এবার চারের নিচে নামল শনাক্ত হার|272173|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০
এবার চারের নিচে নামল শনাক্ত হার
২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৬
নিজস্ব প্রতিবেদক

এবার চারের নিচে নামল শনাক্ত হার

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের নি¤œগতির মধ্যে এবার শনাক্ত হার ৪ শতাংশের নিচে নামল। গতকাল বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৫৮৪ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদিন সাড়ে ১৪ হাজারের বেশি পরীক্ষায় ৩ দশমিক ৯৬ শতাংশ হারে রোগী শনাক্ত হয়েছে। অর্থাৎ প্রতি ১০০ জনের নমুনা পরীক্ষায় চারজনের কম রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশে ব্যাপকভাবে পরীক্ষা শুরুর পর এটাই সর্বনিম্ন শনাক্তের হার। অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে গত বছর ৩ এপ্রিল থেকে করোনার তথ্য সংরক্ষিত আছে। তাতে দেখা গেছে, এপ্রিলের ৩ ও ৪ তারিখ পাঁচশরও কম সংখ্যক পরীক্ষায় ২ শতাংশ হারে রোগী শনাক্ত হয়েছিল।

গত বছর ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম দিকে পরীক্ষা হতো কম। মে’র মাঝামাঝি থেকে সামাজিকভাবে সংক্রমণ শুরু হলে করোনা ব্যাপকভাবে ছড়াতে শুরু করে। তখন পরীক্ষাও ব্যাপকভাবে শুরু হয়। একসময় দৈনিক পরীক্ষার সংখ্যা সর্বোচ্চ ১৯ হাজারে ওঠে। পরীক্ষা বাড়ার সঙ্গে শনাক্তের হারও বাড়ে। গত বছর জুন, জুলাই ও আগস্টে দেশে করোনার সংক্রমণ সর্বোচ্চ মাত্রায় ছিল। তখন শনাক্তের হার অধিকাংশ দিনই ২০-২৫ শতাংশের মধ্যে ছিল। তার মাঝে একদিন শনাক্তের হার সর্বোচ্চ ৩২ শতাংশে ওঠে। সেপ্টেম্বর থেকে সংক্রমণ কমতে শুরু করে। এর মাঝে নভেম্বরে হঠাৎ অল্প সময়ের জন্য সংক্রমণের হার বেড়ে গেলেও বর্তমানে নি¤œগতি অব্যাহত রয়েছে। ব্যাপকভাবে পরীক্ষা শুরুর পর গত ১৪ জানুয়ারি প্রথমবার শনাক্ত হার ৫ শতাংশের নিচে নামে। এরপর আরও চার দিন শনাক্ত হার ৫-এর নিচে নামে। গতকাল তা আরও কমে ৪ শতাংশের নিচে নামল।

এদিকে দেশে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬ জন করোনা রোগী মারা গেছে। আগের দিন মারা গিয়েছিল ৮ জন, যা ছিল গত সাড়ে আট মাসের ও বেশি সময়ের মধ্যে সর্বনিম্ন। গতকাল মৃতদের মধ্যে ১৩ জনই ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা।

গতকাল ছিল দেশে প্রথম করোনা শনাক্তের পর ৩২০তম দিন। অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশে ২০০টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এর মধ্যে ২৮টি জিন-এক্সপার্ট, ৫৬টি র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন ও নতুন একটিসহ ১১৬টি আরটি-পিসিআর পরীক্ষাগার। এসব পরীক্ষাগারে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় (বুধবার দুপুর ১২টা থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত) ১৪ হাজার ৭৯৭ জনের নমুনা সংগৃহীত হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৪ হাজার ৭৬১ জনের। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ৬০২ রোগী সুস্থ হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশে গতকাল পর্যন্ত অ্যান্টিজেন টেস্টসহ ৩৫ লাখ ১৫ হাজার ৪২৮টি নমুনা পরীক্ষায় ৫ লাখ ৩০ হাজার ২৭১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে মারা গেছে ৭ হাজার ৯৬৬ এবং সুস্থ হয়েছে ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৭৪ জন। বাকিরা চিকিৎসাধীন। এ পর্যন্ত যত পরীক্ষা হয়েছে তার বিপরীতে রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৫ দশমিক ০৮ শতাংশ। শনাক্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত মৃত্যুহার ১ দশমিক ৫০ এবং সুস্থতার হার ৮৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে পুরুষ ১১ ও নারী ৫ জন। মৃতদের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৩ জন ঢাকা বিভাগের এবং চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনার ১ জন করে। তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব ৯, ৫১-৬০ বছরের ৩, ৪১-৫০ বছরের ১, ৩১-৪০ বছরের ২ এবং ২১-৩০ বছরের ছিল ১ জন। ১৫ জন মারা গেছে হাসপাতালে এবং একজন বাড়িতে।

অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃতদের মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৩৭ ও নারী ১ হাজার ৯২৯ জন। শতকরা হিসাবে পুরুষ ৭৫ দশমিক ৭৮ ও নারী ২৪ দশমিক ২২ শতাংশ। সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৪২৬ জন মারা গেছে ঢাকা বিভাগে। এ ছাড়া চট্টগ্রামে ১ হাজার ৪৫৯, খুলনায় ৫৪৫, রাজশাহীতে ৪৫৫, রংপুরে ৩৫৪, সিলেটে ৩০১, বরিশালে ২৪০ ও সর্বনি¤œ ১৮৬ জন মারা গেছে ময়মনসিংহ বিভাগে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৮১ রোগীকে আইসোলেশনে ও ৩৬২ জনকে কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে আইসোলেশনে ১০ হাজার ৮৪৭ ও কোয়ারেন্টাইনে আছে ৩৬ হাজার ১৬২ জন। সারা দেশে কভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে ১০ হাজার ৩৮১টি সাধারণ বেডের মধ্যে গতকাল রোগী ভর্তি ছিল ১ হাজার ৮৮৮টিতে। বাকিগুলো খালি ছিল। এ ছাড়া ৫৯৮টি আইসিইউর মধ্যে রোগী ভর্তি ছিল ২১১টিতে।