চিকিৎসাব্যয়ে জর্জরিত ফারুক|339252|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০
চিকিৎসাব্যয়ে জর্জরিত ফারুক
আল মাসিদ

চিকিৎসাব্যয়ে জর্জরিত ফারুক

একসময় নায়ক ফারুকের ছবির প্রতীক্ষায় থাকতেন দর্শক। চলচ্চিত্রের পর্দায় নেই বহু বছর, তবু এখনো তার প্রতি ভক্ত-অনুরাগীর আগ্রহের কমতি নেই। চলচ্চিত্রের মিয়া ভাইখ্যাত অভিনেতা আকবর হোসেন পাঠান ফারুক দশ মাসের বেশি সময় ধরে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঢাকার এই সংসদ সদস্যের শারীরিক অবস্থার কখনো উন্নতি, আবার কখনো অবনতি হচ্ছে। রয়েছে নানা শঙ্কাও। তবে কখনো হাল ছাড়েননি তার পরিবারের সদস্যরা। চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসা। ফারুকের চিকিৎসার জন্য এরই মধ্যে বিক্রি করতে হয়েছে প্রায় পনেরো কোটি টাকা মূল্যের দুটি ফ্ল্যাট। ব্যাংক অ্যাকাউন্টও শূন্য হয়েছে। পাশাপাশি স্বজনদের কাছ থেকে ধারদেনা করতে হয়েছে। পাঁচ মাস আগে তাকে আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়। তার স্ত্রী ফারহানা পাঠান শুরু থেকেই স্বামীর সেবার জন্য সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে রয়েছেন। সেখান থেকে তিনি বলেন, ‘ফারুকের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। এখন নিজের পছন্দের সব ধরনের খাবার খেতে পারছেন। রক্তচাপ ও মস্তিষ্কে যে সমস্যা ছিল, তাও এখন নিয়ন্ত্রণে। স্নায়ুতন্ত্রে নতুন কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছে, যা আগে ছিল না। চিকিৎসকরা বলেছেন, এর চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি। তাই ধৈর্য ধরে চিকিৎসা চালাতে হবে। তবে ফারুক কবে নাগাদ পুরোপুরি সুস্থ হবেন তা নির্দিষ্ট করে জানাতে পারছেন না চিকিৎসকরা। আমি আশাবাদী, দ্রুতই সুস্থ হয়ে উঠবেন তিনি।’ ফারহানা আরও বলেন, ‘কাজপাগল মানুষটি কাজ করতে চান। সংসদীয় এলাকার অনেক কাজকর্ম জমা পড়ে আছে। আশা করছি, দেশে ফিরেই কাজগুলো করবেন। তার জন্য দোয়া করবেন সবাই।’

হাসপাতালে কীভাবে সময় কাটছে ফারুকের জানতে চাইলে ফারহানা পাঠান বলেন, ‘ইবাদত-বন্দেগি করছেন। আল্লাহর কাছে দোয়া চেয়ে চোখের পানি ফেলেন। সারাক্ষণই চিকিৎসকরা কেবিনে আসা-যাওয়া করছেন। তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলছেন। দুই সন্তানকে ঢাকায় রেখে এক বছর ধরে একাই হাসপাতালে আছি। সন্তানদের জন্য সব সময় ফারুকের মনটা অস্থির থাকে। ভিসা জটিলতায় সন্তানরা তার বাবার সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করতে পারছে না। ট্যুরিস্ট ভিসা পেলেও একটু দেখে যেতে পারত। সেটাও সম্ভব হচ্ছে না।’ ফারহানা জানান, ‘সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথে চিকিৎসা অনেক ব্যয়বহুল, যেজন্য সম্পত্তি বিক্রি করতে হয়েছে। সন্তানরা দেশে থেকে তার বাবার জন্য টাকা পাঠাচ্ছে। সহায়-সম্পত্তি সব চলে গেলেও আফসোস নেই। আপনাদের মিয়া ভাই দ্রুত সুস্থ হয়ে সবার মাঝে ফিরে আসুক, এটাই একমাত্র চাওয়া। ফারুক তো আমার একার নয়, পুরো বাংলাদেশের। দেশে সবাই তার অপেক্ষায় আছেন।’

ফারুকের একমাত্র ছেলে রওশন হোসেন পাঠান শরৎ বলেন, ‘দীর্ঘদিন আব্বু সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন। তার চিকিৎসার খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এরই মধ্যে বারিধারার দুটি ফ্ল্যাট বিক্রি করেছি। সেখানে আমরা থাকিনি। এর আগেই বিক্রি করতে হলো। আব্বু হাসপাতালে বেশিদিন থাকলে আরও টাকা লাগতে পারে। স্বজনদের কাছ থেকেও দেনা করেছি। আব্বুর সুস্থতার জন্য শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করব। সরকারও সহযোগিতা করেছে, যা প্রয়োজনের তুলনায় কম। যেটুকু সহযোগিতা পেয়েছি, তাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। বিপদের সময় তিনি আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন।’ শরৎ আরও বলেন, ‘আব্বুর সঙ্গে মাঝেমধ্যে যোগাযোগ হয়। তিনি আমাদের দুশ্চিন্তা করতে নিষেধ করেছেন। তার রোগমুক্তির জন্য শুভাকাক্সক্ষীদের কাছে দোয়া চাচ্ছি।’

সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে আট বছর ধরে চিকিৎসাসেবা নেন ফারুক। সর্বশেষ ২০২০ সালে অক্টোবর মাসের শেষদিকে চিকিৎসা শেষে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে আসেন তিনি। এর কিছুদিন পর করোনায় আক্রান্ত হন। চিকিৎসকরা আগেই বলে দিয়েছিলেন, পুরনো বেশ কিছু শারীরিক জটিলতা থাকায় মাঝেমধ্যে ফারুকের শরীর খারাপ হতে পারে। সেজন্য তিন মাস পরপর রুটিন চেকআপে থাকতে হবে। গত বছরের মার্চে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সিঙ্গাপুরে যান ফারুক। এরপর থেকেই অসুস্থতা অনুভব করছিলেন তিনি। চিকিৎসকের পরামর্শে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। পরে তার মস্তিষ্কে সংক্রমণ ধরা পড়ে। একই সময় চিকিৎসকরা জানান রক্তে দুটি সংক্রমণও রয়েছে। মার্চ মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত একদম অচেতন ছিলেন তিনি। এক মাসের বেশি সময় ধরে কথা বলতে পারেননি ফারুক। এপ্রিলে তার অসুস্থতা আরও বাড়তে থাকে।

এইচ আকবর পরিচালিত ‘জলছবি’ দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন ফারুক। এ ছবিতে তার নায়িকা ছিলেন কবরী। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র খান আতাউর রহমানের পরিচালনায় ‘আবার তোরা মানুষ হ’ ও নারায়ণ ঘোষ মিতার ‘আলোর মিছিল’ ছবিতে অভিনয় করে প্রতিভার স্বাক্ষর রাখেন তিনি। তার অভিনীত ‘সুজন সখী’ ও ‘লাঠিয়াল’ ব্যাপক প্রশংসিত হয়। অর্জন করেন ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তা। ‘সখী তুমি কার’ ছবিতে শাবানার বিপরীতে শহুরে ধনী যুবকের চরিত্রে অভিনয় করে সমালোচকদের প্রশংসা কুড়ান তিনি। ১৯৮৭ সালে ‘মিয়াভাই’ চলচ্চিত্রের সাফল্যের পর তিনি চলচ্চিত্রাঙ্গনে ‘মিয়াভাই’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। ২০১৮ সালে ঢাকা-১৭ আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হন তিনি।