মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কটের ছায়া জি-২০ সম্মেলনে

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:২৫ পিএম

আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্সে জি-২০ সম্মেলনে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন প্রশ্নে একত্রিত হচ্ছেন বিশ্ব নেতারা। বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির জোটের এই সম্মেলনে ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার অবস্থান এবং চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য যুদ্ধকে মেঘের ছায়া হিসেবে দেখছে বিবিসি। এবারের সম্মেলনে সামষ্টিক আলোচনার বাইরে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক বেশ গুরুত্বপূর্ণ জায়গা করে নেবে।

শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনে শীর্ষ নেতারা একে অপরের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হবেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগানের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

পুতিনের সঙ্গে ট্রাম্প বৈঠক বাতিল করায় ইউক্রেন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এখনো স্পষ্ট নয়। আন্তর্জাতিক সম্মেলনগুলোতে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে পুতিন বেশ জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। কিন্তু এবারের বৈঠক বাতিল হওয়ায় পরিস্থিতি ভিন্ন। ইউক্রেন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র হস্তক্ষেপ করবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত না জেনেই পুতিনকে নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে।

সম্প্রতি রাশিয়া কের্চ প্রণালীতে ইউক্রেনের কয়েকটি নৌযানসহ বেশ কয়েকজন সেনাসদস্যকে আটক করে। এই ঘটনায় ইউক্রেন তাদের বেশ কয়েকটি প্রদেশে মার্শাল ল’ জারি করে।

সিএনএন’র বিশ্লেষণ বলছে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে ট্রাম্পের বাণিজ্য যুদ্ধ প্রশমন সংক্রান্ত আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু সর্বশেষ ২৬৭ বিলিয়ন ডলার মূল্যের চীনা পণ্যের ওপর শুল্কারোপের পর এই আলোচনা ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

বাণিজ্য যুদ্ধ আলোচনায় ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে শি জিনপিং। কারণ ট্রাম্পকে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে তার বর্তমান ক্ষমতার মেয়াদ মাথায় রেখে, আর জিনপিং সিদ্ধান্ত নেবেন নিজেকে আজীবন ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট হিসেবে। এমন অবস্থায় এই সম্মেলনেও বাণিজ্য যুদ্ধের বিষয়টির সুরাহা নাও হতে পারে।

গত সোমবার ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে ট্রাম্প জানান, তিনি আগামী বছর চীনের ২০০ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্যের ওপর আরো ১০-২৫ শতাংশ শুল্কারোপ করতে পারেন।

এই সম্মেলনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হওয়ার কথা নেই ট্রাম্পের। কারণ গত সপ্তাহে ইউরোপীয় ইউনিয়ন যুক্তরাজ্যের খসড়া ব্রেক্সিট চুক্তি অনুমোদন দেওয়ার পর এর সমালোচনা করেন ট্রাম্প।

তবে এই সম্মেলন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের জন্য কূটনীতিক পরীক্ষা বলে মনে করছে বিবিসি। তুরস্কে সৌদি কনস্যুলেটে বিন সালমানের নির্দেশেই সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে- এমন অভিযোগের পরেও ট্রাম্পের সঙ্গে তার বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। বিন সালমানকে সঙ্কট থেকে বাঁচাতে ট্রাম্প ব্যবস্থাপত্র দিলেও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান হয়তো সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে চাইবেন। কারণ এরদোগানের সঙ্গেও খাশোগি ইস্যুতে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে বিন সালমানের।

জি-২০ কী

জি-২০ বিশ্বের ২০টি দেশের অর্থমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরদের সমন্বয়ে গঠিত অর্থনীতির জোট। এই জোটের সদস্য ১৯টি দেশ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন। সদস্য দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে, আর্জেন্টিনা, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, জাপান, মেক্সিকো, রাশিয়া, সৌদি আরব, দক্ষিণ আফ্রিকা, দক্ষিণ কোরিযা, তুরস্ক, যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্র। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য বিষয়, ‘কার্যকর এবং স্থায়ী উন্নয়নের জন্য ঐক্য নির্মাণ’।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত