করোনা সংক্রমণ বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা|340812|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০
করোনা সংক্রমণ বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা
রূপান্তর ডেস্ক

করোনা সংক্রমণ বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা

স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। জনবহুল শহরগুলোতে বিপুল জনসমাগম যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে শারীরিক দূরত্ব না মানার প্রবণতা। আর মাস্কও ব্যবহার করছেন না অনেকেই। এভাবেই চলছে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন সংক্রমণ রোধে সরকারের ঘোষিত বিধিনিষেধের বাস্তবায়ন। ঢাকার বাইরের নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর :

খুলনা : নগরীতে ব্যাপক জনসমাগম রয়েছে। বিপরীতে নেই শারীরিক দূরত্ব। মাস্কবিহীন মানুষের দেখা বাড়ছে। খুলনায় এক দিনে বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্র থেকে শনিবার) বিভাগের ১০ জেলায় দুজনের মৃত্যু এবং ১৬৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বিভাগে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ২০০ জনে। এর আগে গত শুক্রবার ৪১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্ত সংখ্যা বিবেচনায় জেলাগুলোর মধ্যে শীর্ষে আছে খুলনা। এখানে ২৮ হাজার ৫৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের সংখ্যায় সবচেয়ে কম মাগুরায় ৪ হাজার ৪১৬ জন। এ ছাড়া করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে খুলনায়। এই জেলায় মারা গেছে ৮১০ জন। আর মৃতের সংখ্যায় সবচেয়ে কম সাতক্ষীরায় ৮৮ জন।

খুলনা মহানগরীর প্রাণ কেন্দ্র ডাকবাংলা মোড়ে দেখা যায়, ব্যস্ত সময় পার করছেন নগরীতে আসা মানুষ। এদের অধিকাংশের মুখেই নেই মাস্ক। নগরে মানুষের চলাচলও স্বাভাবিক। মার্কেটের দোকানগুলোতেও রয়েছে উপচে পড়া ভিড়। একই অবস্থা নগরীর ফুলবাড়ি গেট, দৌলতপুর, সাত রাস্তার ও শিববাড়ি মোড়ে।

খুলনা ২০০ শয্যা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ফোকাল পারসন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। আর শুক্রবার সকাল পর্যন্ত হাসপাতালের ১৭ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। এর মধ্যে রেডজোনে ৮ জন এবং ইয়েলো জোনে ৯ জন চিকিৎসাধীন।

খুলনার সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চললে সংক্রমণ প্রতিরোধ করা সম্ভব।   

বরিশাল : গতকাল শনিবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় বরিশাল বিভাগে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা প্রায় চারভাগের একভাগে নামলেও শনাক্তের হার এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে ১৩১ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ৫২ জন রোগীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৩৯ দশমিক ৬৯ শতাংশ। এর মধ্যে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি পিসিআর ল্যাবে ১০৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে বরিশালে সর্বোচ্চ ৩৬, পটুয়াখালীতে ১, ভোলায় ১০, পিরোজপুরে ১ ও ঝালকাঠিতে ৪ জন আছেন।

বরিশালের বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক শ্যামল কৃষ্ণ ম-ল বলেন, পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতি হচ্ছে এবং সেটা খুব দ্রুততার সঙ্গে। কিন্তু সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে মানুষের মধ্যে এ নিয়ে মাথাব্যথা কম। স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে এবার অনেক বেশি উদাসীন মানুষ।

ময়মনসিংহ : প্রতিদিন বেড়েই চলেছে সংক্রমণ। জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৩১১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৬১ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। এ নিয়ে গত ছয় দিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯৫ জনে দাঁড়িয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। অন্যদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান জানান, ১৪ জন নতুন ভর্তিসহ ৭৩ জন চিকিৎসাধীন। আইসিইউতে আছেন তিনজন।

এদিকে, উন্মুক্ত স্থানে জনসমাগম না করাসহ সরকারি বিধিনিষেধ মানুষকে মানতে দেখা যায়নি। বরাবরের মতোই কাঁচাবাজারগুলোতে উপেক্ষিত ছিল স্বাস্থ্যবিধি। খুব কমসংখ্যক মানুষ মুখে মাস্ক পরলেও অনেকে মাস্ক মুখের নিচে ঝুলিয়ে রাখছেন। গণপরিবহন, শপিংমল থেকে শুরু করে সর্বত্র চলাফেরায় স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব উপেক্ষিত দেখা গেছে।

হবিগঞ্জ : সচেতনতার অভাবে দিন দিন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংক্রমণ বাড়লেও হাট-বাজার, বাস-টার্মিনালসহ জনবহুল এলাকা ঘুরে দেখা গেছে মাস্ক ব্যবহারকারীর সংখ্যা খুবই কম। প্রশাসন করোনা সংক্রমণরোধে পরামর্শমূলক মাইকিং করে দায় সারছে।

গতকাল শনিবার হাসপাতাল, বাস টার্মিনাল, বাজারহাটসহ বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা গেছে, মাস্ক ব্যবহারকারীর সংখ্যা খুবই কম। করোনার শুরুতে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে হাত ধোয়ার জন্য যেসব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল তার অধিকাংশই নেই। বেসিন থাকলে কল নেই। কল থাকলে নেই সাবান বা পানি।