বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ঋণ খেলাপি ও অর্থ পাচারকারীদের তালিকা চেয়েছে হাইকোর্ট

আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:৩১ পিএম

গত ২০ বছরে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন ব্যাংকের ঋণ খেলাপি এবং ব্যাংকগুলো থেকে আত্মসাতের মাধ্যমে কারা কি পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার করেছে তার একটি তালিকা তৈরি করে হাইকোর্টে দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আত্মসাৎকৃত অর্থ দেশ বিদেশের যেখানেই থাকুক তা ফিরিয়ে আনতে কি ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সে বিষয়েও হাইকোর্টকে অবহিত করতে বলা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার শুনানি নিয়ে রুল সহ এসব আদেশ দেন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ‌ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ।

শুনানিকালে আদালত বলেন, ইতিমধ্যে ব্যাংকিং খাতকে নাজুক অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এতে করে অর্থনৈতিকভাবেও দেশের নাজুক অবস্থা তৈরি হয়েছে। ব্যাংকিং ও অর্থনৈতিক খাত যেন এর চেয়ে খারাপ পরিস্থিতির দিকে না যায় এ জন্যই এ আদেশ।

ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম বন্ধে গত ২৩ জানুয়ারি হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে হাইকোর্টে এ বিষয়ে একটি রিট আবেদন করা হয়। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

আইনজীবীরা জানান, যে ধরনের নিয়মনীতি মেনে ব্যাংকগুলো থেকে ঋণ দেওয়ার কথা ছিল সেখানে যদি ব্যত্যয় ঘটে থাকে এবং এ কারণে যদি অর্থ আত্মসাৎ হয়ে থাকে এর প্রেক্ষিতে একটি কমিশন গঠনের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন কেন প্রকাশ করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। মন্ত্রী পরিষদ সচিব, অর্থ সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত