মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সরকার সিন্দাবাদের দৈত্য হয়ে জনগণের কাঁধে চেপেছে: জি এম কাদের

আপডেট : ১১ মে ২০২৪, ০৬:৩৪ পিএম

বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছেন, দেশের ইতিহাসে অতীতে কোনো সময় এত বেশি বৈষম্য ছিল না। বৈষম্য তৈরি করার জন্য যদি নোবেল প্রাইজ থাকতো, তাহলে বর্তমান সরকার সেই নোবেল প্রাইজ পেত।

শনিবার (১১ মে) দুপুরে রাজধানীর বনানীতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে দলটির ঢাকা মহানগর উত্তর আয়োজিত মত বিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, এখন জনগণের কথায় যে চলবে, জনগণের কথায় যে সরকার পরিবর্তন হবে—এ রকম কোনো বিষয় ঘটছে না। জনগণের কথা বলারই অধিকার নেই, রাষ্ট্রের মালিকানা তাদের হাতে নেই! এটা হলো বাস্তব কথা। সরকার একটা শক্তি-সামর্থ্য নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে দেশটাকে দখল করে ফেলেছে। এখন জনগণের কথা নয়—তাদের কথায় জনগণকে চলতে হবে এবং তাদের কথায় বৈষম্য বা যাই হোক সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, এখন আমার কাছে মনে হয়, আমরা ছোটবেলায় রূপকথার গল্প পড়তাম, আরব্য রজনী। সেখানে বলা হতো, সিন্দাবাদকে একবার দৈত্য নদী পার হওয়ার কথা বলে—আমি পঙ্গু, আমাকে পাড় করে দেন। ঘাড়ের মধ্যে উঠেছে, আর তারপর ঘাড় থেকে নামে না। এখন বর্তমান সরকার সিন্দাবাদের সেই দৈত্য হয়ে জনগণের কাঁধে চেপেছে। এখন জনগণের কথায় সে চলবে না, জনগণকে তার কথায় চলতে বাধ্য করছে। এটি হলো আমাদের সবচেয়ে বড় দুর্ভাগ্য।'

তিনি বলেন, 'আমরা চাই বৈষম্যমুক্ত সমাজ। আর যারা বৈষম্য সৃষ্টি করছেন, আমরা চাই তারাও নিপাত যাক। আজকাল যে বৈষম্য, আমি মনে করি বাংলাদেশের ইতিহাসে কোনো সময় এত বেশি বৈষম্য হয় নাই। যারা সরকারি দল করছেন, তারা সব ধরনের নিয়ম-নীতির বাইরে। সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছেন এবং তারা একটি শক্তিশালী গোষ্ঠী তৈরি করেছেন। সেটা রাজনৈতিক দল হিসেবে আমার মনে হয় না—একটি শক্তিশালী গোষ্ঠী, সংঘবদ্ধ দল জনগণের কাঁধে চেয়ে বসেছে।'

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, 'চাকরি, ব্যাবসা থেকে শুরু করে সব কিছুতেই প্রথম প্রশ্ন আপনি সরকারি দলের সদস্য কি না। দ্বিতীয় প্রশ্ন আপনার পরিবারের কেউ সরকারি দলের বাইরে অন্য কোন দল করে কি না। যে রাষ্ট্রের জন্য মানুষ জীবন দিলো সেই রাষ্ট্র আজ চলে গেছে একটি গোষ্ঠীর হাতে। যারা আওয়ামী লীগের বাইরে তারা অবাঞ্ছিত। অবস্থা এমন যেনো.. থাকলে দাশ হিসেবে থাকেন, না থাকলে যান। কথা বলার অধিকার নেই কারো'।

তিনি বলেন, এভাবে চলতে থাকলে সামনের দিকে দেশে আর রাজনীতি থাকবে না, বিরাজনীতিকরণ চলছে। জনগনকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। আজকাল নির্বাচনে লোকজন যায় না, তাদের বক্তব্য আমরা গেলেই কী আর না গেলেই কী। সামনের দিকে রাজনীতি আরও কঠিন হবে।

নিজের দলের নেতা-কর্মীদের সমালোচনা করে কাদের বলেন, অনেক রাজনীতিবিদদের মধ্যে একটা ভাব এসে গেছে, যারা কিছুটা হলেও ক্ষমতার স্বাদ পাচ্ছে। কিছুটা হলেও ক্ষমতার সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে। যেমন আমাদের দলের, আমরা পাচ্ছি, আমি পাচ্ছি। তাদের মধ্যে একটি দ্বিধা আসছে যে, সরকার যেভাবে চেপে বসেছে—থাকবেই। কাজেই দরকার কী! এদের সঙ্গে লাইন দিয়ে যা পারা যায়...আর যাদেরকে সরকার নিচ্ছে না, যেমন অনেক দল এখন...তাদের তো বাধ্য হয়ে সরকারের বিপক্ষে থাকতেই হবে। তারা চাক আর না চাক, জনগণের পক্ষে গিয়ে দাঁড়াতে হচ্ছে। যেহেতু তাদের কোনো জায়গা নেই কোনোখানে।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে জাপা চেয়ারম্যান আরও বলেন, 'আমাদের বুঝতে হবে যে আমরা জনগণের পক্ষে থাকব না সুযোগ-সুবিধার পক্ষে থাকব। জনগণের পক্ষে থাকতে গেলে ত্যাগ স্বীকারের মানসিকতা থাকতে হবে এবং আমি সে রকম মনোভাব থাকা উচিত। যারা সুযোগ-সুবিধার লোভে পড়ছেন, আমার দৃঢ় বিশ্বাস এই সুযোগ-সুবিধা অত্যন্ত স্বল্প সময়ের জন্য। সামনের দিকে তাদের প্রয়োজনীয়তা থাকবে না।'

তিনি বলেন, 'যারা আওয়ামী লীগের বা সরকারি দলের সুযোগ-সুবিধা নিয়ে অনেক দিন অনেক কিছু করেছেন, তাদেরকে কিন্তু দুই মিনিটে আবার লাথি দিয়ে ফেলেও দেওয়া হয়েছে।'

ঢাকা মহানগর উত্তর এর যুগ্ম আহ্বায়ক সামছুল হক সামছুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভা পরিচালনা করেন মহানগর উত্তর এর সদস্য সচিব সুলতান আহমেদ সেলিম।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত