মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আর্সেনাল কি পারবে ১৯৮৮-৮৯ মৌসুমের স্মৃতি ফেরাতে

আপডেট : ১৯ মে ২০২৪, ০৪:৩৮ পিএম

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে মৌসুমের শেষ দিনে আজ শিরোপার নিষ্পত্তি হবে। ইতিহাসে এর আগে ৯ বার ইপিএলে শেষ দিনে শিরোপার মীমাংসা হয়েছে। আর প্রতিবার শীর্ষে থাকা দলই শেষ দিনে ট্রফি নিয়ে বাড়ি ফিরেছে।

তবে আর্সেনাল সমর্থকরা অনুপ্রেরণা হিসেবে নিতে পারে নিজেদের ইতিহাসকে। ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ স্তরের ফুটবলে (প্রিমিয়ার লিগ হওয়ার আগে) সর্বশেষ দল হিসেবে তারাই যে দ্বিতীয় স্থানে থেকে শেষ দিনে লিগ জিততে পেরেছিল।

আর্সেনাল এমন কীর্তি দেখিয়েছিল ১৯৮৮-৮৯ মৌসুমে। পয়েন্ট এবং গোল ব্যবধান সমান হওয়ায় আর্সেনাল সেবার লিগ জিতেছিল গোল বেশি করার কারণে। শেষ ম্যাচে লিভারপুলের বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতেছিল আর্সেনাল। যোগ করা সময়ে মাইকেল থমাসের গোলটি সব হিসেব বদলে দিয়েছিল। 

লিভারপুলের বিপক্ষে শেষ দিকে গোল করে ২-০ জয় এনে দেন মাইকেল থমাস

প্রিমিয়ার লিগ যুগে শেষ দিনে যত শিরোপা নিষ্পত্তি :

১৯৯৪-৯৫ মৌসুম

সেবার ২ পয়েন্ট বেশি নিয়ে শীর্ষে থেকেই মৌসুমের শেষ দিনে লিভারপুলের মাঠে খেলতে গিয়েছিল ব্ল্যাকবার্ন রোভার্স। দুইয়ে থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রতিপক্ষ ছিল ওয়েস্ট হ্যাম। যোগ করা সময়ে গোল করে ব্ল্যাকবার্নকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে ম্যানইউকে লিগ জেতার মঞ্চও তৈরি করে দেয় লিভারপুল। কিন্তু ওয়েস্ট হামের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে সে সুযোগ নষ্ট করে ম্যানইউ। ব্ল্যাকবার্ন ৮৯ এবং ম্যানইউ ৮৮ পয়েন্ট নিয়ে মৌসুম শেষ করে।

১৯৯৫-৯৬ মৌসুম

১৯৯৫-৯৬ মৌসুমেও দৃশ্যপটে ছিল ম্যানইউ। দ্বিতীয় দলটি নিউক্যাসল ইউনাইটেড। শেষ ম্যাচে মাঠে নামার আগে রেড ডেভিলদের পয়েন্ট ছিল ৭৯ এবং নিউক্যাসলের ৭৭। অর্থাৎ ম্যানইউর নিজেদের জয়ই যথেষ্ট ছিল। আর নিউক্যাসলকে নিজেদের জয়ের পাশাপাশি তাকিয়ে থাকতে হচ্ছিল ম্যানইউয়ের ফলের দিকেও। তবে নিউক্যাসলকে কোনো সুযোগ দেয়নি স্যার আলেক্স ফার্গুসনের দল। মিডলসবোরোর বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয় দিয়ে শিরোপা নিশ্চিত করে তারা।

১৯৯৮-৯৯ মৌসুম

এবারও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে শিরোপার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছিল মৌসুমের শেষ ম্যাচ পর্যন্ত। শিরোপা লড়াইয়ে প্রতিপক্ষ ছিল আর্সেনাল। ১ পয়েন্টে এগিয় শীর্ষে ছিল ম্যানইউ। শেষ দিনে টটেনহ্যামের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয় নিয়ে শিরোপা নিশ্চিত করে ফার্গুসনের দল। অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে আর্সেনালের ১-০ গোলের জয়টা আর কাজে লাগেনি।

২০০৭-০৮ মৌসুম

এবারও দৃশ্যপটে ম্যানইউ। তবে এবারের লড়াইটা ছিল আরও হাড্ডাহাড্ডি। কারণ, চেলসির পয়েন্টও ছিল ম্যানইউয়ের সমান ৮৪। গোল ব্যবধানে এগিয়ে শীর্ষে ছিল রেড ডেভিলরা। শেষ ম্যাচে ২-০ গোলের জয় পায় ম্যানইউ। অন্যদিকে বোল্টনের সঙ্গে চেলসি ১-১ গোলে ড্র করায় শিরোপা নির্ধারণে কোনো হিসাবের প্রয়োজন হয়নি।

২০০৯-১০ মৌসুম

শেষ দিনে সেই ম্যানইউ-চেলসি লড়াই। মাঠে নামার আগে ১ পয়েন্টে এগিয়ে ছিল চেলসি। চেলসি ৮-০ গোলে উইগান অ্যাথলেটিককে উড়িয়ে নিশ্চিত করে লিগ শিরোপা। ফলে স্টোক সিটির বিপক্ষে ৪-০ গোলে জিতেও কোনো লাভ হয়নি রেড ডেভিলদের।

২০১১-১২ মৌসুম

মৌসুমটা যেভাবে শেষ হয়েছে, সেটা ছিল অবিশ্বাস্য। এবার শেষ দিনে শিরোপার লড়াইয়ে ছিল দুই নগর প্রতিদ্বোন্দ্বি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ম্যানচেস্টার সিটি।

সময় দুই দলের পয়েন্টই ছিল ৮৬। তবে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শীর্ষে ছিল সিটি। তাই ম্যানইউকে শিরোপা জিততে নিজেদের জয় এবং সিটির পয়েন্ট হারানোর দিকে তাকিয়ে থাকতে হতো। কুইন পার্ক রেঞ্জার্সের বিপক্ষে সিটি ৩-২ গোলে জেতে এবং সান্ডারল্যান্ডের বিপক্ষে ইউনাইটেড জেতে ১-০ গোলে। সান্ডারল্যান্ডের বিপক্ষে ৯০ মিনিটে ২-১ এ পিছিয়ে ছিল সিটি। যোগকরা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে ইডেন জেকো এবং চতুর্থ মিনিটে আগুয়েরো গোল করে স্কোর ৩-২ করেছিল। পয়েন্ট সমান হলেও গোল ব্যবধানে শিরোপা জিতে নেয় সিটিই।

২০১৩-১৪ মৌসুম

এই প্রথম শেষ দিনের লড়াইয়ে ছিল না ম্যানইউ। সেবার লড়াইটা ছিল লিভারপুল ও ম্যানচেস্টার সিটির মধ্যে। সিটির পয়েন্ট ছিল ৮৩ এবং লিভারপুলের ৮১। শেষ দিন সিটির হারের দিকেই তাকিয়ে ছিল লিভারপুল। তবে ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতে লিভারপুলকে কোনো সুযোগ দেয়নি সিটি।

২০১৮-১৯ মৌসুম

আবারও সিটির কাছে শেষ দিনে লিভারপুলের স্বপ্নভঙ্গ। শেষ দিনে মাঠে নামার আগে সিটির পয়েন্ট ছিল ৯৮, লিভারপুলের ৯৭। ব্রাইটনকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে লিভারপুলকে হতাশায় ভাসিয়ে শিরোপা ধরে রাখে সিটিজেনরা।

২০২১-২২ মৌসুম

এবারও সিটি-লিভারপুলের দ্বৈরথ। আলাদা আলাদা ম্যাচে সিটির প্রতিপক্ষ ছিল অ্যাস্টন ভিলা এবং লিভারপুল খেলছিল উলভসের বিপক্ষে। উলভসের বিপক্ষে ৬৯ মিনিট পর্যন্ত ২-০ গোলে পিছিয়ে ছিল সিটি। মনে হচ্ছিল লিগ শিরোপা হয়তো লিভারপুলের হাতে উঠবে। কিন্তু এরপরই চমক। ৭৬ থেকে ৮১ এই ৫ মিনিটের মধ্যে ৩ গোল করে ম্যানচেস্টার সিটি। ম্যাচটি তারা জিতে নেয় ৩-২ গোলে। ফলে উলভসের বিপক্ষে লিভারপুলের ৩-১ গোলের জয় সান্ত্বনা হয়েই ছিল।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত