যে কারণে ফেসবুকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তসলিমা নাসরিন|324818|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১ নভেম্বর, ২০২১ ১৯:৫১
যে কারণে ফেসবুকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তসলিমা নাসরিন
অনলাইন ডেস্ক

যে কারণে ফেসবুকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তসলিমা নাসরিন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ৭ দিন নিষিদ্ধ ছিলেন জনপ্রিয় লেখিকা তসলিমা নাসরিন। কারণ হিসেবে তসলিমা দাবি করেছেন, তিনি কুমিল্লায় মন্দিরে কোরান রাখার ঘটনায় সত্য বলেছিলেন। সত্য বলার জন্যই তাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল এই সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম থেকে। তবে কবে নাগাদ তাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল তা জানাননি এই লেখিকা।

 টুইটারে তসলিমা নাসরিন লিখেছেন, ‘পবিত্র কোরআন অবমাননার অভিযোগে বাংলাদেশে হিন্দুদের বাড়িঘর ও মন্দিরে ভাঙচুর চালানো হয়। পরে জানা যায়, হিন্দুরা নয়, এ কাজ করেছেন ইকবাল হোসেন। এখন জানা যাচ্ছে, এ নিয়ে লেখায় ফেসবুক আমাকে নিষিদ্ধ করে। ইসলামপন্থীরা নিশ্চুপ ছিলেন, তারা ইকবালের বিরুদ্ধে কিছুই বলেননি। এ নিয়ে কথা বলায় ফেসবুক আমাকে নিষিদ্ধ করে।’

তসলিমা নাসরিনকে এর আগেও নিষিদ্ধ করেছিল ফেসবুক। এ বছরের ১৬ মার্চে এ লেখিকা অভিযোগ করেন, ফেসবুক তাকে ২৪ ঘণ্টার জন্য নিষিদ্ধ করেছে। তারও আগে ২০১৫ সালে মার্কিন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম জায়ান্ট তসলিমার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিষ্ক্রিয় করে দেয়।

ফেসবুকের নিয়ম অনুযায়ী, কেউ যদি তাদের ‘বিদ্বেষমূলক বক্তব্য’ নীতি লঙ্ঘন করে, তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ অর্থাৎ ব্যান করে দেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে ফেসবুকের নীতিতে বলা হয়েছে, ‘আমরা বিদ্বেষমূলক যেকোনো বক্তব্য মানুষের বিরুদ্ধে সরাসরি আক্রমণ হিসেবে বিবেচনা করি।’ জাতি, জাতিসত্তা, বংশপরিচয়, শারীরিক অক্ষমতা, ধর্মীয় পরিচয়, বর্ণ, লিঙ্গ, লিঙ্গ পরিচয় ও গুরুতর রোগ নিয়ে বিদ্বেষমূলক মন্তব্য বিবেচনায় নিয়ে অ্যাকাউন্ট বন্ধ বা নিষিদ্ধ হয়।