কোলেস্টেরল কেন বাড়ে|316847|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০
কোলেস্টেরল কেন বাড়ে

কোলেস্টেরল কেন বাড়ে

কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বি। এটি কয়েক ধরনের হয়- ট্রাইগ্লিসারাইড, এলডিএল, এইচডিএল এবং টোটাল কোলেস্টরল। এর মধ্যে এইচডিএল হলো উপকারী। আর তিনটি শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

ক্ষতিকর কোলেস্টেরল জমা হয় রক্তনালিতে। জমা হতে হতে রক্তনালির স্বাভাবিক রক্তধারা বাধাগ্রস্ত হয়। এর ফলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়াও মস্তিষ্ক ও লিম্বস আক্রান্ত করতে পারে, ব্লক করতে পারে। যদি হার্টে হয় তবে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে, যদি লিম্বসে হয় তাহলে হাঁটতে অসুবিধা হবে। মস্তিষ্কে হলে স্ট্রোক হতে পারে।

কেন বাড়ে

আমাদের খাদ্যাভ্যাসের কারণে প্রথমত কোলেস্টেরল বাড়ে। এছাড়া শারীরিক পরিশ্রম না করা শুয়ে বসে থাকাও একটা কারণ। কিছু অভ্যাস আছে যেমন ধূমপান, মদ্যপান, জর্দা সেবন এসব কারণে হয়। ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ থাকলেও কোলেস্টেরল বাড়তে পারে। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া স্টেরয়েড, হাইড্রোকোথায়াজাইড কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

আবার উপকারী কোলেস্টেরল এইচডিএল বৃদ্ধি শরীরের জন্য ভালো। এটা শরীরের পেরিফেরি থেকে কোলেস্টেরল সংগ্রহ করে লিভারে নিয়ে যায়। পরে লিভার দিয়ে এটা বেরিয়ে যায়।

করণীয়

কারও ওজন বাড়তে থাকলে বা  ডায়াবেটিস হলে অনেক সময় ভালো কোলেস্টেরল কমে যায়। উপকারী কোলেস্টেরল বাড়ানোর উপায় হলো নিয়মিত হাঁটা, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা, মাছ বেশি খাওয়া। যে কারণে অপকারী কোলেস্টেরল বেড়ে যায়, সেই কারণেই উপকারী কোলেস্টেরল কমে যায়।

নিয়ন্ত্রণ

ওষুধ খেয়ে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। এছাড়া খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন বিশেষ করে লাল মাংস, খাসির মাংস, গরুর মাংস এগুলো এড়িয়ে যেতে হবে। বেশি শাক-সবজি এবং মাছ খেতে হবে। নিয়মিত হাঁটতে হবে। ডায়াবেটিস অথবা উচ্চ রক্তচাপ থাকলে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। ধূমপান এবং মদ্যপান এড়িয়ে চলতে হবে।

কোলেস্টেরলে আক্রান্ত হলে নিয়মিত চেকআপের প্রয়োজন। বিশেষ করে তিন থেকে ছয় মাস পরপর এটা করতে হবে।

একটা বয়সের পর কোলেস্টেরল আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই স্বাস্থ্যসম্মত খাবার  খেতে হবে। যেমন : শাক-সবজি এবং মাছ বেশি করে খেতে হবে। গরুর মাংস, খাসির মাংস এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। ধূমপান এবং মদ্যপান ত্যাগ করতে হবে। পারিবারিক কারণে যাদের কোলেস্টেরল বেড়ে যায় তাদের ওষুধ খেতে হবে। কিছু কিছু তেল কোলেস্টেরল বাড়িয়ে দেয়। এক্ষেত্রে অলিভ অয়েল ও রাইস বার্ন অয়েল খেতে পারলে খুবই ভালো। এছাড়া কাঁচা লবণ খাওয়ার ফলে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই আমাদের কাঁচা লবণ এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। আবার কোলেস্টেরলের সঙ্গে ডায়াবেটিসও সম্পর্কযুক্ত। তাই ডায়াবেটিসও নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। ডায়াবেটিস বাড়লে ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল বেড়ে যায়। আর ভালো কোলেস্টেরল কমে যায়।