১০ দেশেই ৮ লাখের বেশি মৃত্যু|253877|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০
১০ দেশেই ৮ লাখের বেশি মৃত্যু
২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ৪ লাখ ৩৮ হাজার
রূপান্তর ডেস্ক

১০ দেশেই ৮ লাখের বেশি মৃত্যু

বিশ্বে ফের বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। গত বুধবার ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪ লাখ ৩৮ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে বিশ্বে। বুধবারের নতুন এই রোগী ও বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টা পর্যন্ত আরও ১ লাখ ৩৩ হাজার রোগীসহ বিশে^ মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ১৫ লাখ ৯৭ হাজার ৩৪৫। এই সময় পর্যন্ত ভাইরাসটিতে বিশ্বে মারা গেছে ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৯৫৩ জন। উল্লিখিত সময়ের মধ্যে অবশ্য আক্রান্তদের মধ্য থেকে ৩ কোটি ৯ লাখ ৬৭ হাজার ৭২২ জন আরোগ্য লাভ করেছে।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর তথ্য রাখা আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ভাইরাসটি ২১৫ দেশ ও অঞ্চলে ছড়ালেও গতকাল পর্যন্ত যত মৃত্যু হয়েছে তার ৭৫ শতাংশের বেশি মারা গেছে মাত্র ১০ দেশে। ওই ১০ দেশে মারা গেছে  ৮ লাখ ১ হাজারের বেশি মানুষ।  এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে  সর্বোচ্চ ২ লাখ ২৭ হাজার ৪২৮ জন। ব্রাজিলে ১ লাখ ৫৫ হাজার ৪৫৯, ভারতে ১ লাখ ১৬ হাজার ৬৮১, মেক্সিকোতে ৮৭ হাজার ৪১৫, যুক্তরাজ্যে ৪৪ হাজার ১৫৮, ইতালিতে  ৩৬ হাজার ৮৩২, স্পেনে ৩৪ হাজার ৩৬৬, ফ্রান্সে ৩৪ হাজার ৪৮ জন, পেরুতে ৩৩ হাজার ৯৩৭ ও  ইরানে ৩১ হাজার জনের মৃত্যু হয়েছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। উৎপত্তিস্থল চীনে ৮৩ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হলেও সেখানে ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব কমে গেছে। তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশে এই ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে। গত ১১ মার্চ দুনিয়াজুড়ে মহামারী ঘোষণা করে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

আমেরিকার দুই মহাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সংক্রমণ এখনো দ্রুত বাড়ছে। অন্যদিকে ইউরোপকে লন্ডভন্ড করে দিয়ে করোনা কিছুটা স্তিমিত হলেও সেখানে আবারও নতুন করে রোগটির প্রাদুর্ভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ লাখ ৮৪ হাজার ৮১৯। আক্রান্তের হিসাবে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ লাখ ৫ হাজার ১৫৮। ব্রাজিলে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ লাখ ৬৪৯। রাশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লাখ ৬৩ হাজার ৩০৬ ও স্পেনে ১০ লাখ ৪৬ হাজার ৬৪১। আর্জেন্টিনায় শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যাও ১০ লাখ ছাড়িয়ে এখন ১০ লাখ ৩৭ হাজার। আর উৎপত্তিস্থল চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজার ৭২৯। এর মধ্যে ৪ হাজার ৬৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।