মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জাল সনদ ব্যবহারের অভিযোগে সহকারী প্রধান শিক্ষকের বেতন বন্ধ

আপডেট : ১৫ মে ২০২৪, ০২:৫৫ পিএম

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে বিএড ডিগ্রীর জাল সনদ ব্যবহার করার অভিযোগে সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমানের বেতন বন্ধ করতে নির্দেশ দেন মাউশি/কুমিল্লা অঞ্চলের উপ পরিচালক মো.কাউসার আহমেদ। অভিযুক্ত মো. মিজানুর রহমান উপজেলার চর আফজল আজাদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের ইনডেক্সধারী এমপিও সহকারী প্রধান শিক্ষক। 

মাউশি/কুমিল্লা অঞ্চলের সহকারী পরিচালক কাউসার আহমেদ জানান, লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চর আফজল মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমান বিএড ডিগ্রীর জাল সনদ দেখিয়ে নিয়োগে অনিয়ম করার অভিযোগে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল হয়। তিনি সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ২০১২ সালে দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএড ডিগ্রী অর্জন করেন। এবং ২০১৪ সালে চাকরিতে যোগদান করেন। চাকরি এমপিওভুক্তি করতে মাউশি অধিদপ্তরে উপ পরিচালক, কুমিল্লা অঞ্চল, তৎকালীন ২০২৩ সালে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে ব্যাখ্যা প্রদানে নির্দেশনা দেন। 

প্রাক্তন উপজেলা এবং জেলা শিক্ষা অফিসার এমপিওভুক্তির অনলাইনে দাখিলকৃত বিএড সনদ পত্রটি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্জন করা। যার পেক্ষিতে মো.মিজানুর রহমানকে এমপিওভুক্ত করা হয়। কিন্তু বর্ণিত সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মূলত বিএড পাশ করেন ২০২০ সালে। এমপিওভুক্তিতে দাখিলকৃত বিএড সনদটি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে থেকে ২০১২ সালে অর্জিত হয়। নিয়োগের পর এমপিওভুক্তিতে বিএড সনদে গড়মিল থাকায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল হয়। 

জাল সনদ ব্যবহার করে এমপিওভুক্ত হওয়ার বিষয়ে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমানকে কারণ দর্শানো হলে তার জবাব সন্তোষ জনক না হওয়ায় জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০২১ এর ১৮.১.ঙ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তার বেতন-ভাতাদি বন্ধের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 

সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমান জানান, বিএড সনদ জাল বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। তিনি বিএড সনদের উপযুক্ত ব্যাখ্যা মাউশি/কুমিল্লা অঞ্চলকে জবাব দিয়েছেন। আজাদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মানজুর আহমেদ দেশ রূপান্তরকে জানান, ডিজি থেকে সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমানের বেতন বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। সাথে তার বেতনও বন্ধ করা হয়েছে। সহকারী প্রধান শিক্ষকের বিএড সনদে সমস্যা থাকায় বেতন-ভাতিদি বন্ধ রাখা হয়েছে। 

আজাদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি মো.নাফিজ মাগফার দেশ রূপান্তরকে জানান, তিনি এসব বিষয়ে ফোনে কথা বলতে রাজি নন। তিনি সরাসরি দেখা করতে বলেন।

রামগতি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. দিদার হোসেন দেশ রূপান্তরকে জানান, চর আফজল আজাদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমান জাল বিএড সনদে এমপিওভুক্ত হওয়ায় ডিজি অফিস তার বেতন-ভাতাদি বন্ধ করতে চিঠি প্রদান করেন।  

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার গৌতম চন্দ্র মিত্র দেশ রূপান্তরকে জানান, তিনি আজাদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.মিজানুর রহমানের বেতন-ভাতাদি বন্ধের কোনো চিঠি পাননি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত