চাঁদা না পেয়ে সিমেন্ট ব্যবসায়ীকে হাতুড়িপেটা|367295|Desh Rupantor
logo
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২২ ০০:০০
চাঁদা না পেয়ে সিমেন্ট ব্যবসায়ীকে হাতুড়িপেটা
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁদা না পেয়ে সিমেন্ট ব্যবসায়ীকে হাতুড়িপেটা

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় চাঁদার দাবিতে আবুল হোসেন (৩৮) নামে এক সিমেন্ট ব্যবসায়ীকে হাতুড়ি দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় যুবলীগ নেতা খালেক-মালেক বাহিনীর বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় ফতুল্লা থানার কুতুবপুর মুন্সিবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত সিমেন্ট ব্যবসায়ী বাদী হয়ে কুতুবপুরের খালেক, মালেকসহ আট জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৫-৬ জনের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, মুন্সিবাগ এলাকায় আবুল হোসেনের একটি সিমেন্ট বিক্রির দোকান আছে। একই এলাকায় যুবলীগ নামধারী নেতা খালেক-মালেকও সিমেন্টের ব্যবসা করে আসছে। নতুন করে আবুল এলাকায় দোকান দেওয়ায় তার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিল এই সন্ত্রাসীরা। এ নিয়ে বাদীকে প্রায় সময় হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বেলা ১১টার দিকে খালেক বাহিনীর প্রধান খালেক, আনোয়ার, দেলোয়ার, বাদশা, হিব্রু, কয়লা সাহাবুদ্দিন, ফকির খোকনসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৫-৬ জন সন্ত্রাসী হাতুড়ি, লোহার পাইপ, কাঠের টুকরো নিয়ে আবুলের সিমেন্টের দোকানে প্রবেশ করে চাঁদা দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করলে দোকান থেকে রাস্তায় টেনে এনে এলোপাতাড়ি মারধরসহ হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। এ সময় আবুল বাঁচার জন্য আর্তনাদ করলে তার মা, স্ত্রীসহ স্বজনরা এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা তাদেরও মারধর করে।

হামলার ঘটনাটি উৎসুক একজন মোবাইলে ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করে দেন। মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। এই ভিডিওতে দেখা যায় খালেক-মালেক বাহিনীর সন্ত্রাসীরা একটি দোকানের সামনে হাঁটু পানির ভেতরে এক যুবককে মারধর করছে। যুবককে রক্ষার্থে বোরকা পরিহিত এক মহিলা এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করে হামলাকারীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খালেক মুন্সি বলেন, আবুল হোসেনের সঙ্গে তার চাচার ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব। সেই দ্বন্দ্বের জের ধরে আবুল হোসেন তার চাচাকে হাতুড়ি দিয়ে  পেটায়। তিনি তা দেখতে পেয়ে চাচাকে রক্ষার্থে এগিয়ে যান।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা ফতুল্লা মডেল থানার এসআই মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থলে এসে তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয়দের সঙ্গে আলাপ করে জানতে পেরেছি অভিযুক্তরা খুবই খারাপ প্রকৃতির লোক। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।