logo
আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৮:৩২
হিজাব পরলে বৈচিত্র্যের বিষয়ে জানতে পারবে শিক্ষার্থীরা: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট
অনলাইন ডেস্ক

হিজাব পরলে বৈচিত্র্যের বিষয়ে জানতে পারবে শিক্ষার্থীরা: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের হিজাব পরার অনুমতি দেওয়া হলে তা ভারতের বৈচিত্র্য সম্পর্কে জানার সুযোগ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। কর্ণাটকের হিজাব নিষিদ্ধ মামলায় এমনই পর্যবেক্ষণ দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।

বিচারপতি হেমন্ত গুপ্তা এবং বিচারপতি সুধাংশু ধুলিয়ার বেঞ্চের মতে, পোশাকে অভিন্নতা রাখাটাই কর্ণাটক সরকারের প্রধান যুক্তি, সেক্ষেত্রে এই বিষয়টি উপেক্ষা করা যায় না যে, শ্রেণিকক্ষে বৈচিত্র্যের অনুমতি দেওয়া হলে ছাত্র-ছাত্রীরা সাংস্কৃতিকভাবে আরও সংবেদনশীল হিসেবে গড়ে উঠতে পারে।

গত ৯ দিন ধরে সুপ্রিম কোর্টে হিজাব মামলার শুনানি চলেছে। তাতে বেঞ্চের একাধিক পর্যবেক্ষণ এসেছে। বেঞ্চ জানায়, ‘কেউ এটাও বলতে পারে, এটি বৈচিত্র্য প্রকাশের একটি সুযোগ। আমাদের কাছে সমস্ত সংস্কৃতি, ধর্মের শিক্ষার্থী রয়েছে। দেশের বৈচিত্র্যের দিকে তাকান, তাদের প্রতি সাংস্কৃতিকভাবে সংবেদনশীল হোন’।

হিজাব নিষিদ্ধ করা নিয়ে কর্ণাটক সরকারের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়েছেন শিক্ষকরা। তাদের পক্ষে আইনজীবী আর ভেঙ্কটরমানি শিক্ষকদের পক্ষ থেকে হিজাবে আপত্তি জানান। তার পরেই বেঞ্চ প্রশ্ন তোলে, ‘শিক্ষার্থীরা স্কুল থেকে বের হয়ে গেলে আপনি কীভাবে তাদের তৈরি করবেন? যখন তারা বিশ্বের মুখোমুখি হবেন, তারা দেশের মহান বৈচিত্র্যের মুখোমুখি হবেন। সংস্কৃতিতে বৈচিত্র্য, পোশাকে বৈচিত্র্য, রান্নায় বৈচিত্র্য। সুতরাং, এটি তাদের প্রস্তুত করার একটি সুযোগও হতে পারে। এটি কিছু মূল্যবোধ জাগ্রত করার একটি সুযোগ হতে পারে। এটি একটি দৃষ্টিকোণও হতে পারে’। 

অন্যদিকে, কর্ণাটকের অ্যাডভোকেট জেনারেল প্রভুলিং কে নাভাদগির যুক্তি ছিল, শুধুমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শৃঙ্খলা নিশ্চিত করার জন্যই হিজাব নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তার আরও যুক্তি, কোরানে উল্লিখিত সমস্ত কিছুকে একটি অপরিহার্য ধর্মীয় অনুশীলন হিসাবে গণ্য করা যায় না। কারণ এই ধরনের ধারণা অবাস্তব।

বৃহস্পতিবার হিজাব সম্পর্কিত মামলার শুনানি শেষ হল সুপ্রিম কোর্টে। আপাতত এই মামলার রায়দান স্থগিত রাখল সুপ্রিম কোর্ট। এর আগে গতকাল এই মামলার শুনানি চলাকালীন উপরের গুরুত্বপূর্ণ পর্বেক্ষণ করেছিল ভারতের শীর্ষ আদালত।

প্রসঙ্গত, হিজাব বিতর্ক নিয়ে কর্ণাটক হাই কোর্টের রায়ে অসন্তুষ্ট হয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন মামলাকারীরা। কর্ণাটক হাই কোর্ট এর আগে রায় দেয়, হিজাব মুসলিমদের জন্য বাধ্যতামূলক নয়। সেই ক্ষেত্রে স্কুল বা কলেজের ইউনিফর্ম মেনেই ছাত্রীদেরকে শ্রেণিকক্ষে ঢুকতে হবে। এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ছাত্রীরা শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হন। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে শুনানি শেষ হয় আজ। এই আবহে হিজাব মামলা কোনদিকে মোড় নেয়, তা দেখার জন্য সবার নজর ভারতের শীর্ষ আদালতের দিকে।