logo
আপডেট : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:৫১
রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ৫ উইকেটের জয় পাকিস্তানের
ক্রীড়া ডেস্ক

রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ৫ উইকেটের জয় পাকিস্তানের

শেষ বলে প্রয়োজন ৭ রান। ছক্কা মারলেই কেবল টাই করতে পারবে ইংল্যান্ড। ম্যাচ গড়াবে সুপার ওভারে। অন্যথায় নিশ্চিত জয় পাকিস্তানের। এমন পরিসংখ্যানটা কঠিন করে জমিয়ে তুলতে পারলেন না ইংল্যান্ডের ব্যাটাররা। রোমাঞ্চকর লড়াই শেষে ৫ উইকেটের হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইংলিশরা। তাতে সিরিজে ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে যান বাবর আজমরা।

প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান করে ১৪৫ রান। জবাবে ইংল্যান্ডের ইনিংস শেষ হল ৭ উইকেটে ১৪০ রানে। ম্যাচ জিতে পাকিস্তান সিরিজ়ে এগিয়ে গেলেও ব্যাটিং নিয়ে চিন্তা থাকল বাবর আজমদের।

টস জিতে মইন এ দিন প্রথমে ব্যাট করতে ডাকেন পাকিস্তানকে। কিন্তু মোহাম্মদ রিজওয়ান ছাড়া পাকিস্তানের কোনো ব্যাটারই এ দিন রান পেলেন না। একা রিজওয়ানই টানলেন দলের ইনিংস। তিনি ৪৬ বলে ৬৩ রান করলেন। মারলেন দুটি চার এবং তিনটি ছয়। তার পর পাকিস্তানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান ইফতিকার আহমেদের ১৪ বলে ১৫।

ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণের সামনে প্রথম থেকেই ধারাবাহিক ভাবে উইকেট হারাতে শুরু করেন বাবররা। ৯ রান করে প্রথমে সাজঘরে ফেরেন বাবর। এর পর একে একে ফিরে যান শান মাসুদ (৭), হায়দর আলি (৪), আসিফ আলি (৫), মোহাম্মদ নওয়াজ (শূন্য), শাদাব খান (৭), আমির জামালরা (১০) আউট হন। শেষে নেমে রউফ করলেন ৮ রান। ১০ নম্বরে ব্যাট করতে নামা মোহাম্মদ ওয়াসিম অপরাজিত থাকেন ৬ রান করে।

ইংল্যান্ডের কোনো বোলারের সামনেই স্বচ্ছন্দ ছিলেন না পাক ব্যাটাররা। সফরকারীদের সফলতম ব্যাটার মার্ক উড ২০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিলেন। ডেভিড উইলি এবং স্যাম কারেন দুজনেই ২৩ রান দিয়ে ২টি করে উইকেট পেয়েছেন। ৩০ রান দিয়ে ১ উইকেট ক্রিস ওকসের।

জবাবে ইংল্যান্ডের ব্যাটাররাও তেমন ব্যাটিং করতে পারলেন না। দুই ওপেনার ফিল সল্ট (৩) এবং অ্যালেক্স হোলস (১) দ্রুত আউট হয়ে যান। তিন নম্বরে নামা দাউইদ মালান ৬টি চারের সাহায্যে করলেন ৩৫ বলে ৩৬ রান। বেন ডাকেট (১০), হ্যারি ব্রুকও (৪) রান পেলেন না। ছয় নম্বরে নেমে দলের ইনিংসকে টানলেন অধিনায়ক মইন। তিনি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকলেন ৩৭ বলে ৫১ রান করে। মারলেন ২টি চার এবং ৪টি ছয়। তবে কাছাকাছি নিয়ে গিয়েও দলকে জেতাতে পারলেন না। শেষ ওভারের রউফের বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংই জিততে দিল না ইংল্যান্ডকে। দু’টো ওয়াইড ইয়র্কার করে মইনের চেষ্টায় জল ঢেলে দিলেন রউফ। অধিনায়ককে শেষ দিকে কিছুটা সহযোগিতা করলেন কারেন (১৭) এবং ওকস (১০)।

পাকিস্তানের সফলতম বোলার রউফ ৪১ রান দিয়ে ২ উইকেট নিলেন। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন পাকিস্তানের বাকি সব বোলারই। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নওয়াজ ৯ রান দিয়ে ১ উইকেট পেয়েছেন।