logo
আপডেট : ৬ অক্টোবর, ২০২২ ১৩:৫৮
পাকিস্তানকে হারিয়ে চমক থাইল্যান্ডের
ক্রীড়া ডেস্ক

পাকিস্তানকে হারিয়ে চমক থাইল্যান্ডের

নারী এশিয়া কাপে গতকালই ইতিহাস লিখেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। মালয়েশিয়াকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে পেয়েছে প্রথম জয়ের স্বাদ। তবে আসল চমকটা থাইল্যান্ড ক্রিকেট দল দেখিয়েছি আজ। গত তিন আসরে দুইবার ফাইনাল খেলা পাকিস্তানকে হারিয়ে দিয়েছে তারা। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শ্বাসরুদ্ধকর সেই ম্যাচে এক বল হাতে রেখে ৪ উইকেটে জিতেছে থাইল্যান্ড। চলতি টুর্নামেন্টে এটিই তাদের প্রথম জয়।

ম্যাচে ৪ উইকেট হাতে নিয়ে শেষ ওভারে থাইল্যান্ডের দরকার ছিল ১০ রান। ডিয়ানা বায়াগ ওভারের প্রথম বলটি ওয়াইড দেন, পরের ডেলিভারিতে আসে এক রান। দ্বিতীয় বলটিই বাউন্ডারিতে পরিণত করেন আট নম্বর ব্যাটার রোসেনান কানোহ। পরের দুই বলে তিনি নেন তিন রান। ম্যাচ তখন টাই। পঞ্চম বলটি মিডউইকেটে স্লগ করেই এক রানের জন্য দৌড়ান বোচাথান। জয়ের উল্লাসে মাতে থাই শিবির।

লো স্কোরিং ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেটে ১১৬ রানেই থেমে গিয়েছিল পাকিস্তানের ইনিংস। ওপেনার সিদরা আমিন ৬৪ বলে খেলেন ৫৬ রানের ইনিংস। বাকিরা কেউ বিশের ঘরও ছুঁতে পারেননি। ওপেনার মুনিবা আলি ১৪ বলে ১৫, নিদা দার ২২ বলে ১২ আর আলিয়া রিয়াজ ৯ বলে ১০ রানে অপরাজিত থাকেন।

থাইল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল সরনাইন তিপোচ। ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে ২টি উইকেট নেন এই অফস্পিনার। ১১৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করা থাইল্যান্ডকে জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছেন ওপেনার নাথাকান চানথাম। ৫১ বলে ৫ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় তিনি খেলেন ৬১ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস।

শেষদিকে পাকিস্তানি বোলাররা বেশ চেপে ধরেছিলেন থাইল্যান্ডকে। তবে নানাপথ বলতে গেলে একাই লড়াই করে দলকে এগিয়ে নিয়েছেন। ইনিংসের ১০ বল বাকি থাকতে আউট হন তিনি। তবে তখন থাইল্যান্ডের দরকার মাত্র ১২ রান।