আজ থেকে আবার বায়ো বাবল|259708|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০
আজ থেকে আবার বায়ো বাবল

আজ থেকে আবার বায়ো বাবল

তামিম ইকবাল পাকিস্তানে পিএসএলে খেলে এসেছেন। তার করোনা টেস্ট হলো। গতকাল আসলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে (বিসিবি) কভিড-১৯ টেস্টের দিন ছিল। ২৪ নভেম্বর থেকে শুরু পাঁচ দলের বঙ্গবন্ধু কাপ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। তার আগে প্রত্যেক দলের টেস্ট হয়ে গেল।

বায়ো বাবল পরিবেশে হবে টুর্নামেন্ট। ফল মিলে যাওয়ার কথা গেল রাতেই। ‘নেগেটিভ’ ফল পাওয়ার শর্তে সব দলের খেলোয়াড়রা উঠবেন রাজধানীর একটি হোটেলের জৈব সুরক্ষা পরিবেশে। শুধু ক্রিকেটার বা কোচিং স্টাফ নন, মাঠের মধ্যে বায়ো বাবলে যারা থাকবেন তাদের টেস্টও করাতে হয়েছে। কিউরেটরগামী থেকে ৩৮ জনের মতো গ্রাউন্ডসম্যানও আছেন ওই তালিকায়। ২৪ নভেম্বর মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে পাঁচ দলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু কাপ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট।

মুক্তি পেয়েই মাঠে মুমিনুল

জাতীয় দলের টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক করোনা টেস্টে ‘নেগেটিভ’ ফল পাওয়ার পর আর অপেক্ষা করলেন না। বৃহস্পতিবার ফল এসেছে। কভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়েছিলেন। গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বেশ সকালেই এসে উপস্থিত মুমিনুল। ইনডোরে অনুশীলন সেরে নিলেন। বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক ও জাতীয় নির্বাচক হাবিবুল বাশার অবশ্য এখন প্রায় সেরে উঠে হাসপাতাল ছাড়ার প্রহর গুনছেন।

গেল ১০ নভেম্বর কভিড-১৯ টেস্টে পজিটিভ হন মুমিনুল। দেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান শুক্রবার সকালে খুশি মনে মাঠে চলে এসে ইনডোরে ব্যাটিং ঝালিয়ে নিয়েছেন। আউটারের নেটে থ্রোয়ার বল করেছেন। মুমিনুল খেলেছেন। পৌনে এক ঘণ্টার মতো সেখানে সময় কাটে মুমিনুলের। করোনামুক্ত হয়ে যাওয়ায় ২৪ নভেম্বর থেকে শুরু বঙ্গবন্ধু কাপ টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে বাংংলাদেশের লম্বা ভার্সনের খেলোয়াড়ের খেলতে আর বাধা নেই। গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামে খেলবেন তিনি।

হাবিবুলের হাসপাতাল ছাড়ার প্রস্তুতি

গেল ৯ নভেম্বর উপসর্গ টের পান বাজেভাবে। পরের দিন করোনা টেস্ট করান বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক ও জাতীয় নির্বাচক হাবিবুল বাশার। রেজাল্ট ‘পজিটিভ’ আসে ১১ তারিখ। এরপর আরও সমস্যা অনুভব করছিলেন। গত ১৬ নভেম্বর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ফুসফুসে সমস্যা ধরা পড়ে। তবে এই কদিনে অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। এমনকি আজই হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়ি ফেরার আশা করছেন।

‘চিকিৎকরা বললেন আমার ফুসফুসে সংক্রমণ বাড়ছে। তাই হাসাপাতালে ভর্তি হতে হলো।’ হাবিবুল বাশার জানালেন, ‘এখন জ্বর নেই। তবে ফুসফুসের ওই সমস্যার কারণে জ্বর মোটে যাচ্ছিল না।’ সবাইকে আশ্বস্ত করে সদাহাস্যময় হাবিবুল বললেন, ‘আমি এখন বেশ ভালো আছি। শ্বাস-প্রশ্বাসে কোনো সমস্যা নেই। শনিবার (আজ) হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে যেতে পারি।’

বরিশালের ভাগ্য পাল্টাবেন শুক্কুর

ইরফান শুক্কুর গেল মাসের তিন দলের ওয়ানডে সিরিজের পর অবশ্যই আলোচিত তারকাদের মধ্যে একজন। উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। বাঁহাতি ব্যাটিংয়ে ভয়ডরহীন অনেকটা। নাজমুল একাদশের ব্যাটিংয়ের প্রধান ভরসা হয়ে উঠেছিলেন। সেই শুক্কুরকে নিয়ে যখন এত আলোচনা তখন ২৭ বছরের বাঁহাতি তাড়াহুড়ার মধ্যে নেই।

তিন দলের ওয়ানডের পর ২৪ তারিখ থেকে শুরু করতে হচ্ছে বঙ্গবন্ধু কাপ টি-টোয়েন্টি আসর। সেখানেও ধারাবাহিকতা চাই তার। আর চূড়ান্ত লক্ষ্য তো জাতীয় দল বটে, ‘সব ক্রিকেটারেরই লক্ষ্য থাকে জাতীয় দলে দীর্ঘদিন খেলা। এখন শুধু আমার পরিকল্পনা হচ্ছে সামনের টি-টোয়েন্টি কাপে মনোযোগ দেওয়া। ধাপে ধাপে আগানো। আমার হাতে আছে আমার পরিশ্রম আর পারফরম্যান্স।’ টি-টোয়েন্টি আসরে ফরচুন বরিশালের বড় ভরসার নাম এই শুক্কুর।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ১৩৬ ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা শুক্কুরের। এর ১২টা টি-টোয়েন্টি। দুটি ফিফটি আছে। গড় ৩১-এর মতো। স্ট্রাইক রেট প্রায় ১২৩। সীমিত ৫০ ওভারের টুর্নামেন্টে সাফল্যের প্রেরণা বঙ্গবন্ধু কাপে টেনে নেওয়ার প্রত্যয়ও চট্টগ্রামের ছেলে শুক্কুরের কণ্ঠে, ‘প্রেসিডেন্টস কাপের পারফরম্যান্স আমাকে স্বাভাবিকভাবেই অনুপ্রেরণা দেবে সামনের টুর্নামেন্টে খেলার। আমি চেষ্টা করব এই টুর্নামেন্টে ওই ফর্মটা ধরে রাখার। যতটুকু পারি দলে ১০০ ভাগ অবদান রাখার চেষ্টা করব।’ বলে রাখা ভালো প্রেসিডেন্টস কাপে ৫ ম্যাচে ২১৪ রান করে ইরফান ছিলেন আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের দ্বিতীয় জায়গাটিতে। তার চেয়ে ৫ রান বেশি নিয়ে ১ নম্বর হয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। তবে মুশফিকের গড় ৪৩.৮০ থাকলেও শুক্কুরের ছিল ৭১.৩৩। স্ট্রাইক রেট ৮৮.০৬। ২১টি চারের সঙ্গে ৫টি ছক্কা ছিল। টুর্নামেন্ট সর্বোচ্চ। ফাইনালে ৭৭ বলে ৭৫ রানের চমৎকার ইনিংস খেলেও শুক্কুরদের নাজমুল একাদশকে মাহমুদউল্লাহ একাদশের কাছে হেরে রানার্স আপ হতে হয়েছিল।