logo
আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২২:২৪
১৯ জেলা পরিষদে আ.লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী নেই
অনলাইন ডেস্ক

১৯ জেলা পরিষদে আ.লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী নেই

আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১৯ জেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বিপরীতে আর কেউ মনোনয়নপত্র দাখিল করেননি। ফলে তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা পরিষদ (রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি) বাদে বাকি ৬১ জেলা পরিষদের নির্বাচন আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, ৬১ জেলায় চেয়ারম্যান পদে ১৬২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। সাধারণ সদস্য পদে এক হাজার ৯৮৩ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান ৭১৫ জন।

জেলা পরিষদে সংশ্লিষ্ট জেলার মোট উপজেলার সমসংখ্যক সাধারণ সদস্য থাকেন। চেয়ারম্যানসহ সদস্যসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশ (নিকটবর্তী পূর্ণ সংখ্যায়) নারী সদস্য নিয়ে পরিষদ গঠিত হয়। এ নির্বাচনে সাধারণ ভোটাররা ভোট দেন না। উপজেলা পরিষদ, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা এখানে ভোটার।

মনোনয়নপত্র বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর এবং মনোনয়নপত্র প্রত‌্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ২৬ সেপ্টেম্বর।

চেয়ারম্যান পদে একজন করে মনোনয়নপত্র দাখিল করা জেলাগুলো হলো গোপালগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ঝালকাঠি, টাঙ্গাইল, ঠাকুরগাঁও, নওগাঁ, নারায়ণগঞ্জ, ফেনী, বরগুনা, বাগেরহাট, ভোলা, মাদারীপুর, মুন্সিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, লক্ষ্মীপুর, লালমনিরহাট, শরীয়তপুর, সিরাজগঞ্জ ও সিলেট।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর এবং মনোনয়নপত্র প্রত‌্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ২৬ সেপ্টেম্বর। ভোট গ্রহণ হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকেরা এ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, জেলা পরিষদে সাধারণ ভোটাররা ভোট দেন না। স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত প্রতিনিধিরাই এখানে ভোটার। স্থানীয় সরকারব্যবস্থায় একচেটিয়া নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের। ফলে জেলা পরিষদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া মানেই জয় একরকম নিশ্চিত।

তফসিল ঘোষণার পর ৬১টি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে প্রায় ৫০০ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে আবেদন করেন। ১০ সেপ্টেম্বর রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথ সভায় ৬০টি জেলা পরিষদে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়।