খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল, অক্সিজেন কম লাগছে: ডা. জাহিদ|292297|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১০ মে, ২০২১ ২২:২৪
খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল, অক্সিজেন কম লাগছে: ডা. জাহিদ
নিজস্ব প্রতিবেদক

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল, অক্সিজেন কম লাগছে: ডা. জাহিদ

রাজধানীর বসুন্ধরায় এভারকেয়ার করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

সোমবার রাতে দেশ রূপান্তরকে এ কথা জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও দলের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

তিনি বলেন, ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল, অক্সিজেন এখন কম লাগছে। সকালে হাসপাতালের গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা খালেদা জিয়াকে দেখেছেন। এ সময় তিনি বিএনপি চেয়ারপারসনের সুস্থতার জন্য দেশবাসীর দোয়া চান।

এদিকে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে সরকার অনুমতি না দেওয়ার সমালোচনা করেছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন। সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো পৃথক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর নজির বাংলাদেশেই আছে।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের শারীরিক অসুস্থতা ও তার চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার বিষয় নিয়ে গত কয়েক দিনে সরকারের পক্ষ থেকে যা করা হয়েছে, তাতে আমি বিস্মিত এবং উদ্বিগ্ন।

তিনি বলেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে আইনি বাধার কথা আইন মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, তার ব্যত্যয় ঘটিয়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে চিকিৎসার নজির এ দেশে রয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ার পরও জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রবকে ১৯৭৯ সালে উন্নত চিকিৎসার জন্য জার্মানিতে পাঠানো হয়েছিল। এ ক্ষেত্রে মানবিক বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছিল সবার আগে। বেগম জিয়ার ক্ষেত্রেও আমরা তেমনটি আমি আশা করেছিলাম।

পৃথক এক যৌথ বিবৃতিতে খালেদা জিয়ার চাহিদা অনুযায়ী চিকিৎসায় বাধা অপসারণ করে তাকে জামিনে মুক্তি দিয়ে মানসিক ও শারীরিক সুস্থতার শর্ত তৈরি করার আহ্বান জানিয়েছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি ও ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী সমন্বয়কারী আবুল হাসান রুবেল।

তারা বলেন, সম্প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা বিষয়ে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে। খালেদা জিয়া অনেক দিন ধরেই নানা ধরনের শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। সম্প্রতি কোভিড আক্রান্ত হওয়া একে আরও জটিল করেছে। দীর্ঘদিন ধরে কারাবাস ও গৃহবন্দীত্বের  মানসিক চাপ এর সাথে যুক্ত আছে। এই পরিস্থিতিতে তার পরিবারের আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী চিকিৎসা এমনকি বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা পাওয়া একটা মানবিক অধিকার। এই অধিকারে রাজনৈতিক বাধা তৈরি করা ভীষণ অন্যায় কাজ হবে।

খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না দেওয়ায় নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ২০ দলীয় জোট শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি আবদুল করিম আব্বাসী ও মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

তারা বিবৃতিতে বলেন, খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার বিষয়ে পরিবারের কথা আবেদনের বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হলো, এই সরকার কতটা অমানবিক। গোটা রাষ্ট্র ও সংবিধানকে তারা দলীয় হাতিয়ারে পরিণত করেছে। খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তাকে তারা ভয় পায়।

এছাড়া বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরিক লেবার পার্টির চেয়ারম্যান সরকারের সমালোচনা করে বিবৃতি দিয়েছেন।