গার্দিওলার কোচিং তত্ত্বেই অবিস্মরণীয় সাফল্য ম্যান সিটির|292636|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১২ মে, ২০২১ ২১:১৯
গার্দিওলার কোচিং তত্ত্বেই অবিস্মরণীয় সাফল্য ম্যান সিটির
অনলাইন ডেস্ক

গার্দিওলার কোচিং তত্ত্বেই অবিস্মরণীয় সাফল্য ম্যান সিটির

পেপ গার্দিওলা।

১০ বছরে পাঁচবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল) শিরোপা। ম্যানচেস্টার সিটি ইংল্যান্ডের ক্লাব ফুটবলে যেন নতুন বেঞ্চমার্ক তৈরি করে ফেলেছে। যার মধ্যে আবার গত চার মৌসুমে তিনবার ইপিএল চ্যাম্পিয়ন তারা।

মঙ্গলবার রাতে লেস্টার সিটির কাছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড হারতেই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যায় সিটি। পেপ গার্দিওলার কোচিংয়ে অবিশ্বাস্য উত্থান যে দলটির।

এবার গার্দিওলার দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালেও উঠেছে। যদি ট্রফি জিততে পারে সিটি, তাহলে নতুন রেকর্ড করে ফেলবে তারা।

অনেকেই সিটিতে নতুন প্রজন্মের উত্থান দেখছে। কেভিন ডি ব্রুইন, কাইল ওয়াকার, বের্নার্দো সিলভা, রিয়াদ মাহরেজ ও এডারসনের মতো তারকারা আছেন। পাশাপাশি রুবেন ডায়াস, ফিল ফডেন, জোয়াও কানসেলোদের মতো তরুণেরা ঝলমলে হয়ে উঠেছেন। গার্দিওলার সিটি আগামী দিনে বিশ্ব ফুটবল শাসন করবে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

গার্দিওলার কোচিং তত্ত্ব, টিমের ভারসাম্য, জয়ের খিদে, স্বপ্ন তাড়া করা— অনেক কিছুই উঠে আসছে আলোচনায়। লেস্টার সিটির কাছে ইপিএলের প্রথম ম্যাচেই ২-৫ হেরেছিল সিটি। তখন মনে হয়েছিল, পেপের দলের মারাত্মক ভরাডুবি হতে যাচ্ছে এবার। কিন্তু পরিস্থিতি দ্রুত সামলে নিয়েছিলেন গার্দিওলা।

পর্তুগালের স্টপার রুবেন ডায়াসের সংযুক্তি চিন্তামুক্ত করেছিল সিটির কোচকে। জন স্টোনের সঙ্গে দারুণ পার্টনারশিপ গড়ে উঠেছিল রুবেনের। এই দুজন মিলেই ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে ১০টা লিগের ম্যাচে মাত্র ২ গোল খেয়েছিলেন। যা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে দিয়েছিল গার্দিওলার।

টানা ২১ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ডই এ বারের ইপিএলে সিটিকে চালকের আসনে বসিয়ে দিয়েছিল। সারা বিশ্বের মতো ইংল্যান্ডেও তখন করোনার ব্যাপক প্রভাব। তার মধ্যে এভারটনের বিপক্ষে বছরের প্রথম ম্যাচ বাতিল হয়ে গিয়েছিল সিটির। ট্রেনিংও বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তাও নিজের টিমের ওপর আস্থা হারাননি গার্দিওলা।

এক সপ্তাহ পর চেলসির বিপক্ষে যে ম্যাচ খেলতে গিয়েছিল সিটি, তাতে মাত্র ১৫ ফুটবলার পেয়েছিলেন গার্দিওলা। কিন্তু ওই ম্যাচে মৌসুমের সেরা পারফরম্যান্স তুলে ধরেছিল স্প্যানিশ কোচের টিম। প্রথম ৩৪ মিনিটে চেলসিকে ৩ গোল দিয়েছিল সিটি।

এই লিগ সিটির কাছে নানা কারণে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ইপিএলে এ বারই ১৮ বছর পর লিভারপুলের ঘরের মাঠে গিয়ে জয় পেয়েছিল সিটি। ৪-১ জেতা ওই ম্যাচই বিপক্ষকে তো বটেই, লিগ টেবিলেরও দখল এনে দিয়েছিল সিটিকে।

বার্সেলোনার কোচ থাকাকালীন চার বছরে ১৪টা ট্রফি দিয়েছিলেন গার্দিওলা। মেসিদের বিশ্বের সেরা টিম করে তুলেছিলেন। তার ওই সাফল্যের পর বার্সা থেকে সরে গিয়েছিলেন গার্দিওলা। নতুন কিছু করার আকাঙ্ক্ষায়। আসলে কোচ শুধু ফুটবল ছকের জন্ম দেন না, তুলে আনেন এক নতুন প্রজন্ম। সিটিতে পা রেখে সেটাই করার চেষ্টা করেছিলেন তিনি। নিশ্চয়ই এখানেও সফল বলতে হবে তাকে।