ফলাফল বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ নেবে বিএবি-এবিবি|340801|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০
ব্যাংককর্মীদের বেতন বৃদ্ধির নির্দেশনার প্রতিক্রিয়া
ফলাফল বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ নেবে বিএবি-এবিবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

ফলাফল বিশ্লেষণ করে পদক্ষেপ নেবে বিএবি-এবিবি

কর্মীদের বেতন বাড়ানোর বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনা ব্যাংক খাতে কী ধরনের প্রভাব ফেলবে তা পর্যালোচনা করবেন ব্যাংক নির্বাহী সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশের (এবিবি) নেতারা। এ ছাড়া ব্যাংক পরিচালকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) নেতারাও বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরের সঙ্গে দেখা করে তাদের বক্তব্য জানাবেন।

বিএবি সভাপতি ও এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম গতকাল শনিবার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আমরা গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের চিঠি পেয়েছি। এরপর দুদিন সাপ্তাহিক ছুটি ছিল। রবিবার আমরা গভর্নরের সঙ্গে দেখা করার জন্য সময় চাইব। সময় দেওয়ার পর সেখানেই আমরা আমাদের বক্তব্য জানাব। ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা বেতন বাড়ানোর নির্দেশনা নিয়ে কিছু বলতে চাই না।’ এবিবির চেয়ারম্যান ও ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সেলিম আর এফ হোসেন বলেন, ‘রবি-সোমবার আমরা এবিবির নেতাদের নিয়ে এই নির্দেশনার ইমপ্যাক্ট অ্যানালাইসিস করে দেখব। তারপর আমরা এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আমাদের বক্তব্য তুলে ধরব। এর মধ্যেই আমাদের বক্তব্য নিয়ে অনেক ভুয়া তথ্য ছড়ানো হয়েছে, যা সঠিক নয়।’

গত বৃহস্পতিবার বেসরকারি ব্যাংকের কর্মীদের প্রবেশের সময় ন্যূনতম বেতন ২৮ হাজার টাকা নির্ধারণের নির্দেশনা দিয়ে একটি সার্কুলার জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। শিক্ষানবিশকাল পার হলে বেতন ৩৯ হাজার টাকা নির্ধারণ করতেও বলা হয় ওই সার্কুলারে। এ ছাড়া এমডির অব্যবহিত নিচের পদগুলোতেও ওই হারে নতুন বেতনকাঠামো নির্ধারণ করতে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আগামী ১ মার্চ থেকে এই বেতনকাঠামো কার্যকর করতে বলা হয়। এই বেতনকাঠামো কার্যকর করতে অনেক ব্যাংকের পরিচালন ব্যয় বেড়ে যাবে। কেননা, ব্যাংকের ব্যয়ের একটি বড় অংশ চলে যায় কর্মীদের বেতনের পেছনে।

তবে নতুন এই নির্দেশনা কার্যকর হলে ব্যাংকগুলোর খরচ কী পরিমাণ বাড়বে, তা এখনই বলতে পারছেন না ব্যাংক নির্বাহীরা। এ জন্য তাদের ইমপ্যাক্ট অ্যানালাইসিসের প্রয়োজন হবে বলে জানান মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘আমরা এখনো এই নির্দেশনার ফলাফল কী হবে তা বিশ্লেষণ করতে পারিনি। এটা নিয়ে আমরা দ্রুতই আমাদের প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তার (সিএফও) সঙ্গে বসব। কেননা, এটার কেবল তাৎক্ষণিক প্রভাব রয়েছে তেমন নয়, ভবিষ্যৎ প্রভাবও রয়েছে। কেননা, কর্মীদের বেতন-ভাতা যে পরিমাণ বাড়বে, সেই পরিমাণ ব্যবসা করতে হলে কী করতে হবে তা-ও বিশ্লেষণ করতে হবে। এর আগে আমাদের পক্ষে কিছু বলা সম্ভব নয়।’