শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

মাঠে নয় পার্লামেন্টে উত্তাপ সৃষ্টি করুন: নাসিম

আপডেট : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৪:৪৭ পিএম

মাঠে উত্তাপ সৃষ্টি করে লাভ হবে না জানিয়ে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টকে মাঠের পরিবর্তে সংসদে উত্তাপ সৃষ্টির আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগে প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে এক সভায় নাসিম এই আহ্বান জানান।

বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট থেকে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদের পার্লামেন্টে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক উত্তাপ মাঠে সৃষ্টি না করে পার্লামেন্টে সৃষ্টি করুন। সরকারের সমালোচনা করুন। ভুল ত্রুটি ধরুন। নির্বাচনের রায় মানেন আর না মানেন, চা-চক্রে না যান সমস্যা নাই। কিন্তু পার্লামেন্টকে ছাড়বেন না। ওখানে যান দেখবেন আপনাদেরই আখেরে লাভ হবে।’

নাসিম বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি এই রাগ অভিমান বেশি দিন থাকবে না। ওদের পার্লামেন্টে আসতেই হবে। নয়তো ইতিহাসের বড় সুবর্ণ সুযোগ আপনারা হারাবেন।’

তিনি বলেন, মানুষ এখন হরতাল অবরোধে বিশ্বাস করে না। হরতাল অবরোধ এখন ভোঁতা হয়ে গেছে। আমরাও চাই না আপনাদের সঙ্গে কোনো সংঘাতে যেতে।

বিএনপির পরাজিত নেতারা নির্বাচিতদের সংসদে যেতে দিচ্ছে না দাবি করে নাসিম বলেন, ‘কিছু নেতা নির্বাচনে পরাজিত হয়েছে। পার্লামেন্টে আসতে পারছে না। তাদের একটা লক্ষ্যই হলো এদেরকে যেতে দেব না। মির্জা ফখরুলকে পার্লামেন্টে ঢুকতে দেব না। খোঁজ নিয়ে দেখবেন এদের মধ্যে একটা গ্রুপ আছে। যারা চায় না নির্বাচিতরা পার্লামেন্টে যাক। তারা বেশি গুরুত্ব না পাক।’

ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত সাংসদ সুলতান মনসুরের ব্যাপারে নাসিম বলেন, ‘আমরা দেখেছি গণফোরামের আমাদের একজন ছোট ভাই পাগল হয়ে গেছে পার্লামেন্টে যাওয়ার জন্য। কারণ সে জানে ওখানে গেলে সে কভারেজ পাবে। কথা বলার সুযোগ পাবে। মোটামুটি মানুষের কাছে একটা গুরুত্ব পাবে। এখন তাকেও দড়ি দিয়ে বাঁধার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

বিএনপিকে সংসদে যেতে প্রলুব্ধ নয়, অনুরোধ করছেন জানিয়ে নাসিম বলেন, ‘আপনারা সংসদে গিয়ে কথা বললে সরকার চাপে থাকবে। আমরা চাপে থাকব। প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণেও বলেছেন এ কথা। নির্বাচনের রায় যেটাই হোক না কেন আওয়ামী লীগ কখনো সংসদ ছাড়েনি বলে দাবি করে নাসিম।

১৪ দলের মুখপাত্র বলেন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে এই নির্বাচন স্বীকৃতি লাভ করেছে। তাহলে আপনাদের আসতে সমস্যা কোথায়। রাজপথে নিজেরা সংগঠিত হতে পারেন না। ভয়ভীতি কাজ করে। নেতাদের মধ্যে বিশ্বাস অবিশ্বাস সৃষ্টি হয়েছে। এখন পার্লামেন্টই একমাত্র জায়গা যেখানে গিয়ে আপনারা কথা বলতে পারবেন।

দুনিয়ায় কোথাও বাধাহীন অবস্থায় কোনো রাজনৈতিক দল কাজ করতে পারে নাই দাবি করে তিনি বলেন, ‘অনেকে বলে বাধা দেওয়া হয়। বাধা দেয়ার ইতিহাসতো আপনারা (বিএনপি) সৃষ্টি করেছেন। কোনো ভালো লক্ষ্য অর্জন করতে হলে নির্যাতন নিপীড়ন ভোগ করেই করতে হয়। এ সময় তিনি বিএনপিকে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের নির্যাতন নিপীড়নের ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেয়ার আহ্বান জানান।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি প্রয়াত এম এ আজিজের স্মরণ সভা ও চলমান রাজনীতি বিষয়ে এই আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। বঙ্গবন্ধু একাডেমি আয়োজিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি নাজমুল হক।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত