বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

লকডাউনে মহাজনী ঋণের ফাঁদে উপকূলের দরিদ্র মানুষেরা, কোস্টের জরিপ

আপডেট : ১২ মে ২০২০, ০৬:০৪ পিএম

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বাংলাদেশে ঘোষিত লকডাউনের ফলে উপকূলে দরিদ্র মানুষের জীবিকার উপর কী ধরনের প্রভাব পড়েছে তা নিয়ে ৬টি জেলায় জরিপ করেছে কোস্ট ট্রাস্ট।

জরিপে দেখা গেছে, লকডাউনের ফলে খাদ্য সংকটে পড়েছেন শতাংশ পরিবার, প্রাতিষ্ঠানিক ঋণের ব্যবস্থা না থাকা মহাজনের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়েছেন প্রায় ৬৩ শতাংশ এবং প্রায় ৪৬ শতাংশ পরিবারে বেড়েছে নারীর প্রতি সহিংসতা। সংস্থার মনিটরিং ও গবেষণা বিভাগ এ জরিপ পরিচালনা করে।

এই জরিপ সম্পর্কে কোস্ট ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক জনাব রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, সম্প্রতি কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় মহাজনী ঋণ শোধ করতে না পারায় একজন দরিদ্র মানুষকে হত্যা করা হয়। নিম্ন আয়ের মানুষের সংকট বুঝতে পেরেই আমরা এই জরিপের সিদ্ধান্ত গ্রহন করি।

তিনি আরও বলেন, খাদ্য সংকটে পড়া মানুষের সহায়তায় কোস্ট ট্রাস্ট তার নিজস্ব আয় থেকে উপকূলীয় ৯টি জেলা ও ৪৯টি জেলা প্রশাসনের ত্রাণ তহবিলে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা অনুদান দিয়েছে।

কোস্ট ট্রাস্টের মনিটরিং ও গবেষণা বিভাগ জানায়, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও বরিশালসহ ৬টি জেলায় সংস্থার ১২টি শাখার অধীনে ২৪০ জন দরিদ্র, নারী প্রধান ও নিম্ন আয়ের পরিবারের মধ্যে এই জরিপ চালানো হয়।

জরিপে দেখা যায়, ৪২ শতাংশ পরিবার ৩ বেলা খাদ্যগ্রহণ চালিয়ে যেতে পারছেন। দিনে ২ বেলা খাদ্য গ্রহণ করছেন ৫২ শতাংশ পরিবার এবং ৫ শতাংশ পরিবার একবেলা করে খাচ্ছেন।

লকডাউনের ফলে পরিবারের আয় সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩৪ শতাংশ পরিবারের। ৬৩ শতাংশ পরিবার এই সংকট মোকাবিলায় চড়া সুদে মহাজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছেন। আত্মীয় স্বজনের কাছ থেকে ধারদেনা করেছেন ১৮ শতাংশ পরিবার এবং কোথাও ঋণ পাননি বলে জানিয়েছেন ১৩ শতাংশ পরিবার।

৫৪ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন, লকডাউনের ফলে তাদের পরিবারে নারীর প্রতি সহিংসতার ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত