চীনে জন্মহার তলানিতে|339739|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ১৩:৪৮
চীনে জন্মহার তলানিতে
অনলাইন ডেস্ক

চীনে জন্মহার তলানিতে

২০২১ সালে চীনে জন্মহার তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। দেশটির ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকস সোমবার এ বিষয়ে নতুন একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের মূল ভূখণ্ডে ২০২১ সালে প্রতি এক হাজারে সন্তান জন্মদানের হার ছিল মাত্র ৭ দশমিক ৫২ শতাংশ।

দেশটিতে দীর্ঘদিন ধরে চলা এক সন্তান নীতির কারণেই মানুষের মধ্যে সন্তান জন্মদানের আগ্রহ কমেছে। যদিও সরকার এই নীতি তুলে নিয়ে দম্পতিদের তিনটি পর্যন্ত সন্তান নেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে। কিন্তু তারপরেও পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে না।

কয়েক দশকের এক সন্তান নীতি ২০১৬ সালে বাতিল করে চীন। এরপরেই দম্পতিদের দুটি করে সন্তান নেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। দেশটিতে দীর্ঘদিন এক সন্তান নীতির প্রচলনের কারণে সেখানে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা দ্রুত বেড়ে যাচ্ছিল।

এ অবস্থায় ভারসাম্য টিকিয়ে রাখতে সরকার দুটি করে সন্তান নেওয়ার অনুমোদন দেয়। কিন্তু বেশির ভাগ দম্পতিই এতে সাড়া দেয়নি। শহুরে জীবনে ব্যয় অনেক বেশি হওয়ায় তারা সন্তান নেওয়ার বিষয়ে আগ্রহী নন।

এর আগে ১৯৪৯ সালে জন্মহার ছিল সর্বনিম্ন। ওই বছর থেকেই এ বিষয়ে তথ্য রাখা শুরু করে ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকস। ওই পরিসংখ্যানে বলা হয়, অভিবাসী বাদে চীনের জনসংখ্যার স্বাভাবিক বৃদ্ধি ২০২১ সালে ছিল মাত্র ০.০৩৪ শতাংশ। ১৯৬০ সালের পর এ হার ছিল সর্বনিম্ন।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে, ২০২১ সালে জন্মহার যেখানে এসে দাঁড়িয়েছে, তা ১৯৪৯ সালের পর সর্বনিম্ন।

২০২১ সালে চীনে মোট শিশু জন্ম নিয়েছে এক কোটি ৬ লাখ ২০ হাজার। এর আগের বছর অর্থাৎ ২০২০ সালে এই সংখ্যা ছিল এক কোটি ২০ লাখ। ওই বছর প্রতি এক হাজারে জন্মহার ছিল ৮ দশমিক ৫২ শতাংশ।

চীনের যে এই ব্যাপক উন্নত অর্থনীতির এর পিছনে রয়েছে বিপুল জনসংখ্যাই। কম খরচ করে বেশি কাজ করিয়ে দেশে উৎপাদন করা হয় পণ্য।

জনসংখ্যা কমলে অন্যান্য দেশে পণ্য চাহিদা যদি একই থাকে তাহলে কম লোক থাকার জন্য বেশি পণ্য তৈরি করতে পারবে না তারা। পাশাপাশি ওই কম টাকায় বেশি খাটিয়ে নেওয়ার নীতিও বন্ধ করতে হবে। বেশি টাকায় কাজ করাতে হবে। প্রশাসনের উপর তখন অর্থনৈতিক টানের প্রভাব পড়তে বাধ্য। অর্থাৎ বড় প্রভাব পড়তে পারে চীনা অর্থনীতিতে।

এক সময় চীনে জন বিস্ফোরণ শুরু হয়েছিল। তা ঠেকাতে ১৯৭৯ সালে এক সন্তান নীতি চালু করেছিল চীন সরকার। যা চীনের অর্থনীতিতে ভালো প্রভাব ফেলেছিল। মানুষের সঞ্চয়ের জায়গা বেড়েছিল কিন্তু পরে দেখা যায় সেখানকার বয়স্কদের দেখাশোনার জন্য লোকজনের অভাব দেখা যাচ্ছিল। অনেক পরিবার আবার সন্তানহীন হয়ে পড়েছিল।