মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সড়ক দুর্ঘটনায় কুষ্টিয়ায় এক বছরে দেড় শতাধিক মৃত্যু

আপডেট : ০২ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:৫৬ পিএম

বিদায় নিয়েছে ২০২২ সাল। বিদায়ী বছরের পুরো সময়ই কুষ্টিয়ার সড়ক মহাসড়কে ঘটেছে অসংখ্য দুর্ঘটনা। জেলার সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পাওয়া বছরের মোট ময়নাতদন্তের হিসাব অনুযায়ী গত বছর কুষ্টিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৫৩ জন। যদিও ময়নাতদন্ত ছাড়াই দুর্ঘটনায় নিহত অনেকের লাশ দাফন হয়েছে। সে হিসাবে সড়কে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেশি। ময়নাতদন্তের হিসাব অনুযায়ী, বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরেই (২৮ তারিখ পর্যন্ত) সড়কে প্রাণ হারিয়েছেন ২২ জন। হাসপাতাল, সিভিল সার্জন, পুলিশ ও গণমাধ্যম সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে, এসব দুর্ঘটনার অধিকাংশই ঘটেছে অবৈধ যানবাহন দ্বারা। বালুবাহী অবৈধ ড্রাম ট্রাক, নসিমন করিমন আলমসাধু এবং উঠতি বয়সী কিশোর তরুণদের চালিত বেপরোয়া মোটরসাইকেল এসব দুর্ঘটনার জন্য অন্যতম দায়ী বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। এ ছাড়া খানাখন্দের রাস্তায় যান চালকদের অসতর্কতা ও বেপরোয়া গতির কারণেও সড়কে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের লাশকাটা ঘরের সহকারী লক্ষণ লালের তথ্যমতে, ১৫ ডিসেম্বর থেকে ২৫ ডিসেম্বর ১০ দিনেই তিনি সড়ক দুর্ঘটনার লাশ কেটেছেন ১৩ জনের। এর মধ্যে নসিমনের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে ৮ জন, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা দুর্ঘটনায় ২ শিশুসহ ৩ জন, ট্রাকের সঙ্গে নসিমন ও মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২ জন। এ ছাড়া আরও ৪ জনের মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফন হয়েছে, যাদের তথ্য দাপ্তরিক তালিকায় নথিভুক্ত হচ্ছে না।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্যমতে, চলতি মাসের গত ২৫ ডিসেম্বর এক দিনেই ইজিবাইক, অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলের পৃথক তিনটি দুর্ঘটনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো আপত্তি না থাকায় এসব মরদেহের কোনোটিরই ময়নাতদন্ত হয়নি।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের ৯ তারিখ থেকে ১৫ তারিখ পর্যন্ত ৬ দিনে লাইসেন্সবিহীন চালকের বালুবাহী অবৈধ ড্রাম ট্রাকের ধাক্কায় ৯ জনের মৃত্যু হওয়ার পর জেলার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা লাইসেন্সবিহীন অবৈধ ড্রাম ট্রাকে ব্যাপক তল্লাশি চালিয়ে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানোর চেষ্টা করে। কিন্তু আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নানামুখী এ উদ্যোগ সুফল পায়নি।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) কুষ্টিয়ার সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম টুকু বলেন, ‘২০২২ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় হত্যা ও অপমৃত্যুর মতো অস্বাভাবিক মৃত্যুর সংখ্যা দুই বছরে কুষ্টিয়ায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাকেও ছাড়িয়ে গেছে। এই মৃত্যু মিছিলের লাগাম ধরতে না পারলে সমাজের স্বাভাবিক ভারসাম্য ব্যাহত হবে।’

কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত জেলার ছয়টি উপজেলার মোট ময়নাতদন্ত রিপোর্ট গত বছরের তুলনায় একটু বেশি হবে। সড়ক দুর্ঘটনা ছাড়া এরমধ্যে হত্যাকা-, আত্মহত্যা, পানিতে ডুবে এবং সাপের কামড়ে মৃত্যুও আছে।’ এ বছরের ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রায় ৪০০ অস্বাভাবিক মৃত্যু সনদ সংশ্লিষ্ট থানা ও আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত