বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রাত পোহালেই দক্ষিণ দিনাজপুরে নরেন্দ্র মোদি

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৯ পিএম

স্বাধীনতার পর এই প্রথম কোনো ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী জনসভা করবেন পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জে। আর সেই সভা ঘিরে বিজেপি নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মধ্যেও উন্মাদনা তুঙ্গে। পাড়ায় পাড়ায়, হাটে বাজারে, এমনকি প্রতিটি চায়ের দোকানের আড্ডায় এখন একটাই আলোচ্য বিষয়, প্রধানমন্ত্রী আসছেন।

১৯৮৬ সালে দক্ষিণ দিনাজপুর রায়গঞ্জ থেকে শিলিগুঁড়ি যাওয়ার পথে সস্ত্রীক নেমেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী। সেই সময়ও সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীকে দেখার ব্যাপক উৎসাহ দেখা যায়। এমনকি ওই এলাকার বিভিন্ন বাড়ি ও দোকানের ছাদে উঠেও সাধারণ মানুষ ভিড় জমিয়েছিলেন।

ভিড়ের চাপে একটি ছাদের একাংশ ভেঙে দুর্ঘটনার কবলেও পড়েন একাধিক মানুষ। পথসভা করলেও কোনো প্রধানমন্ত্রী জনসভা করেননি রায়গঞ্জে। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এবার বিজেপি প্রার্থী কার্তিকচন্দ্র পালের সমর্থনে মঙ্গলবার নির্বাচনী জনসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন দক্ষিণ গোয়ালপাড়া এলাকায় সভা করবেন প্রধানমন্ত্রী। সভার প্রস্তুতি চলছে জোর কদমে। ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন এবং বিজেপি নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করে, সভাস্থলসহ, যাতায়াতের রাস্তা, হেলিপ্যাড এবং গোটা শহরের সার্বিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেছে এসপিজি কম্যান্ডোরা।

বিমান বাহিনীর একাধিক হেলিকপ্টার রায়গঞ্জ স্টেডিয়াম ও মিরুয়ালে অবস্থিত বিএসএফ ক্যাম্পের হেলিপ্যাডে ট্রায়াল দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সভা ঘিরে বিজেপি নেতা-কর্মীদের উৎসাহ ও উদ্দীপনা চোখে পড়ার মতো। শুধু বিজেপি নেতাকর্মী নয়, সাধারণ মানুষের মধ্যেও চরম উদ্দীপনা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর সভা ঘিরে। খবর এই সময়ের।

গণেশ দাস নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, আমরা খুব উৎসাহী, প্রধানমন্ত্রীকে সামনে থেকে দেখতে পাব। জন্মের পর থেকে এই প্রথম কোনো প্রধানমন্ত্রীকে রায়গঞ্জে থেকে দেখতে পাব।

রায়গঞ্জের অপর বাসিন্দা তৃণমূল সমর্থক রূপেশ সাহা বলেন, প্রধানমন্ত্রী রায়গঞ্জে আসছেন আমরাও দেখতে যাব, তবে এতদিন তার দলের সদস্য দেবশ্রী চৌধুরী ক্ষমতায় ছিলেন, কিন্তু তেমন কোনো উন্নতি করতে পারেননি রায়গঞ্জের।

অপরদিকে তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, প্রধানমন্ত্রী তো প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারে আসছেন, তাই এ বিষয়ে তেমন কোনো মন্তব্য করব না।

অন্যদিকে বিজেপির জেলা সভাপতি বাসুদেব সরকার বলেন, আগামীকাল লাখো মানুষের জনসমাগম হবে। সাধারণ মানুষের মধ্যে যে উৎসাহ, উদ্দীপনা, রোমাঞ্চ কাজ করছে তা কল্পনাতীত। আমরা চিন্তায় রয়েছি এত লোককে কোথায় জায়গা দেব!

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত