logo
আপডেট : ১ অক্টোবর, ২০২২ ১০:২৬
বাংলাদেশকে ৮৩ রানের লক্ষ্য দিয়েছে থাইল্যান্ড
ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশকে ৮৩ রানের লক্ষ্য দিয়েছে থাইল্যান্ড

টসভাগ্যে হারলেও ম্যাচের নিয়ন্ত্রণটা শুরু থেকেই নিজেদের আয়ত্তে রেখেছিল বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লেতে থাইল্যান্ডকে হাত খুলতেই দেননি জাহানারা আলমরা। তাতে লক্ষ্যটাও খুব বড় দিতে পারেনি থাইরা। মাত্র ৮২ রানেই তাদের অলআউট করে ফেলে টাইগ্রেসরা। ৮৩ রানের লক্ষ্যে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের আউটার গ্রাউন্ডে একটু পর ব্যাট করতে নামবে বাংলাদেশ।

ইনিংসের শুরু থেকেই আঁটোসাঁটো বোলিংয়ে প্রতিপক্ষকে বেধে রাখেন নাহিদা আক্তাররা। তাতে উইকেট তুলে নিতেও বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। সালমা খাতুনের উদ্বোধনী ওভারে দুই রান নিলেও পরেরটাতেই নাহিদা এসে নেন মেইডেন। তাতে উইকেটের জন্যও বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি টাইগ্রেসদের।

পঞ্চম ওভারে সানজিদা আক্তার মেঘলাকে বোলিংয়ে নিয়ে আসেন অধিনায়ক জ্যোতি। পঞ্চম বলেই এনে দেন ব্রেক থ্রো। থাই উদ্বোধনী ব্যাটার নান্নাপাট কঞ্চারয়েনকাইকে বোল্ড করেন তিনি। ১৩ রানে প্রথম উইকেট হারানোর পর যেন দিশেহারা হয়ে যায় তারা। পরের ওভারে বল করতে আসা সোহেলি আক্তার এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন নেরুয়েমল চাইওয়াইকে। পাওয়ার প্লেতে দুই উইকেট হারানো থাইল্যান্ড সংগ্রহ পায় মাত্র ১৬ রানের।

তবে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস দিয়েছিলেন দুই ব্যাটার। পানিতা মায়া ও নাথাকান চানথাম মিলে গড়েন ৩৮ রানের জুটি। দ্বাদশ ওভারের শেষ বলে সোহেলির বল উড়িয়ে মারতে গিয়েছিলেন মায়া। কিন্তু উইকেট রক্ষক অধিনায়ক জ্যোতি তা তালুবন্দী করে নেন।

এরপর থেকে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে থাইল্যান্ড। তারপর আর বেশিদূর যেতে পারেনি তারা। ১৯.৪ ওভারেই সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ৮২ রানের সংগ্রহ পায়। থাইল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ ২৬ রান করেন মায়া, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চানথাম ২০ রান।

বাংলাদেশের হয়ে রুমানা আহমেদ ৯ রান দিয়ে শিকার করেন তিনটি উইকেট। নিয়েছেন একটি মেইডেন ওভারও। নাহিদা, মেঘলা ও সোহেলি নেন দুটি করে উইকেট। সালমা খাতুন নেন পেয়েছেন উইকেট।