কেজিপ্রতি চিনির নতুন দাম নির্ধারণ|314546|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২২:৩৬
কেজিপ্রতি চিনির নতুন দাম নির্ধারণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

কেজিপ্রতি চিনির নতুন দাম নির্ধারণ

চিনির বাজার নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগ নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের চাপে চিনির নতুন দাম নির্ধারণ করল বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশন। 

প্রতি কেজি খোলা চিনির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৪ টাকা ও প্রতি কেজি প্যাকেটজাত চিনির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। 

অপরিশোধিত চিনির আন্তর্জাতিক বাজারদর এবং স্থানীয় পরিশোধনকারী মিলগুলোর উৎপাদন ব্যয় বিবেচনায় এনে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে এ দাম নির্ধারণ করে বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশন। 

৫ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক বাজারে চিনির দাম বাড়তে থাকায় প্রতি কেজি খোলা চিনির দাম ৮৫ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনির দাম ৯৮ টাকা করার প্রস্তাব করে বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশন। 

ওইদিন সংস্থাটি জানায়, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত ও পরিশোধিত চিনির মূল্য ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে ক্রমাগত মূল্যবৃদ্ধি সত্ত্বেও দেশের চাহিদা এবং জোগানের মধ্যে ভারসাম্য রাখার স্বার্থে চিনি আমদানি করে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। যেহেতু আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ছে, তাই দেশি বাজারে তার প্রভাব পড়া স্বাভাবিক। এ অবস্থায় প্রতি কেজি খোলা চিনির দাম ৮৫ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনির দাম ৯৮ টাকা করার পুনর্নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়। 

তবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৪ টাকা ও প্রতি কেজি প্যাকেটজাত চিনির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। 

এদিকে বৃহস্পতিবার রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, অনেক দোকানেই বিভিন্ন কোম্পানির চিনির প্যাকেটে যে দাম লেখা আছে, তা মুছে বিক্রি করা হচ্ছে। 

মোহাম্মদপুরের টাউন হল ও কাটাসুর বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায় এবং প্যাকেটজাত চিনি বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৮৪ থেকে ৮৬ টাকায়। 

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বৃহস্পতিবারের তথ্য অনুযায়ী রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে প্রতি কেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৭৮ থেকে ৮০ টাকায়।