নারীকে বাঁচাতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার সাংবাদিক|316747|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৬:৩৫
নারীকে বাঁচাতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার সাংবাদিক
শরীয়তপুর প্রতিনিধি

নারীকে বাঁচাতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার সাংবাদিক

শরীয়তপুর পৌর শহরে এক নারীকে বাঁচাতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন এক সাংবাদিক। সাংবাদিকের নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে সন্ত্রাসীরা ওই সাংবাদিককে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে পালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন সাংবাদিকের নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এ হামলা করে। তাঁকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত রোকনুজ্জামান পারভেজ (৪০) এটিএন বাংলা, এটিএন নিউজ ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের শরীয়তপুর প্রতিনিধি এবং শরীয়তপুর ইলেকট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি।

ওই সাংবাদিক ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে রোকনুজ্জামান পারভেজ তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসে ছিলেন। হঠাৎ দোকানের সামনে শরীয়তপুর পৌরসভার উত্তর পালং গ্রামের আবুল কাশেম মিয়ার ছেলে নাজমুল মাদবর ও নাঈম মাদবরের নেতৃত্বে বিশ থেকে পঁচিশ জন লোক এসে এক নারীকে রড, লাঠি দিয়ে মারধর করছিল। তখন সাংবাদিক পারভেজের দোকানে ঢুকে ওই নারী। তখন ওই সন্ত্রাসীদের দোকান থেকে বের হতে বলে পারভেজ। তখন সন্ত্রাসীরা ভিডিও করছস কেন বলে পারভেজকে কিল-ঘুষি মারে ও রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। তা ছাড়া পারভেজের দোকানের ক্যাশে রাখা ও সঙ্গে থাকা নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

এদিকে হামলাকারী নাজমুল মাদবর ও নাঈম মাদবরের বাবা আবুল কাশেম মিয়া বলেন, আমি এই ব্যাপারে কিছু জানি না। যদি আমার ছেলেরা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। তাদের বিচার করা হোক।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সুমন কুমার পোদ্দার বলেন, পারভেজকে আমার তত্ত্বাবধানে রেখেছি। মাথার নিচে ঘারে আঘাত রয়েছে। ২৪ ঘণ্টার আগে তার অবস্থা বলা যাচ্ছে না।

শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. আক্তার হোসেন বলেন, আহত অবস্থায় তাকে সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছি। মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে হামলাকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

শরীয়তপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি অনল কুমার দে বলেন, পারভেজের ওপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। হামলাকারীদের আইনের আওতায় আনা হোক।