মেসিকে ছাড়াই বার্সেলোনার ৪ গোলের জয়|260771|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০
মেসিকে ছাড়াই বার্সেলোনার ৪ গোলের জয়
ক্রীড়া ডেস্ক

মেসিকে ছাড়াই বার্সেলোনার ৪ গোলের জয়

সের্জিও বুসকেতস, জেরার্ড পিকে, সের্জি রবের্তোরা ইনজুরিতে। লিওনেল মেসিকে দেওয়া হয়েছিল বিশ্রাম। পরিবর্তে যারা মঙ্গলবার ডায়নামো কিয়েভের সঙ্গে খেলেছে, তারাই ৪-০ গোলের জয় এনে দিয়েছে বার্সেলোনাকে। আর ৪ ম্যাচে ৪ জয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছে তারা। এ নিয়ে টানা ১৭ মৌসুম চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ১৬ নিশ্চিত করল বার্সা। ফেরেঙ্কভারোসকে ২-১ গোলে হারিয়ে ৪ খেলায় তৃতীয় জয় পাওয়া জুভেন্তাসও উঠে গেছে দ্বিতীয় পর্বে।

মেসির পর বুসকেতস কিংবা পিকে নেতৃত্ব দেবেন এমনটাই মৌসুম শুরুর আগে নির্ধারণ করেছিল বার্সা। কিন্তু দুজনই ইনজুরিতে। তার জায়গায় ইনজুরি কাটিয়ে কয়েক ম্যাচ আগে দলে ফেরা গোলরক্ষক টের স্টেগেন আর্মব্যান্ড পরেন। সেরা একাদশের বাকি ১০ জন রক্ষণে জুনিয়র ফিরপো, লংলে, গার্সিয়া ও দেস্ত, তাদের সামনে পিয়ানিচ ও অ্যালেনা, অ্যাটাকিং জোনে ত্রিনকাও, পেদ্রি ও কুতিনহো। একমাত্র স্ট্রাইকার ব্র্যাথওয়েট। গ্রিজমান, পুইচ, ফার্নান্দেজ, জর্দি আলবা এবং লা ফুয়েন্তেকে কোচ কোম্যান খেলান বদলি হিসেবে। পরিবর্তিত এসব ফুটবলার খেলিয়েই বেশি লাভ পেয়েছেন বলে জানান ডাচ কোচ, ‘আজ আমাদের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন ছিল ফ্রেশ ফুটবলার। তারা সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। আজ সুযোগ পেয়েই কাজে লাগিয়েছে। আমার মনে হয় মেসিসহ কিছু ফুটবলারকে বিশ্রাম দিয়ে আমরা সঠিক কাজ করেছি। একটানা খেলে যাওয়া খুবই চাপের। সবারই বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। পাশাপাশি যারা সুযোগ পায় না তাদেরও খেলার অধিকার আছে। তাদের নিয়েও যে আমরা ভাবছি সেটা জানানো উচিত। উজ্জীবিত ফুটবলারদের নিয়ে আমরা আজ সেরা খেলাটা খেলেছি। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলারকে ছাড়াও আমরা চার গোল করেছি।’

গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর দ্বিতীয়ার্ধের ৭ মিনিটে প্রথম গোল এনে দেন দেস্ত। বার্সার হয়ে তার প্রথম গোল ইতিহাস গড়ল। কোনো আমেরিকানের বার্সার জার্সিতে এই প্রথম গোল। তার গোলে অবদান ছিল মার্টিন ব্র্যাথওয়েটের। তিনিই ৫৭ এবং ৭০ মিনিটে গোল করে জয় নিশ্চিত করেন কাতালানদের। ইনজুরি সময়ে গোল করেন গ্রিজমানও। এই জয়ে ২০১৬-১৭ মৌসুম থেকে চ্যাম্পিয়নস লিগ গ্রুপ পর্বে না হারার রেকর্ড ধরে রাখল বার্সা।

ওদিকে নিজেদের মাঠে ১৯ মিনিটে পিছিয়ে পড়ে ইতালি চ্যাম্পিয়ন জুভেন্তাস। তবে রোনালদো ৩৫ মিনিটে গোল করে সমতা ফেরান ম্যাচে। এই অবস্থায় খেলা শেষ হচ্ছিল। বদলি হিসেবে নামা আলভারো মোরাতা ইনজুরি সময়ে হেড থেকে গোল করে

জুভেন্তাসের জয় নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে গ্রুপ পর্বেই পাঁচ গোল পেলেন স্প্যানিশ এই স্ট্রাইকার।