logo
আপডেট : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০
রূপায়ণ সন্ধ্যায় সাড়ম্বর সংবর্ধনা
ক্রীড়া প্রতিবেদক

রূপায়ণ সন্ধ্যায় সাড়ম্বর সংবর্ধনা

হিমালয়ের বুকে ফুটবলের ফুল ফুটিয়ে আসা নারী ফুটবলাররা সিক্ত হচ্ছেন একের পর এক সংবর্ধনায়। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীসহ অনেক সংগঠন এবং প্রতিষ্ঠান থেকেই তারা পাচ্ছেন আর্থিক পুরস্কার ও সম্মাননা। তবে গতকাল বুধবার রূপায়ণ সিটি উত্তরার আয়োজনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সানজিদা-কৃষ্ণাদের যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, সেটা বোধহয় অন্য কোথাও হয়নি। ব্যান্ড পার্টির বাজনায় লালগালিচা বিছানো পথ ধরে তারা প্রত্যেকে যখন হেঁটে আসছিলেন, দেখাচ্ছিল রানীর মতোই।

জমকালো আয়োজনে ফুটবলের রানীদের বরণ করে নিয়েছে রূপায়ণ সিটি উত্তরা। ঢাকার বুকে সাজানো-গোছানো এক স্বপ্ন শহর, দেশের প্রথম প্রিমিয়াম গেটেড কমিউনিটি কাল সেজেছিল রঙিন আলোর রোশনাইতে। অবশ্য কৃত্রিম সেই আলো ঢাকা পড়ে গেছে সাফজয়ী মেয়েদের হাসিমুখের আভায়। সেই হাসিটা আরও বড় হয়েছে যখন রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খাঁন মুকুল তাদের হাতে তুলে দিয়েছেন ৩০ লাখ টাকার চেক। রূপায়ণ সিটি উত্তরায় গতকাল সন্ধ্যায় আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য হাবিব হাসান, রূপায়ণ গ্রুপের কো-চেয়ারম্যান মাহির আলী খাঁন রাতুল, রূপায়ণ গ্রুপের উপদেষ্টা ও সাবেক জাতীয় ফুটবলার আব্দুল গাফফারসহ রূপায়ণ গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

নিজে ফুটবলার ছিলেন বলেই বোধহয় ফুটবলের প্রতি তার গভীর অনুরাগ। লিয়াকত আলী খাঁন মুকুল খেলেছেন ইস্টএন্ড ক্লাবের হয়ে, আবাহনীর জন্য ট্রায়ালে গিয়ে আঘাত পাওয়াতে দীর্ঘ হয়নি খেলোয়াড়ি জীবন। জড়িয়েছেন আবাসন ব্যবসার সঙ্গে। বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল শহরে আবাসনের মতো কঠিন সমস্যার সমাধান নিয়ে কাজ করতে করতেও ফুটবলের প্রতি তার অনুরাগ কমেনি। সম্পৃক্ত আছেন শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের সঙ্গে। তারই সুযোগ্য পুত্র, রূপায়ণ গ্রুপের কো-চেয়ারম্যান মাহির আলী খাঁন রাতুল বাবার ব্যবসাকে করেছেন সম্প্রসারিত। সেই সঙ্গে উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া ফুটবলপ্রেমটাও তিনি হারিয়ে ফেলেননি কর্মব্যস্ততায়। কাল রূপায়ণ সিটি উত্তরায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বাবার খেলোয়াড়ি জীবনের কথা বলতে গিয়ে হয়েছেন আবেগাপ্লুত, তেমনি জানিয়েছেন মঞ্চে যদি তার পায়ে একটা বল থাকত তাহলে আরও ভালো লাগত!

‘আমার স্কুলজীবনে শিক্ষক-শিক্ষিকা, বন্ধুবান্ধব সবাই আমাকে চিনত ফুটবলের মাধ্যমে। আমি পেশাদার ফুটবলার না হলেও পেশাদার ফুটবলে কী আন্তরিকতা লাগে, আমাদের এ মেয়েরা কী পরিমাণ ত্যাগ স্বীকার করেছেন, কত বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে এখানে এসেছেন, তা আমরা একটু হলেও উপলব্ধি করতে পারি।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করার প্রেক্ষাপট জানিয়ে মাহির আলী খাঁন রাতুল বলেন, ‘আমাদের অনেক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রূপায়ণের অবদান আবাসন খাতে সবচেয়ে বেশি। দেশের বাইরে গেলে আমরা উন্নতমানের আবাসন প্রকল্প দেখতে পাই। সেসব দেখে আমাদের মনে হয়েছিল, আমরা যদি দেশেও এরকম উন্নত আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারি তাহলে আমরাও বিশ্বের বুকে পরিচয় দিতে পারব যে, আমরা বাংলাদেশিরাও উন্নতমানের আবাসন গড়ে তোলার সক্ষমতা রাখি। রূপায়ণ সিটি করা আমাদের স্বপ্ন ছিল, রূপায়ণ সিটি বাংলাদেশের প্রথম প্রিমিয়াম গেটেড কমিউনিটি, যেখানে জীবনযাপনের সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা আছে। আমরা রূপায়ণ সিটিতে এজন্যই অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেছি যেন যেভাবে নারী দল বিশ্বের বুকে আমাদের মাথা উঁচু করেছে তেমনি আমরাও তাদের পাশে দাঁড়াতে চাই এবং বলতে চাই বাংলাদেশের আবাসন খাতের ব্যবসায়ীরাও কোনো অংশে কম নয়।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জানান, দেশের খেলাধুলার মান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছে সরকার। বলছিলেন, ‘আমরা প্রতিটি উপজেলায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম বানিয়ে দিচ্ছি। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন প্রায় ৪৫০ কোটি টাকার একটি পরিকল্পনা দিয়েছে যেখানে চারটি ফুটবল একাডেমি তারা করতে চায়। মেয়েদের দলের এ সাফল্যে আমরা একাডেমির সংখ্যা আরও দুটি বাড়িয়েছি। কক্সবাজারে ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পাশে ফুটবল স্টেডিয়ামও হবে। পূর্বাচলেও শেখ হাসিনা ক্রিকেট স্টেডিয়ামের পাশে ফুটবল স্টেডিয়াম করার পরিকল্পনা রয়েছে।’

অনুষ্ঠানের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল জানান, একাডেমিগুলো হবে রাজশাহী, জামালপুর, গোপালগঞ্জ ও মাগুরাতে। পাশাপাশি বাফুফে ভবনে যেখানে মেয়েরা থাকে এবং কমলাপুর স্টেডিয়ামেও একাডেমি নির্মাণ করা হবে।

শুভেচ্ছা বক্তব্যের পর সাফজয়ী নারী ফুটবলার এবং ফুটবল দলের কোচিং প্যানেলের সদস্যদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খাঁন মুকুল, কো-চেয়ারম্যান মাহির আলী খাঁন রাতুল ও রূপায়ণ গ্রুপের উপদেষ্টা আব্দুল গাফফার।

সাফজয়ী দলের সদস্য ও সহঅধিনায়ক মারিয়া মান্দা দলের পক্ষ থেকে পাশে থাকার জন্য রূপায়ণ গ্রুপকে ধন্যবাদ জানান। দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন রূপায়ণ গ্রুপকে ধন্যবাদ জানিয়ে আরও অনেক বিত্তবান সংস্থাকে ফুটবলের পাশে থাকার আহ্বান জানান।