ওয়েব সিরিজে ‘মাফিয়া’ জাহিদ হাসান|307703|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৩ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০
ওয়েব সিরিজে ‘মাফিয়া’ জাহিদ হাসান
আল মাসিদ

ওয়েব সিরিজে ‘মাফিয়া’ জাহিদ হাসান

দীর্ঘদিন ধরে ছোটপর্দা মাতিয়ে রেখেছেন জাহিদ হাসান। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে রোমান্টিক নায়ক হিসেবে দর্শকের মন জয় করেন। নব্বইয়ের দশকে টিভি নাটকের নায়কদের মধ্যে তিনি সবচেয়ে উজ্জ্বল ছিলেন। জনপ্রিয়তার দিক থেকেও তার ধারেকাছে কেউ ছিল না। তিন দশকের ক্যারিয়ার পেরিয়ে এখনো তিনি সমানতালে কাজ করছেন। এখনো এই অভিনেতাকে গল্পের প্রধান চরিত্রেই দেখা যায়। রোমান্টিক ইমেজ ভেঙে একসময় কাজ শুরু করেন কমেডি গল্পে। সেখানেও তিনি অনবদ্য। গ্রামীন পটভূমিকার নাটকে জাহিদ হাসানের আলাদা গ্রহণযোগ্যতা ভক্তদের মনে। তবে এই অভিনেতা শুধু নাটকেই সীমাবদ্ধ থাকেননি। মঞ্চে নিয়মিত না হলেও টিভি নাটকের পাশাপাশি বেশ কিছু চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। সর্বশেষ জাতীয় পুরস্কার ঘরে ওঠে গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘সাপলুডু’ সিনেমায় খল চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে। এর আগে তৌকীর আহমেদের ‘হালদা’ সিনেমার জন্যও তিনি খল অভিনেতা ক্যাটাগরিতে জাতীয় স্বীকৃতি পান।

এখন যুগ ওয়েব প্ল্যাটফর্মের। করোনাকালে গত দুই বছরে সিনেমার চেয়ে ওয়েব সিরিজ বেশি দাপটের সঙ্গে মানুষের সামনে এসেছে। তাই জাহিদ হাসানও এবার  আসছেন ওয়েবের দুনিয়ায়। এখানেও তিনি মন্দ লোকের চরিত্রে কাজ করবেন। বিগ বাজেটের এই ওয়েব সিরিজের নাম ‘মাফিয়া’। পরিচালনা করছেন ঢালিউডের ব্যবসাসফল নির্মাতা শাহীন সুমন। শাপলা মিডিয়ার ব্যানারে নির্মিত এই সিরিজটি আন্ডারওয়ার্ল্ডের নানা দিক নিয়ে নির্মিত। পরিচালক বলেন, ‘এই সিরিজের বেশিরভাগ চরিত্রই মাফিয়া। তবে জাহিদ হাসান অভিনয় করবেন অন্যতম মুখ্য চরিত্রে। আমি কখনোই গল্প নিয়ে আগে থেকে কিছু জানাতে চাই না। আর এটি যেহেতু অ্যাকশন থ্রিলার তাই এটা নিয়ে একদমই কিছু বলতে চাই না। বললে দর্শক গল্পের মজা হারিয়ে ফেলবেন দেখার সময়। তবে এটা বলতে পারি জাহিদ হাসানের চরিত্রে নানা চমক থাকবে।’

এই সিরিজের বিশেষত্ব হলো, অন্যান্য ওয়েব সিরিজ ৭ পর্বের মধ্যে শেষ হলেও এটি তা হবে না। এটি নির্মিত হচ্ছে বলিউডের মির্জাপুর কিংবা সেক্রেড গেমসের মতো। অর্থাৎ মাফিয়ার একাধিক সিজন আসবে শাপলা মিডিয়ার ওয়েব প্ল্যাটফর্ম সিনেবাজে। প্রতিটি সিজনে ৭ পর্ব করে থাকবে। কমপক্ষে ৭টি সিজন হবে। এ জন্য অনেক তারকাকে এই সিরিজের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ঢাকার বিভিন্ন লোকেশনসহ সাভার, পুবাইল, নারায়ণগঞ্জ ও কক্সবাজারে দুই ধাপের কাজ শেষ হয়েছে। লকডাউন উঠে গেলে ৮ আগস্ট থেকে আবারও শ্যুটিং শুরু হবে। এতে জাহিদ হাসান ছাড়া আরও দেখা যাবে জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি, আঁচল, অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন, শ্যামল মাওলা, অভিনেত্রী অর্ষা, মৌ খানসহ অনেক তারকাকে। এ বছরেই সিনেবাজ অ্যাপে মুক্তি পাবে সিরিজটি।

‘মাফিয়া’ প্রসঙ্গে জাহিদ হাসান বলেন, ‘অভিনয় ভালোবেসে করি। তাই যে কাজটিই করি না কেন, সততার সঙ্গে করি। এ কাজটিতেও সততা কিংবা পরিশ্রমের কমতি রাখিনি। বরাবরই নতুন ধরনের চরিত্রে কাজ করার চ্যালেঞ্জ নিতে চেয়েছি। এই চরিত্রেরও বেশ চ্যালেঞ্জ আছে। আশা করছি দর্শক পছন্দ করবেন।’

নেতিবাচক চরিত্রে কাজ করা নিয়ে তিনি বলেন, ‘অভিনেতার জন্য প্রতিটি চরিত্রই যথাযথভাবে ফুটিয়ে তোলা কষ্টকর। তার সেটি যদি হয় বাস্তব জীবনের চেয়ে একেবারেই আলাদা, তাহলে কষ্ট আরও বেশি করতে হয়। তবে অভিনেতা হিসেবে নানামাত্রিক উপস্থাপন অন্য রকম আনন্দ দেয়। তাই আমি নেতিবাচক চরিত্র করার বিষয়টি উপভোগ করি। দর্শকের যে কাজগুলো ভালো লাগে, সেটা আমার কাছে সবচেয়ে অনুপ্রেরণার। তারা যে ধরনের কাজ দেখতে পছন্দ করেন, সেগুলোই করার চেষ্টা করি। দিনশেষে আমরা দর্শকের জন্যই কাজ করি।’

গেল ঈদুল আজহায় বেশ কিছু নাটকে দেখা গেছে জনপ্রিয় এই অভিনেতাকে। এর মধ্যে রয়েছে নিজের পরিচালনায় বাংলাভিশনের নাটক ‘প্লিজ, একটু প্রেম হবে’। এতে তার সহশিল্পী সালহা খানম নাদিয়া, সাজু খাদেম, ফারজানা রিক্তা প্রমুখ। একই টিভিতে তার পরিচালিত নাটক ‘দূরত্ব বজায় রাখুন’-এ অভিনয় করেছেন অপর্ণা ঘোষের সঙ্গে। সৌর্য দীপ্ত সূর্যর পরিচালনায় অহনার সঙ্গে করেছেন ‘দ্য সোর্ড অব অনেস্টি’ নাটকটি। হুমায়ূন কাবেরীর পরিচালনায় মাছরাঙা টিভিতে প্রচার হয়েছে ‘ব্যাচেলর বাড়িওয়ালা’। এই নাটকে তার বিপরীতে আছেন নাবিলা ইসলাম। একই টিভিতে দেখা গেছে সাইদুর রহমান রাসেল পরিচালিত নাটক ‘গলাবাজি’। এতে তার নায়িকা ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর। এটিএন বাংলায় প্রচার হয়েছে নাবিলা ইসলামের সঙ্গে আরেক নাটক ‘লাইভ স্টার লাভলু ভাই’। জনপ্রিয় নির্মাতা কায়সার আহমেদের পরিচালনায় অভিনয় করেছেন ‘বড় মিয়ার শাদি মোবারক’ নাটকে। প্রভার সঙ্গে এ নাটকটিও প্রচার হয়েছে মাছরাঙা টিভিতে। আর বৈশাখী টিভির ‘পেজগি নেকাব্বর’ নাটকটিতে জাহিদ হাসানের নায়িকা নাবিলা ইসলাম। ঈদের কাজ নিয়ে তিনি বলেন, ‘নাটকগুলোর গল্প বেশ মজার। তাই কাজ করেছি।