কারও পৌষ মাস কারও সর্বনাশ|259710|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০
কারও পৌষ মাস কারও সর্বনাশ
আইসিসির সিদ্ধান্তে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে নতুন মোড়
ক্রীড়া ডেস্ক

কারও পৌষ মাস কারও সর্বনাশ

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালিস্ট নির্ধারণের নতুন প্রস্তাব পাস করেছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি। আগামী বছরের জুনে ক্রিকেটের কুলীনতম আসরের শিরোপা নির্ধারণী লড়াই হবে লর্ডসে। ওই ফাইনালের প্রতিদ্বন্দ্বী কারা হবে তা পয়েন্ট সিস্টেমে নয়, দলগুলোর অর্জিত পয়েন্টের পারসেন্টেজের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হবে। ভারত কিংবদন্তি অনিল কুম্বলের নেতৃত্বাধীন ক্রিকেট কমিটির সদ্য শেষ হওয়া সভায় এ সিদ্ধান্ত অনুমোদন পেয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে গত প্রায় এক বছরে বেশ অনেক সিরিজ স্থগিত হয়েছে। এদিকে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সময়সীমা বাকি আছে আর কয়েক মাস। এ সময়ে স্থগিত সিরিজ এবং বাকি থাকা সিরিজগুলো আয়োজন কঠিন। তাই খেলা হওয়া এবং ভবিষ্যতে যেসব সিরিজ হবে সেগুলোর পয়েন্টের পারসেন্টেজ করে চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালিস্ট নির্ধারণের চিন্তা করা হয়। গত সোমবার থেকে শুরু হওয়া ত্রৈমাসিক সভায় সেটাই অনুমোদন পেয়েছে।

নতুন এ পদ্ধতি চালু হওয়ায় ক্ষতি হয়েছে ভারতের। কারণ পারসেন্টেজ সিস্টেমের আগে তারা চার সিরিজ থেকে ৩৬০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ছিল। সেই ভারত নেমে গেছে দ্বিতীয়তে। তাদের টপকে তিন সিরিজ থেকে ২৯৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়তে থাকা অস্ট্রেলিয়া উঠে এসেছে শীর্ষে। কারণ ভারত এক সিরিজ বেশি খেলায় তাদের পয়েন্টের পারসেন্টেজ কমে এসেছে আর অস্ট্রেলিয়া কম খেলায় পারসেন্টেজ বেড়েছে তাদের। অস্ট্রেলিয়ার পারসেন্টেজ এখন ৮২.২, ভারতের ৭৫.০০। তিনে যথারীতি চার সিরিজ থেকে ২৯২ পয়েন্ট পাওয়া ইংল্যান্ড। তাদের পারসেন্টেজ ৬০.৮৩। আর তিন সিরিজ থেকে ১৮০ পয়েন্ট নিয়ে নিউজিল্যান্ড চারে আছে। তাদের পারসেন্টেজ ৫০.০০।

এ পদ্ধতিতে সবচেয়ে বেশি লাভ হতে যাচ্ছে নিউজিল্যান্ডের। কারণ সামনের দুই সিরিজ জিতলেই চ্যাম্পিয়নশিপের শীর্ষ দুইয়ে চলে যেতে পারবে কিউইরা। সামনে ঘরের মাঠে উইন্ডিজ ও পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে নিউজিল্যান্ড। নিজেদের মাঠে আগেও এ দুই প্রতিপক্ষের সঙ্গে টেস্ট সিরিজ জিতেছিল তারা। এবার সিরিজ জিতলে পূর্ণ ২৪০ পয়েন্ট পেয়ে যাবে। এখন পর্যন্ত ১৮০ পয়েন্ট পাওয়া নিউজিল্যান্ডের পয়েন্ট হবে ৪২০। এ পয়েন্টে তাদের পারসেন্টেজ হবে ৭০।

বিপরীতে শীর্ষ তিনে থাকা তিন দল অস্ট্রেলিয়া-ভারত, ভারত-ইংল্যান্ড দুই সিরিজই হবে চার টেস্টের। অস্ট্রেলিয়া যদি সব টেস্ট জিতেও তাহলে তাদের পারসেন্টেজ বাড়বে মাত্র চার-সাড়ে চার ভাগ। মানে ৮২.২২ ভাগ থেকে বেড়ে হবে ৮৬.৬৭। আবার পরের সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হেরে গেলে তারা নেমে যাবে ৬৯.৩৩ ভাগে। আবার ভারত অস্ট্রেলিয়ার কাছে চার টেস্টে হারলে এবং পরের সিরিজে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ টেস্টে জিতলে তাদের পয়েন্টের পারসেন্টেজ হবে ৬৬.৬৭। আবার অস্ট্রেলিয়ার কাছে ২-০-তে সিরিজ হেরে ইংল্যান্ডের সঙ্গে ৫-০-তে জিতলে তাদের পারসেন্টেজ হবে ৬৯.৪৪। তাই পারসেন্টেজ বাড়ানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে নিউজিল্যান্ড। তাদের সিরিজ ঘরের মাঠে এবং প্রতিপক্ষও তাদের চেয়ে পারফরম্যান্সের দিক থেকে পিছিয়ে।