আশাবাদী মিশা-জায়েদ প্যানেল|339641|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০
আশাবাদী মিশা-জায়েদ প্যানেল
সুদীপ্ত

আশাবাদী মিশা-জায়েদ প্যানেল

আগামী ২৮ জানুয়ারি, শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০২২-২৪ মেয়াদের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের বিপরীতে ভোটে লড়বেন মিশা-জায়েদ প্যানেল। গতবারের মতো এবারও সভাপতি পদে মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খান নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন। ১২ জানুয়ারি, বুধবার পুরো প্যানেলের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তারা। গত কমিটির বেশিরভাগ সদস্যকে নিয়েই এবারের মিশা-জায়েদ প্যানেল সাজানো হয়েছে। আর এতে চমক হিসেবে যুক্ত হয়েছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী।

সভাপতি প্রার্থী মিশা সওদাগর বলেন, ‘বরাবরের মতোই আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। কারণ, আমি শিল্পীদের সেবা করতে এসেছি, সেবা করে যাব। সবাই আমাদের পাশে থাকবেনএটা প্রত্যাশা করি। আর হারজিত থাকবেই। আমি পরাজয় বরণ করে নিতেও প্রস্তুত।’

সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান তার লক্ষ্য নিয়ে বলেন, ‘গতবার আমরা নির্বাচনের আগে যে কয়টি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম তার সবই পালন করেছি। এর মধ্যে একটা ইশতেহার এখনো পূরণ করতে পারিনি। সেটা হলো ভূমিহীন শিল্পীদের জন্য কিছু করা। কাজটি পারিনি করোনা মহামারীর কারণে। কারণ তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। কিন্তু করোনার কারণে তার সঙ্গে দেখা করা সম্ভব হয়নি। এবার এটাই আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। যারা ভূমিহীন আছেন। তারা পুরো জীবন সিনেমায় কাটিয়ে দিয়েছেন। তবে ভালো পারিশ্রমিক পাননি। এবার শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হলে তাদের জন্য বাসস্থানের বিষয়ে বেশি গুরুত্ব দেব। এটা নিয়ে সর্বোচ্চ পর্যায়ে কথা বলব।’

তিনি আরও বলেন, ‘চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়নে সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করব। বিশেষ করে সিনেমা হলের উন্নয়ন, সিনেমার সংখ্যা বাড়ানোযদিও এগুলো শিল্পী সমিতির কাজ নয়। শিল্পী সমিতির কাজ শিল্পীদের স্বার্থরক্ষা করা। তারপরও চলচ্চিত্রের জন্য এসব করব আমরা।’

জায়েদ খানের বিরুদ্ধে ওঠা নানা অভিযোগ নিয়ে তিনি বলেন, ‘নানা সময়েই নানা অভিযোগ করেছে অনেকে এটা ঠিক। তবে আমি কোনো কিছুই একা করিনি। কারও বিরুদ্ধে কিছু করিনি। যা করেছি সমিতির ২১ জনের মতামতের ভিত্তিতেই।’

এদিকে মিশা-জায়েদ প্যানেলের বিশেষ চমক হচ্ছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী। গতবারের নির্বাচনে চিত্রনায়িকা মৌসুমীর সঙ্গে বিবাদে জড়িয়েছিলেন মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান। এবারের নির্বাচনে একই প্যানেল থেকে কার্যকরী পরিষদে নির্বাচন করছেন মৌসুমী। মৌসুমী বলেন, ‘আমি অনেক শিল্পীদের কাছ থেকে শুনেছি মিশা-জায়েদ অনেক কাজ করেছে। বিগত দিনের সব কাজই তারা (মিশা-জায়েদ প্যানেল) ভালো করেছে। আমি তাদের সেই ভালো কাজের সমর্থক হিসেবে এই প্যানেলে দাঁড়িয়েছি। আমাকে অনুরোধ করেছেন বলেই প্রার্থী হয়েছি। এ ছাড়া বিভেদ করে তো কিছু নেই। আমি চাই সবাই মিলেমিশে থাকি।’

মিশা-জায়েদ প্যানেলে যারা রয়েছেন তারা হলেনসভাপতি মিশা সওদাগর, সহ-সভাপতি পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজল ও রুবেল, সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খান, সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে সুব্রত, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে আলেকজান্ডার বো, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদে জয় চৌধুরী, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক জে কে আলমগীর, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে জাকির হোসেন, কোষাধ্যক্ষ পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ফারহান।

এই প্যানেলের কার্যকরী পরিষদের সদস্য পদে নির্বাচন করছেন, অভিনেত্রী রোজিনা, অঞ্জনা, সুচরিতা, অরুণা বিশ্বাস, চিত্রনায়িকা মৌসুমী, অভিনেতা আসিফ ইকবাল, বাপ্পারাজ, আলীরাজ, নাদের খান ও হাসান জাহাঙ্গীর।

এবারের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে কমিশনারের দায়িত্ব পালন করবেন পীরজাদা হারুন। আর দুজন সদস্য হলেন বিএইচ নিশান ও বজলুর রাশীদ চৌধুরী। আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন সোহানুর রহমান সোহান। আপিল বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে মোহাম্মদ হোসেন জেমী ও মোহাম্মদ হোসেনকে।