পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ|360243|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ১৪ মে, ২০২২ ০০:০০
চট্টগ্রামে যুবলীগের সম্মেলন
পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ
সুবল বড়ুয়া, চট্টগ্রাম

পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ

৯ থেকে ১৮ বছরের পুরনো চট্টগ্রাম উত্তর ও দক্ষিণ জেলা এবং চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সম্মেলনের দিনক্ষণ নির্ধারণ হওয়ার পর নড়েচড়ে বসেছেন পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীরা। এসব কমিটির কাণ্ডারি হতে পদপ্রত্যাশীরা কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে নানাভাবে ধরনা দিতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তবে কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, চট্টগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ এই তিন জেলা ইউনিট যোগ্য নেতৃত্বের কাছেই যাবে।

জানা গেছে, ২৮ মে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের, ২৯ মে উত্তর জেলা যুবলীগের ও ৩০ মে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সম্মেলনের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। সম্প্রতি চট্টগ্রাম যুবলীগের গুরুত্বপূর্ণ এই তিন ইউনিটের সম্মেলনের দিনক্ষণ নির্ধারণ হওয়ার পর থেকেই পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে ওঠেন। নানা অনুষ্ঠানে যোগদান এবং নগরী ও জেলায় কেন্দ্রীয় নেতাদের ছবিযুক্ত বিভিন্ন ব্যানার-পেস্টুন লাগিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা ব্যানারের মাধ্যমে প্রচার শুরু করেন তারা। এ ছাড়া পদপ্রত্যাশী অনেক নেতা রাজধানী ঢাকায় গিয়ে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে পদের জন্য ধরনা দিচ্ছেন। এদিকে সম্মেলনের সার্বিক প্রস্তুতির অগ্রগতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে চট্টগ্রাম উত্তর ও দক্ষিণ জেলা এবং মহানগর যুবলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম এবং সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান সোহাগ।

বৈঠক প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান মিজান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আসন্ন সম্মেলন সফল করতে কেন্দ্রীয় নেতারা বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। ভেন্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে, এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে সম্মেলন সুন্দরভাবে শেষ করতে পৃথক পৃথক কমিটি করতে বলা হয়েছে। সভায় উপজেলা ও জেলা নেতারা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় কাউন্সিল করার জন্য কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে দাবি জানান।’

এর আগে গত ২৬ মার্চ রাতে যুবলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক মো. মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে চট্টগ্রাম মহানগর এবং উত্তর ও দক্ষিণ জেলা যুবলীগের কমিটি গঠনের জন্য সভাপতি ও সম্পাদক পদপ্রত্যাশীদের জীবনবৃত্তান্ত পাঠানোর আহ্বান জানানো হয়। গত ২ থেকে ৫ এপ্রিল সময়ের মধ্যে যুবলীগের প্রধান কার্যালয়ের দপ্তর শাখায় এসব জীবনবৃত্তান্ত জমা দিতে বলা হয়। যার ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম মহানগর এবং উত্তর ও দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের ছয়টি শীর্ষ পদ পেতে আগ্রহী ১৯১ জনের জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১০৮টি জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়েছে চট্টগ্রাম মহানগরে। আর উত্তর জেলায় ৩১ ও দক্ষিণ জেলায় ৫২ জনের জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়ে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সভাপতি পদের জন্য জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন ৩৫ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৭৩ জন। উত্তর জেলায় সভাপতি পদে ৯ ও সাধারণ সম্পাদক পদে ২২ জন এবং দক্ষিণ জেলায় সভাপতি পদে ১৩ ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য ৩৯ জন জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন।

প্রায় ৯ বছরের পুরনো চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের বর্তমান কমিটি। আসন্ন নতুন কমিটির শীর্ষ দুই পদে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা হলেন, নগর যুবলীগের বর্তমান কমিটির দুই যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুবুল হক সুমন ও দিদারুল আলম, আবু সাঈদ সুমন, সুরজিত বড়ুয়া লাভু, নগর ছাত্রলীগের স্টিয়ারিং কমিটির দুই নেতা এম আর আজিম ও হাসান মুরাদ বিপ্লব, দেবাশীষ পাল দেবু, ওমর গণি, এমইএস কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস আরশেদুল আলম বাচ্চু, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি এবং চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি সুজন।

অন্যদিকে প্রায় ১৯ বছরের পুরনো উত্তর জেলা যুবলীগের বর্তমান কমিটি। নতুন কমিটিতে সভাপতি ও সম্পাদক পদে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা হলেন বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম রাশেদুল আলম, উত্তর জেলা যুবলীগের বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সন্দ্বীপের মাইটভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান মিজান, সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান স্বপন, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাজিবুল আহসান সুমন, নুরুল মোস্তফা মানিক, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তৈয়ব, এস এম আল নোমান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ও সিটি কলেজের সাবেক ভিপি রাশেদ খান মেনন, চবি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এরশাদ হোসেন, এম এ খালেদ চৌধুরী, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল মনসুর জামশেদ।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের বর্তমান কমিটিও প্রায় ৯ বছরের পুরনো। এই ইউনিটের নতুন কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা হলেন বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক পার্থ সারথি চৌধুরী, দিদারুল আলম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মোহাম্মদ ফারুক, শফিউল আজম শেফু, এম এ রহিম, নাসির উদ্দীন মিন্টু, মাঈন উদ্দিন চৌধুরী, আকতার হোসেন, মোহাম্মদ সোলাইমান, আবদুল হান্নান লিটন, নুরুল আমিন, কাজী মো. আলা উদ্দিন, ওসমান গনি, আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম, মহিউদ্দিন মহি ও মাহাবুবুল আলম।

সম্মেলন ও নতুন কমিটির বিষয়ে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সম্মেলনের প্রস্তুতিসংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনার জন্য কেন্দ্রীয় টিম চট্টগ্রামে অবস্থান করছে। আশা করি সুন্দর একটি সম্মেলন উপহার দিতে পারব। যোগ্য নেতৃত্বই নতুন কমিটিতে আসবে।’