টিকার এক ডোজে সব বয়সীদের ঝুঁকি কমে: গবেষণা|289177|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ এপ্রিল, ২০২১ ১৪:১৪
টিকার এক ডোজে সব বয়সীদের ঝুঁকি কমে: গবেষণা
অনলাইন ডেস্ক

টিকার এক ডোজে সব বয়সীদের ঝুঁকি কমে: গবেষণা

অক্সফোর্ড কিংবা ফাইজারের টিকার একটি ডোজ নিলেই নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি ‘প্রবলভাবে’ কমে যায় বলে একটি ব্রিটিশ গবেষণায় জানানো হয়েছে।

দ্য অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিসটিকস (ওএনএস) এবং ইউনিভার্সিটি অব অক্সফোর্ডের করা ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, দুই ডোজ নেয়ার পর অ্যান্টিবডি আরও শক্তিশালী হয়।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উভয় ভ্যাকসিন নেয়ার পর সবার শরীরেই প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

যুক্তরাজ্যের ৩ লাখ ৭০ হাজার মানুষের করোনা পরীক্ষার ভিত্তিতে গবেষণাটি পরিচালিত হয়। তবে গবেষণাটি এখনো পিয়ার-রিভিউড জার্নালে প্রকাশ করা হয়নি।

বিবিসি লিখেছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা অথবা ফাইজার-বায়োএনটেকের প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার পর মানুষের মধ্যে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি ৬৫ শতাংশ কমে গেছে।

যাদের গত বছরের ডিসেম্বর থেকে এপ্রিলের মধ্যে টিকা দেওয়া হয়েছিল, তাদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, টিকা নেওয়ার তিন সপ্তাহ পর উপসর্গসহ করোনার সংক্রমণ ৭৪ শতাংশ কমেছে। আর উপসর্গবিহীন করোনার সংক্রমণ কমেছে ৫৭ শতাংশ।

যারা ফাইজারের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন, তাদের সংক্রমণের ঝুঁকি ৯০ শতাংশ কমেছে। তবে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার ক্ষেত্রে এ তথ্য দেওয়া সম্ভব হয়নি। কারণ, টিকাদান কর্মসূচি দেরিতে শুরু হওয়ায় খুব অল্পসংখ্যক মানুষ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিতে পেরেছেন।

গবেষণাটির উদ্দেশ্য ছিল মূলত দ্বিতীয় ডোজের প্রয়োজনীয়তা বোঝা। গবেষকেরা বলছেন, দ্বিতীয় ডোজে সুরক্ষা কতটা বাড়ে এই গবেষণায় সেটিই স্পষ্ট হয়েছে।

ফাইজারের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, এক ডোজ নেয়ার পর তরুণদের শরীরে বয়স্কদের তুলনায় ভালো অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে। কিন্তু দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পর সবার শরীরেই উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবডি পাওয়া যায়।