৭ বছরে পদার্পণ বিবিএমএফসি’র|322651|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২১ অক্টোবর, ২০২১ ১৪:১৯
৭ বছরে পদার্পণ বিবিএমএফসি’র
অনলাইন ডেস্ক

৭ বছরে পদার্পণ বিবিএমএফসি’র

বিবিএমএফসি'র আয়োজিত কনসার্টে গাইছেন আর্টসেলের লিংকন

বিশ্ব দরবারে গর্ব করার মতো বাংলাদেশের যা কিছু আছে তার একটি— ব্যান্ড সংগীত। বছরের পর বছর ধরে, বাংলাদেশ ব্যান্ড মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি কেবল অসংখ্য স্মরণীয় গান ও প্রতিভাবান শিল্পী উপহার দেয়নি; সৃষ্টি করেছে অনেক অনুরাগী ভক্ত-শ্রোতা।

বাংলাদেশের ব্যান্ড সংস্কৃতি নিয়ে যারা গর্ব করেন, যারা থাকেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। সেসব সংগীত প্রেমীদের একই প্ল্যাটফর্মে আসার সুযোগ করে দিয়েছে ‘বাংলাদেশি ব্যান্ড মিউজিক ফ্যান্স কমিউনিটি (বিবিএমএফসি)।

বিবিএমএফসি’র যাত্রা শুরু গ্রুপটির ফাউন্ডার ও হেড অব অ্যাডমিন রাজিব রহমান সোহানের হাত ধরে। সময়টা ২০১৪ সালের ১৭ অক্টোবর। শুরু থেকে গুটিকয়েক সদস্য নিয়ে গ্রুপটির আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে ব্যান্ড মিউজিক।

সিনিয়র থেকে জুনিয়র, সব ব্যান্ড মিউজিশিয়ানদের অংশগ্রহণে প্রাণবন্ত করে তোলে বিবিএমএফসিকে। সৃষ্টি লগ্ন থেকেই গ্রুপটি চেষ্টা করে যাচ্ছে ব্যান্ড সংগীত প্রেমীদের একই প্ল্যাটফর্মে আনার। এই প্রচেষ্টার ফলে সদস্য সংখ্যায় ইতোমধ্যে এক লাখ ১০ হাজারেরও বেশি ছাড়িয়েছে গ্রুপটি।  

বিবিএমএফসিতে ব্যান্ডদের সিঙ্গেল বা অ্যালবামের প্রমোশন, ব্যান্ড ও গানের রিভিউ, মিউজিশিয়ান- ফ্যান্স ইন্টারেকশন, ইভেন্ট পার্টনারশিপ, ফ্যান্স কনটেস্ট, ট্রিবিউট টু ব্যান্ড, গানের কভার, অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার-এর পাশাপাশি সারা দিনই ব্যান্ড মিউজিক সম্পর্কিত নানাবিধ আলোচনা হয়ে থাকে।

ইতোমধ্যে ৭ বছরে পদার্পণ করেছে বাংলাদেশি ব্যান্ড মিউজিক ফ্যান্স কমিউনিটি। এ নিয়ে গ্রুপটির হেড অব অ্যাডমিন সোহানকে বিবিএমএফসির পথচলা এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে জানতে চাইলে বলেন, ‘২০১৪ সালের শেষদিকে আমি, শুভ, রাজিব, আদিত, শাহবাজ, আসিফ, তপু, মিলে একটি টিম গঠন করে কাজ শুরু করি। তখন ব্যান্ডের বিভিন্ন গান, গানের রিভিউ, ছবি, কনসার্টের ভিডিও সহ অনেক কিছু নিয়ে গ্রুপে আলাপ আলোচনা শুরু হতে থাকে।’

পরে তাদের এই আগ্রহে উৎসাহ বাড়ান অর্থহীন ব্যান্ডের সুমন। গ্রুপে বেসবাবা শুভেচ্ছা জানানোয় বিশাল উৎসাহের ব্যাপার ছিল ফ্যান্সদের জন্য। ২০১৬ সালে ব্যান্ড মিউজিসিয়ানদের নিয়ে ধানমন্ডির একটি ইনডোর ভেন্যুতে অফিশিয়াল গেট টুগেদারে আয়োজন করে বিবিএমএফসি। যেখানে উপস্থিত ছিল— আর্টসেল, শিরোনামহীন, পাওয়ারসার্জ, মেকানিক্স, দৃক, ওয়ারসাইট’র মতো ব্যান্ডের মেম্বাররা।  

গ্রুপটির আজকের অবস্থানে আসার পেছনে একটু অতীতেই ফিরলেন সোহান, ‘২০১৭ সালের ৩০ ডিসেম্বর ঢাকার টিসিবি অডিটোরিয়ামে ব্যান্ড মিউজিক ইতিহাসের সবচেয়ে বড় গেট টুগেদারের আয়োজন করি আমরা। ফিডব্যাক, রকস্ট্রাটা, মাইলস, অর্থহীন, শিরোনামহীন, আর্টসেল, ভাইকিংস, শূন্য, নেমেসিস, পাওয়ারসারজ, মেকানিক্স থেকে শুরু করে সে সময়ে উদীয়মান ব্যান্ডদের মধ্যে আপেক্ষিক, ওয়ারসাইট, অনকোর-সহ বাংলাদেশের প্রায় সব ব্যান্ডের উপস্থিতি সারা দেশের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে সাড়া ফেলে দিয়েছিল।’

বিবিএমএফসির জন্মদিনের পরদিন ২০১৮ সালে পরপারে পাড়ি জমান দেশের কিংবদন্তি ব্যান্ড সংগীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। শোকের ছায়া নেমে আসে বাংলাদেশের সংগীত জগতে। তখন গ্রুপটি সিদ্ধান্ত নেয়, আইয়ুব বাচ্চুকে উৎসর্গ করে ৩০ অক্টোবর বিবিএমএফসির জন্মদিন সেলিব্রেশন করার।

কিন্তু স্পনসর জটিলতা এবং করোনা মহামারির কারণে সবকিছু স্থবির হয়ে যাওয়ায় সেই পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। অবশ্য আশা ছাড়েনি বিবিএমএফসি। শিগগিরই সব মিউজিশিয়ানদের নিয়ে অনেক বড় আকারে গেট টুগেদার আয়োজন করার ইচ্ছে গ্রুপটির।

বিবিএমএফসি অ্যাডমিন প্যানেলের সবারই একজন আরেকজনের সঙ্গে পরিচয় গান-গল্প-আড্ডায়। বর্তমানে গ্রুপটির অ্যাডমিনে যুক্ত আছেন— সোহান (হেড অব অ্যাডমিন), শাহবাজ, আদিত, শিবলী (সিনিয়র অ্যাডমিন)। সিহাব, রিফাত, ফয়সাল (জুনিয়র অ্যাডমিন)। তৌহিদুল, নিলয় (মডারেটর)।

এছাড়া, গ্রুপ অ্যাডভাইজার হিসাবে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন এহসানুল হক টিটু এবং রাজু আহম্মেদ।