logo
আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০১:৫৫
ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থগিত, স্থায়ী বহিষ্কার বিদ্রোহীরা
নিজস্ব প্রতিবেদক

ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কার্যক্রম স্থগিত, স্থায়ী বহিষ্কার বিদ্রোহীরা

পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন, বিক্ষোভ, সংঘর্ষের পর ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। এ ছাড়া ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে কলেজ কমিটির সভাপতির বিরোধীদের। 

সোমবার রাতে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য এসব সিদ্ধান্ত দেন।   

এতে বলা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ইডেন মহিলা কলেজ শাখার সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হলো।

আরো বলা হয়, শৃঙ্খলা পরিপন্থী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অপরাধে প্রাথমিকভাবে প্রাপ্ত প্রমাণের ভিত্তিতে ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সোনালি আক্তার, সুস্মিতা বাড়ৈ, জেবুন্নাহার শিলা, কল্পনা বেগম, তানজিলা আক্তার, জান্নাতুল ফেরদৌস, আফরোজা রশ্মি, মারজানা উর্মি, সানজিদা পারভীন চৌধুরী, এস এম মিলি, সাদিয়া জাহান সাথী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফাতেমা খানম বিস্তি ও সাংগাঠনিক সম্পাদক সামিয়া আক্তার বৈশাখি এবং কর্মী রাফিয়া নীলা, নোশিন শার্মিনী, জান্নাতুল লিমা, সূচনা আক্তারকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হলো।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জানানো যাচ্ছে যে অধিকতার তদন্তের মাধ্যমে এই বিশৃঙ্খলার সঙ্গে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের যারা জড়িত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

সিট বাণিজ্য ও চাঁদাবাজির অভিযোগ করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেওয়ায় শনিবার রাতে সহসভাপতি জান্নাতুলকে আটকে রেখে হেনস্তা ও মারধরের অভিযোগ ওঠে ইডেন ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়ার বিরুদ্ধে।  এ ঘটনায় গত শনিবার মধ্যরাত থেকেই কলেজ ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছিল। 

ঘটনা তদন্তে ছাত্রলীগ একটি কমিটি করেছে। এ ছাড়া জান্নাতুল প্রশাসনের কাছেও লিখিত অভিযোগ করেছেন। 
এ ঘটনায় রবিবার দুপুরে তাদের দুজন ক্যাম্পাসে ‘অবাঞ্ছিত’ ঘোষণা করেন কলেজ ছাত্রলীগের ২৫ নেত্রী। দুপুরে কলেজের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীনিবাসের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তারা।    

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ইডেন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সামিয়া আক্তার বলেন, ‘গত শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের উপস্থিতিতে তাদের অনুসারীরা হজরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) ছাত্রীনিবাসের সামনে সহসভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌসের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।’    

বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, ‘ক্যান্টিনের চাঁদাবাজি, ইন্টারনেট সার্ভিস থেকে চাঁদাবাজি, কলেজের মুদি দোকানে চাঁদাবাজি, অবৈধভাবে শতাধিক কক্ষ দখল করে রাখা, বিভিন্নভাবে ছাত্রীদের অনৈতিক কাজের প্রস্তাব দেওয়াসহ নানা অভিযোগ আছে তামান্না-রাজিয়ার বিরুদ্ধে। দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের এসব জানানো হলেও তাদের কাছ থেকে নিরপেক্ষ কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি।’   

পরে সন্ধ্যায়  দুপক্ষের সংঘর্ষে কলেজ শাখার সভাপতি তামান্না জেসমিন রিভা ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিতু আক্তার আহত হন বলে অভিযোগ।