ঢাবির শতবর্ষ উদযাপনে থিয়েটার বিভাগের নাটক|330921|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৯:০২
ঢাবির শতবর্ষ উদযাপনে থিয়েটার বিভাগের নাটক
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাবির শতবর্ষ উদযাপনে থিয়েটার বিভাগের নাটক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তি উপলক্ষে থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগ মঞ্চে আনতে যাচ্ছে ইতিহাস পাঠ ও মানবতার মুক্তি বিষয়ক গবেষনাধর্মী বিশেষ নাট্য পরিবেশনা।

‘উদয়ের পথে এই আলোকতীর্থে’- শীর্ষক পরিবেশনাটিতে ১৭৫৭ সালে পলাশীর প্রান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনা থেকে শুরু করে উঠে এসেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্ম, বৃটিশবিরোধী আন্দলন, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দলন, ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা, ১৯৬৯ এর গণ অভ্যুত্থান, মহান মুক্তিযুদ্ধ, সামরিক শাষন, স্বৈরাচারী শাষন, যুদ্ধাপরাধীর বিচারসহ নানান যৌক্তিক আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবময় অবদান।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের গান, গণসংগীত, মুক্তিরগানসহ আরও  ৩ টি মৌলিক গানের  ব্যবহার করে পরিবেশনাটির গল্পের কাঠামো তৈরী করা হয়েছে।

বিভাগের শিক্ষক নাভেদ রহমানের নির্দেশনা ও পরিকল্পনায় স্নাতকোত্তর এবং স্নাতক অষ্টম, ষষ্ঠ, চতুর্থ ও দ্বিতীয় সেমিস্টারে অধ্যায়ণরত ৫৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন পরিবেশনাটিতে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত শতবর্ষ পূর্তি অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিন, ৩রা ডিসেম্বর সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হবে পরিবেশনাটি। বিভাগের চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান লিয়নের মূল ভাবনা ও সমন্বয়ে বিভাগের স্নাতকোত্তর বর্ষে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের গবেষনায় ‘উদয়ের পথে এই আলোকতীর্থে’ পরিবেশনাটির পাণ্ডুলিপি নির্মাণ ও সূচনা সংগীত রচনা করেছেন শংকর কুমার বিশ্বাস। দুটি মৌলিক গান রচনা করেছেন বিভাগের শিক্ষক শাহমান মৈশান। সুর, সংগীত ও পোশাক পরিকল্পনা করেছেন কাজী তামান্না হক সিগমা। কোরিওগ্রাফি করেছেন অমিত চৌধুরী এবং মহড়া ও আবহ সংগীত তত্ত্বাবধান করেছেন মনোহর চন্দ্র দাস। মহড়ার সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন তানভীর নাহিদ খান।

নাট্য পরিবেশনাটির প্রধান সমন্বয়ক ও বিভাগের চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান লিয়ন বলেন, ‘সাংস্কৃতিক মুক্তির উপরেই নির্ভর করে একটি দেশের আর্থ সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নয়ন। এই মুক্তির সংগ্রামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চিরকাল অটুট। তারই ধারাবাহিকতায় থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগ শুধুমাত্র আনন্দ ও শিল্পরস আস্বাদনের জন্য নয় বরং এই জাতির ইতিহাস, রাজনীতি, উন্নয়ন ও মুক্তির কথা আমলে রেখে কাজ করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। আর এরই একটি ধারাবাহিক রূপ হলো এই বিশেষ নাট্য পরিবেশনা।’