স্কিল ট্রেনিংয়ে ১৬ ক্রিকেটার|246877|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০
স্কিল ট্রেনিংয়ে ১৬ ক্রিকেটার
আইসোলেশনে ১১ জন
ক্রীড়া প্রতিবেদক

স্কিল ট্রেনিংয়ে ১৬ ক্রিকেটার

জাতীয় দলের ২৭ ক্রিকেটারের ১১ জনই এখন আইসোলেশনে! গতকাল শুরু ‘বায়ো-বাবল’ ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন বাকি ১৬ জন। উঠেছেন রাজধানীর একটি পাঁচতারা হোটেলের বায়ো-সিকিউরড পরিবেশ তৈরি করা ফ্লোরে। এরমধ্য দিয়ে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটে ফেরার আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়াটা গতকাল পুরোপুরি শুরু হয়ে গেল। যদিও শ্রীলঙ্কা সফর এখনো নিশ্চিত নয়। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড তাদের সিদ্ধান্ত জানায়নি। 

যদিও ১১ ক্রিকেটারের আইসলোশনে যাওয়ার খবর অনেকটা ধাক্কা দেওয়ার মতো। তারপরও এর মধ্যে ভিন্ন স্বস্তি আছে। যে ১১ জনের কথা বলা হচ্ছে তারা হয়তো আগামীকালই হোটেল ও মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের ক্যাম্পে যোগ দিতে পারবেন।

ঘটনা দুজন ক্রিকেটারকে নিয়ে। ঢাকার বাইরে যে ক্রিকেটাররা ছিলেন তারা এসেছেন ১৯ তারিখ। সেদিন তাদের করোনা টেস্ট হয়েছে। সেদিন জাতীয় দল সংশ্লিষ্ট সবার কভিড-১৯ টেস্টের ফল নেগেটিভ এসেছে। কিন্তু দুজনের মধ্যে করোনার আলামত দেখা গেছে। যেটাকে বিসিবি দেখছে ‘বর্ডারলাইন নেগেটিভ’ হিসেবে। একজনেরটা আরেকটু বেশির দিকে। তাই বাড়তি সতর্কতা হিসেবে এই ক্রিকেটারের সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদের সবাইকে ২২ সেপ্টেম্বর, অর্থাৎ কাল পর্যন্ত আইসোলেশনে যেতে হয়েছে। আজ তাদের আবার টেস্ট হবে। ফল মিলবে কাল। সব আবার নেগেটিভ হলে ২৭ জনের শ্রীলঙ্কাগামী দল পাবে পূর্ণতা। একসঙ্গে শুরু হবে অনুশীলন।

আইসোলেশনে থাকা ১১ জন ক্রিকেটার হলেন- মোহাম্মদ মিঠুন,  শফিউল ইসলাম, নাঈম হাসান, আবু জায়েদ রাহী, ইবাদত হোসেন, খালেদ আহমেদ, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোসাদ্দেক হোসেন, হাসান মাহমুদ, সাইফ উদ্দিন ও সাইফ হাসান। প্রসঙ্গত, সাইফ হাসান সপ্তাহ দেড়েক আগে টেস্টে ‘নেগেটিভ’ হয়েছিলেন। তখন থেকে তিনি  আইসোলেশনে। দ্বিতীয় দফা ‘পজিটিভ’ হওয়ার পর শেষ টেস্টে ‘নেগেটিভ’ হয়েছিলেন। কিন্তু সতর্কতা হিসেবে আরও একটি টেস্টের পর তাকে হোটেল ও ক্যাম্পে নেওয়ার পরিকল্পনা।

গতকাল যে ১৬ জন ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন তারা হলেন মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক, রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, ইমরুল কায়েস, মোস্তাফিজুর রহমান, লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, আল আমিন হোসেন, তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ, নুরুল হাসান সোহান, শাদমান ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ। 

গতকাল দুপুরে মিরপুরের সেন্টার উইকেটে নেট করে দিয়ে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর তত্ত্বাবধানে স্কিল ট্রেনিং শুরু হয়েছে। ক্রিকেটাররা বায়ো-বাবলে ঢুকে পড়ে অনেকটা স্বস্তিতে। যদিও এর মাধ্যমে পরিবার এবং অন্যদের সঙ্গে শারীরিকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলেন তারা এবং শ্রীলঙ্কা সফর হলে সেই বিচ্ছিন্নতা প্রায় দুই মাসের হবে। কঠিন একটা পরিস্থিতি। কিন্তু করোনার দুনিয়া জয় করে এভাবে নতুন লড়াইয়ে নেমে ক্রিকেট মাঠ জয় করার সাহসটাই তাদের ভিন্ন রকমের প্রেরণা জোগাচ্ছে বলে জানা যায়।