এক ঝলকে|259682|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০
এক ঝলকে

এক ঝলকে

ভক্তের ইচ্ছা পূরণ করলেন মামোয়া

কিছুদিন আগে ভাইরাল হয় ‘অ্যাকোয়াম্যান’ সিনেমার তারকা জেসন মামোয়ার ৭ বছর বয়সী ভক্ত ড্যানির একটি ভিডিও। সে মামোয়ার সব থেকে বড় ফ্যান হিসেবে দাবি করে। তবে ব্রেন ক্যানসারে আক্রান্ত ড্যানি প্রিয় তারকাকে কাছ থেকে দেখার ইচ্ছা পোষণ করে। অবশেষে গত ১৯ নভেম্বর সেই খুদে ভক্তের শেষ ইচ্ছা পূরণ করলেন মামোয়া।

ভিডিও কলে কথা বলেছেন ছোট ড্যানির সঙ্গে। মামোয়াকে ভিডিওতে পেয়ে খুশিতে আত্মহারা হয়ে যায় ড্যানি। মামোয়া নিজেও ড্যানিকে বলেন, আমিও তোমার সঙ্গে কথা বলে দারুণ খুশি। আলাপের এক পর্যায়ে মামোয়া ড্যানিকে জিজ্ঞেস করেন, সে কখনো ডলফিনের ওপরে উঠেছে কি-না। জবাবে ড্যানি জানায়, না। মামোয়া তাকে কথা দেন, তিনি তার এই ইচ্ছাটি পূরণ করবেন। শুধু তাই নয়, করোনাকাল শেষে ড্যানির সঙ্গে দেখা করার ইচ্ছাও পোষণ করেন মামোয়া। ‘অ্যাকোয়াম্যান’ তারকা ধন্যবাদ জানান ইন্সটাগ্রামে তার ফ্যান ফলোয়ারদেরও। যাদের কারণে ড্যানি তার কাছে পৌঁছাতে পেরেছে।

বিয়ে নিয়ে চুপ প্রভুদেবা

নিজের ফিজিওথেরাপিস্টকে বিয়ে করলেন প্রভুদেবা। যদিও বিষয়টি এখনো রয়েছে গুঞ্জন পর্যায়ে। কারণ, বিয়ের দুই মাস হলেও বিষয়টি নিয়ে একেবারেই মুখ খুলছেন না বলিউডের নাচের এই গুরু। প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, দীর্ঘদিন ধরে পিঠের ব্যথায় ভুগছিলেন প্রভুদেবা। চিকিৎসকদের পরামর্শে বেশ কয়েক মাস আগে এক ফিজিওথেরাপিস্টের কাছে যেতে শুরু করেন। অল্প দিনের মধ্যেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। তাই করোনাকে তোয়াক্কা না করেই সেপ্টেম্বরে বিয়ে সেরে ফেলেন তারা। মুম্বাইয়ে প্রভুদেবার বাড়ি ‘গ্রিন একর্স’-এ বিয়ের ঘরোয়া আনুষ্ঠানিকতা হয়। যেখানে ইন্ডাস্ট্রির কেউ আমন্ত্রিত ছিলেন না। মুম্বাই শহরে বিয়ে হলেও নবদম্পতি এখন চেন্নাইয়ে। ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বরাবরই খবরের শিরোনামে থেকেছেন প্রভুদেবা। জনপ্রিয়তার শিখরে থাকাকালীন ১৯৯৫ সালে রামলতার সঙ্গে বিয়ে হয় তার। সেই সংসারে তিন সন্তান। ২০১০ সালে দক্ষিণী অভিনেত্রী নয়নতারার সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান প্রভুদেবা। এ কারণে ২০১১ সালে রামলতার সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়। পরে নয়নতারার সঙ্গেও সম্পর্ক ভেঙে যায় প্রভুর।

অকপট শ্রীলেখা

১৭ বছর আগের ২০ নভেম্বর পশ্চিমবাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র বিয়ে করেছিলেন সিনেমাটোগ্রাফার শিলাদিত্য মৌলিককে। তাদের বিচ্ছেদ হয়ে গেলেও দিনটিকে মনে রেখেছেন অভিনেত্রী। গতকাল সকালে প্রাক্তন স্বামী শিলাদিত্য মৌলিকের সঙ্গে বিয়ের দিনের ছবি শেয়ার করে শ্রীলেখা লেখেন, ‘আজ হতে পারত আমাদের ১৭তম বিবাহবার্ষিকী! হ্যান্ডসাম না আমার প্রাক্তন? তাই তো আর সেভাবে কাউকে মনে ধরল না।’ তারকারা যখন বিয়ে, বিচ্ছেদ নিয়ে ঠোঁট চেপে থাকেন, তখন এ রকম স্পর্শকাতর বিষয় নিয়েও প্রায়শই অকপট কথা বলতে দেখা যায় শ্রীলেখা মিত্রকে। প্রাক্তনকে ভুলে যাননি, এটাও জানাতে ভোলেননি শ্রীলেখা। বললেন, ‘মনে পড়ছে। মনে করছি। আজকের দিনেই তো ভালোবেসে সাতপাক ঘুরেছিলাম। সবকিছুর পরেও সে আমার মেয়ের বাবা। তাকে ভুলি বা অস্বীকার করি কী করে?’ তার দাবি, ‘দুজন ভালো মানুষ হলেও চিরকাল এক ছাদের নিচে না-ই থাকতে পারেন। বন্ধুত্ব রয়েই যায়। তাই শিলাদিত্য-শ্রীলেখার মেয়ে ‘হ্যাপি চাইল্ড’। আমরা একে অন্যের বাড়ি যাই। কথা হয়। শুধু ছাদটুকু শেয়ার করি না, এই যা।’