদ-উজ-জামান রাজিব।

মামলার এজাহারে বলা হয়, গত ১২ এপ্রিল রাতে বরুড়ার রাজাপুর গ্রামের কাশেম শফিউল্লার মেয়ে (স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষ) পেটে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করলে রাতেই ফেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরের দিন ডা. মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইনের তত্ত্বাবধানে ডা. মো. রাশেদ-উজ-জামান রাজিব তার অস্ত্রোপচার করেন। হাসপাতাল ছাড়ার পরও পেট ব্যথা থেকে যায়। তিনি ফের হাসপাতালে এলে ব্যথা কমাতে ডা. ইকবাল উচ্চ ক্ষমতার এন্টিবায়োটিক ওষুধ লিখে দেন। এভাবে তিন মাস ওষুধ খেয়েও ব্যথা কমেনি। একপর্যায়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে রোগীর পেটে অস্বাভাবিক বস্তু পাওয়া যায়। পরে গত ১৮ জুলাই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডা. আজিজ উল্লাহ ও ডা. মাহমুদ অস্ত্রোপচার করে পেট থেকে গজ বের করেন।

এ বিষয়ে ডা. মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন বলেন, ‘রোগীর অস্ত্রোপচার কিংবা ছাড়পত্রের দিন আমি হাসপাতালে ছিলাম না। অস্ত্রোপচার করেছেন ডা. রাজিব। তবে পরে ব্যবস্থাপত্রে ওষুধ লিখেছি আমি।’ পিবিআই কুমিল্লার পরিদর্শক তৌহিদ হোসেন বলেন, ‘আদালত মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। তবে এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।’