সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সিজারে প্রসূতি মায়ের মৃত্যু

অনিয়ম পাওয়ায় লাইফ কেয়ার হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ 

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০২ এএম

গাজীপুরের শ্রীপুরে শিশু জন্মের পর অবহেলা এবং ত্রুটিযুক্ত অস্ত্রোপচারে প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় সেই লাইফ কেয়ার হাসপাতাল বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে শ্রীপুর পৌরসভার মাওনা চৌরাস্তায় অবস্থিত হাসপাতালটির সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়। গাজীপুরের সিভিল সার্জন ডা. মাহমুদা আক্তার ওই হাসপাতাল পরিদর্শন করে এ নির্দেশ দেন। তবে এখনো অল্প কজন রোগী থাকায় আরও দুইদিন চলবে এ হাসপাতাল। এর পর আর কোনো নতুন রোগী ভর্তি বা কোনো কার্যক্রম না চালাতে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লাইফ কেয়ার হাসপাতালের অনিয়মের ফিরিস্তি বেশ লম্বা। হাসপাতালে যারা নার্সের দায়িত্ব পালন করেন তারা কেউই নিবন্ধিত নার্স নন। নার্সিং এর ওপর প্রশিক্ষণ না থাকলেও তারাই নানা ধরনের ইনজেকশন পুশ করেন রোগীর শরীরে। এছাড়া হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য স্যাম্পল সংগ্রহে যাকে রাখা হয়েছে তিনিও অনুমোদিত কেউ না। 

সম্প্রতি ত্রুটিপূর্ণ (সিজার) অস্ত্রোপচারের অভিযোগ উঠা রোগীর ফাইলে কোনো ওটি নোট এবং অস্ত্রোপচারের কোনো ডকুমেন্ট নেই। কেন অপারেশন করা হয়েছে, তার বর্ণনাও পাওয়া যায়নি ফাইলে। এমনকি সেখানে রোগীর ফলোআপ রিপোর্টও নেই। পরিদর্শনে এসব অনিয়ম পাওয়ায় সিভিল সার্জন হাসপাতালের সব কার্যক্রম বন্ধ করতে নির্দেশ দেন। তবে এ সময় হাসপাতালে দুজন সিজারিয়ান অপারেশনের রোগী থাকায় তাদের বুধবার সকালের মধ্যে তাদের ছাড় দিয়ে হাসপাতালের সব ধরনের কার্যক্রম পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।
গাজীপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা.মাহমুদা আক্তার বলেন, হাসপাতাল পরিদর্শন করে নানা অনিয়ম পেয়েছি। তাই ওই হাসপাতাল বন্ধ করতে বলা হয়েছে। একটি তদন্ত কমিটি হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ দিকে প্রসূতি রোগী মৃত্যুর ঘটনায় গত ১ এপ্রিল একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে প্রধান, একই হাসপাতালের গাইনী কনসালটেন্ট সদস্য সচিব এবং সিভিল সার্জন অফিসের একজন চিকিৎসককে এ কমিটিতে সদস্য করা হয়েছে। পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।  

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রণয় ভূষণ দাস বলেন, অনেকগুলো অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেছে অভিযুক্ত হাসপাতালের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায়ও নানা অসঙ্গতি মিলেছে। এসব বিবেচনা করে মাওনা লাইফ কেয়ার হাসপাতাল বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ হাসপাতালের সব কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার রাতে ত্রুটিপূর্ণ অস্ত্রোপচারে ইয়াসমিন আক্তার (৩০) নামের এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যু হয় লাইফ কেয়ার হাসপাতালে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে স্বজন ও স্থানীয় লোকজন হাসপাতালে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে রাতেই ওই হাসপাতালে গিয়ে স্বজনদের সঙ্গে কথা বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শোভন রাংসা। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত